প্রকৌশল সরঞ্জাম রপ্তানি বেড়েছে ২৯৬.৫৫%
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » পণ্যবাজার

প্রকৌশল সরঞ্জাম রপ্তানি বেড়েছে ২৯৬.৫৫%

২০১৫-১৬ অর্থবছরের জুলাই-ডিসেম্বর মেয়াদে প্রকৌশল পণ্য রপ্তানিতে আয় হয়েছে ২৭ কোটি ৭৯ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলার। যা রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১২ দশমিক ৭৩ শতাংশ বেশি। একইসঙ্গে গত ২০১৪-১৫ অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় এই খাতে রপ্তানি আয় বেড়েছে ২৫ দশমিক ৭৩ শতাংশ।

বাংলাদেশ রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্য অনুযায়ী, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে প্রকৌশল পণ্য রপ্তানিতে আয় হয়েছিল ৪৪ কোটি ৭০ লাখ ৪০ হাজার মার্কিন ডলার। চলতি অর্থবছরে এই খাতের পণ্য রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৫২ কোটি ৫ লাখ ৮০ হাজার মার্কিন ডলার। গত অর্থবছরের প্রথম ৬ মাসে প্রকৌশল পণ্য রপ্তানিতে আয় হয়েছিল ২২ কোটি ১০ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার। চলতি অর্থবছরের জুলাই-ডিসেম্বর মেয়াদে এই খাতে রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ২৪ কোটি ৬৫ লাখ ৪০ হাজার মার্কিন ডলার। এর বিপরীতে আয় হয়েছে ২৭ কোটি ৭৯ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলার; যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১২ দশমিক ৭৩ শতাংশ বেশি।

প্রকৌশল পণ্যের মধ্যে আয়রন স্টিল রপ্তানি করে চলতি অর্থবছরের প্রথম ৬ মাসে আয় হয়েছে ১ কোটি ৯৩ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলার; যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৩৬ দশমিক ২৬ শতাংশ কম। গত অর্থবছরের একই সময়ে এই খাতে আয় হয়েছিল ২ কোটি ৬৯ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার। অর্থাৎ গত অর্থবছরের প্রথম ৬ মাসের তুলনায় চলতি অর্থবছরে এই খাতে রপ্তানি কমেছে ২৮ দশমিক ৩১ শতাংশ। তামার তার রপ্তানিতে আয় হয়েছে ১ কোটি ২৫ লাখ ৭০ হাজার মার্কিন ডলার; যা এই সময়ের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৪ দশমিক ০৫ শতাংশ কম। গত অর্থবছরের একই সময়ে এই খাতে আয় হয়েছিল ১ কোটি ২৫ লাখ ১০ হাজার মার্কিন ডলার।

২০১৪-১৫ অর্থবছরে প্রকৌশল পণ্য রপ্তানিতে আয় হয়েছিল ৪৪ কোটি ৭০ লাখ ৪০ হাজার মার্কিন ডলার। চলতি অর্থবছরে এই খাতের পণ্য রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৫২ কোটি ৫ লাখ ৮০ হাজার মার্কিন ডলার। গত অর্থবছরের প্রথম ৬ মাসে প্রকৌশল পণ্য রপ্তানিতে আয় হয়েছিল ২২ কোটি ১০ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার। চলতি অর্থবছরের জুলাই-ডিসেম্বর মেয়াদে এই খাতে রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ২৪ কোটি ৬৫ লাখ ৪০ হাজার মার্কিন ডলার। এর বিপরীতে আয় হয়েছে ২৭ কোটি ৭৯ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলার; যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১২ দশমিক ৭৩ শতাংশ বেশি।

২০১৫-১৬ অর্থবছরের জুলাই-ডিসেম্বর মেয়াদে স্টেইনলেস স্টিল তার রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৮ লাখ ৫০ মার্কিন ডলার। এই টার্গেটকে ছাড়িয়ে ১৪৯ দশমিক ১৯ শতাংশ বেশি বৈদেশিক মুদ্রা আয় হয়েছে এই খাত থেকে। অর্থাৎ স্টেইনলেস স্টিল তার রপ্তানিতে আয় হয়েছে ৪৫ লাখ ১০ হাজার মার্কিন ডলার; গত ২০১৪-১৫ অর্থবছরের প্রথম ৬ মাসের তুলনায় ২২৯ দশমিক ২৯ শতাংশ বেশি বৈদেশিক মুদ্রা আয় হয়েছে এই খাতে। গত অর্থবছরে এই সময়ে স্টেইনলেস স্টিল রপ্তানিতে আয় হয়েছিল ১৪ লাখ মার্কিন ডলার।

প্রকৌশল সরঞ্জাম রপ্তানিতে চলতি অর্থবছরের প্রথম ৬ মাসে আয় হয়েছে ১৩ কোটি ৯ লাখ মার্কিন ডলার; যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১৭৬ দশমিক ৯০ শতাংশ বেশি। একইসঙ্গে গত অর্থবছরের প্রথম ৬ মাসের চেয়ে এই খাতের বৈদেশিক মুদ্রা আয় বেড়েছে ২৯৬ দশমিক ৫৫ শতাংশ। বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম রপ্তানিতে আয় হয়েছে ৩ কোটি ২৭ লাখ ৮০ হাজার মার্কিন ডলার; যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৪২ দশমিক ৩২ শতাংশ কম। একইসঙ্গে গত অর্থবছরের প্রথম ৬ মাসের তুলনায়ও ৪২ দশমিক ৩৬ শতাংশ কম বৈদেশিক মুদ্রা আয় হয়েছে এই খাতে।

চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরের জুলাই-ডিসেম্বর মেয়াদে বাইসাইকেল রপ্তানিতেও লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়নি। আলোচ্য সময়ে এই খাতে আয় হয়েছে ৪ কোটি ২৫ লাখ মার্কিন ডলার; যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৩২ দশমিক ০১ শতাংশ কম। একইসঙ্গে গত অর্থবছরের প্রথম ৫ মাসের তুলনায় ২৯ দশমিক ৩৭ শতাংশ কম বৈদেশিক মুদ্রা আয় হয়েছে এই খাতে।

অন্যান্য প্রকৌশল পণ্য রপ্তানিতে চলতি অর্থবছরের প্রথম ৬ মাসে আয় হয়েছে ৩ কোটি ৫২ লাখ ৪০ হাজার মার্কিন ডলার; যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১ দশমিক ৯৪ শতাংশ বেশি। গত অর্থবছরের একই সময়ে এই খাতে আয় হয়েছিল ৩ কোটি ১ লাখ ৮০ হাজার মার্কিন ডলার; যা চলতি অর্থবছরের প্রথম ৬ মাসের তুলনায় ১৬ দশমিক ৯২ শতাংশ কম।

অর্থসূচক/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ