লেনদেনে স্বস্তি ফিরেছে সোনালী ব্যাংকের
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » ব্যাংক-বিমা

লেনদেনে স্বস্তি ফিরেছে সোনালী ব্যাংকের

প্রযুক্তিগত বিপত্তি কাটিয়ে স্বাভাবিক হয়েছে সোনালী ব্যাংকের অনলাইন সেবা। এতে করে প্রায় এক সপ্তাহ পর লেনদেনে স্বস্তি ফিরে পেয়েছেন ব্যাংকটির লাখ লাখ গ্রাহক। ঢাকাসহ সারাদেশে ব্যাংকটির অনলাইনভিত্তিক শাখাগুলোতে এখন তারা অর্থ জমা, উত্তোলন, এলসি খোলা, এলসির মূল্য পরিশোধসহ সব কাজ নির্বিঘ্নে করতে পারছেন। এটিএম বুথ থেকেও টাকা তুলতে পোহাতে হচ্ছে না কোনো ঝামেলা। ব্যাংকটির বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা ও গ্রাহকদের সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য জানা গেছে।

এ বিষয়ে সোনালী ব্যাংকের আইটি শাখার উপমহাব্যবস্থাপক শামীমুল হক অর্থসূচককে বলেন, সার্ভারে ত্রুটির কারণে সিবিএসের (কোর ব্যাংকিং সিস্টেম) আওতায় থাকা ৫০২টি শাখায় লেনদেনে গত ৪ জানুয়ারি থেকে সমস্যা দেখা দেয়। কিন্তু সার্ভার এখন সম্পূর্ণ ত্রুটিমুক্ত। ফলে লেনদেনে আর কোনো সমস্যা নেই। সব শাখাতেই স্বাভাবিকভাবে লেনদেন হচ্ছে।

আমাদেরও অমানসিক ভোগান্তির শিকার হতে হয়েছে। সার্ভার ১ ঘণ্টা ঠিক থাকলে ৩ ঘণ্টা বিকল থাকে।

তিনি বলেন, লেনদেন অধিকতর সহজ ও স্বয়ংক্রিয় করতে ব্যাংককে সিবিএসের আওতায় আনা হয়। নতুন প্রযুক্তি হওয়ায় ত্রুটি খুঁজে পেতে কিছুটা দেরি হয়। আমাদের নিজস্ব আইটি বিশেষজ্ঞদের পাশাপাশি বাইরে থেকে বিশেষজ্ঞ এনে সমাধান করা হয়েছে। সার্ভার এখন পুরোপুরি নজরদারির মধ্যে রয়েছে।

আজ সোমবার সোনালী ব্যাংকের রমনা কর্পোরেট শাখায় সরেজমিনে দেখা যায়, গ্রাহকরা নির্বিঘ্নে লেনদেন করছেন। এটিএম বুথ থেকেও টাকা তুলছেন। এক গ্রাহক বলেন, দুদিন আগেও টাকা তুলতে এসে ফিরে গিয়েছিলাম। তবে আজ তুলতে পেরেছি।

ওই শাখার এক কর্মকর্তা জানান, গত ৬-৭ দিন শুধু গ্রাহক নয়, আমাদেরও অমানসিক ভোগান্তির শিকার হতে হয়েছে। সার্ভার ১ ঘণ্টা ঠিক থাকলে ৩ ঘণ্টা বিকল থাকে। তিনি বলেন, আমাদের অফিস ছুটি হয় ৫টায়; কিন্তু সার্ভার সচল হওয়ার অপেক্ষায় রাত ১০-১১টা পর্যন্ত অফিসে থাকতে হয়েছে। তবে গতকাল থেকে সবকিছু ঠিকভাবে চলছে।

রাজধানীর বাইরে খুলনা শহরের ডাকবাংলার সোনালী ব্যাংক কর্পোরেট শাখার জেনারেল ম্যানেজার পরিতোষ কুমার অর্থসূচককে জানান, সিবিএসের আওতায় খুলনায় অন্তত ১৪টি শাখা রয়েছে। সার্ভারে ত্রুটির কারণে যেগুলোতে গত এক সপ্তাহ ধরে লেনদেনে সমস্যা হচ্ছিল। তবে গতকাল থেকেই কোনো সমস্যা হচ্ছে না। স্বাভাবিক লেনদেন চলছে।

উল্লেখ, সোনালী ব্যাংকের মোট ১ হাজার ২০৭টি শাখার মধ্যে সিবিএসের আওতায় রয়েছে ৫০২টি শাখা। প্রায় সপ্তাহ ধরে সার্ভার বিকল থাকায় ব্যাংকটির সিবিএসের আওতাভুক্ত শাখাগুলোর সব লেনদেন কার্যত বন্ধ ছিল। ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়ে সাধারণ গ্রাহক থেকে শুরু করে ব্যাংক কর্মকর্তারা।

অর্থসূচক/শাফায়াত/শাহীন

এই বিভাগের আরো সংবাদ