ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংঘর্ষে মাদ্রাসা ছাত্র নিহত
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » জাতীয়

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংঘর্ষে মাদ্রাসা ছাত্র নিহত

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুলিশের সঙ্গে মাদ্রাসা ছাত্রদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। গতকাল সোমবার রাতে সংঘর্ষে আহত মাসুদুর রহমান (২০) নামে এক ছাত্রকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আজ মঙ্গলবার ভোরে তার মৃত্যুর পর আবারও ভাংচুর ও সড়ক অবরোধ করেছে শিক্ষার্থীরা। পরিস্থিতি মোকাবেলায় শহরে বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

স্থানীয় জামিয়া ইসলামিয়া ইউনুছিয়া মাদ্রাসার শিক্ষার্থী ছিল মাসুদ। সোমবার রাতে সংঘর্ষের সময় মাসুদকে গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। ভোর রাতে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর শহরের ভাদুঘর এলাকার হাফেজ ইলিয়াস মিয়ার ছেলে সে।

সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক মাইনুল হক উপল জানান, মাসুদের বুকের বাম পাশে ও পেটের নিচে বাম দিকে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

মাসুদের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে সকালে ক্ষোভে ফেটে পড়ে জামিয়া ইসলামিয়া ইউনুছিয়া মাদ্রাসার শিক্ষার্ধীরা। কয়েকশ ছাত্র শহরের টিএ রোড, কুমারশীলের মোড়, লোকনাথ ট্যাংকের পাড়সহ কয়েকটি স্থানে রাস্তা আটকে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ দেখায়। এসময় তারা সড়কের উপর কয়েকটি তোরণও ভাংচুর করে। পুরো শহরে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এই পরিস্থিতিতে সকাল ৮টার দিকে শহরে বিজিবি মোতায়েন করে স্থানীয় প্রশাসন।

১২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল নজরুল ইসলাম বলেন, শহরের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে দুই প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার এএসপি তাপস রঞ্জন ঘোষ বলেন, শহরে বাড়তি পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করছি আমরা।

তিনি আরও জানান, গতকাল সোমবার বিকেলে শহরের জামিয়া ইসলামিয়া ইউনুছিয়া মাদ্রাসার এক ছাত্র মোবাইল ফোন সেট কেনার জন্য জেলা পরিষদ মার্কেটের বিজয় টেলিকমে যান। সেখানে দাম নিয়ে বাকবিতণ্ডা শুরু হলে একপর্যায়ে দোকানদার ওই ছাত্রকে চড় মারেন। এ খবর পেয়ে ওই মাদ্রাসার অর্ধশতাধিক ছাত্র দোকানটিতে ভাংচুর করে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে গেলে শুরু হয় সংঘর্ষ। সংঘর্ষ চলাকালে শহরের বিভিন্ন স্থানে ৩০-৩৫টি হাতবোমা ফাটানো হয়। পরিস্থিতি সামলাতে পুলিশ রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাসের শেল ছোড়ে।

তাপস রঞ্জন ঘোষ বলেন, এই সংঘর্ষে কয়েকজন পুলিশ সদস্যসহ ২০ জন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে পুলিশ সদস্য রাজীব চন্দ্র দাসকে (২৫) ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। অন্যান্যদের স্থানীয় বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ