‘মে মাসেও স্থানান্তর হচ্ছে না ৭০% ট্যানারি’
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » লিড নিউজ

‘মে মাসেও স্থানান্তর হচ্ছে না ৭০% ট্যানারি’

৭২ ঘণ্টার মধ্যে রাজধানীর হাজারীবাগ থেকে ট্যানারি না সরালে কারখানাগুলো বন্ধ করে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। তবে ট্যানারি মালিকরা জানিয়েছেন, এই সময়ের মধ্যে ট্যানারি স্থানান্তর সম্ভব নয়। তারা বলেন, আমরাও চাই হাজারীবাগের ট্যানারি দ্রুত স্থানান্তর হোক। তবে এটা সময়ের ব্যাপার।

আজ রোববার শিল্প মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক সভায় ট্যানারি স্থানান্তরে ৭২ ঘণ্টার সময় বেধে দেওয়া হয়। চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরে শিল্প খাতের উন্নয়নে সরকার গৃহীত বিভিন্ন প্রকল্পের কার্যক্রম মূল্যায়নের লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট প্রকল্প পরিচালক ও সংস্থা প্রধানদের নিয়ে এ সভার আয়োজন হয়।

৭২ ঘণ্টার মধ্যে ট্যানারি স্থানান্তর সম্ভব নয়। সাভারের  চামড়া শিল্প নগরীতে এখন পর্যন্ত ২০টি ট্যানারি তাদের স্থানান্তর প্রক্রিয়া শুরু করেছে।

আল্টিমেটাম দেওয়ার পরে বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শাহীন আহমেদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। শাহীন আহমেদে অর্থসূচককে বলেন, ৭২ ঘণ্টার মধ্যে ট্যানারি স্থানান্তর সম্ভব নয়। সাভারের  চামড়া শিল্প নগরীতে এখন পর্যন্ত ২০টি ট্যানারি তাদের স্থানান্তর প্রক্রিয়া শুরু করেছে। এছাড়া সেখানে কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগারের ( সিইটিপি) নির্মাণ কাজও বাকি আছে।

কবে নাগাদ হাজারীবাগের ট্যানারি স্থানান্তর হতে পারে এমন প্রশ্নের জবাবে শাহীন আহমেদ বলেন, এটি একটি দীর্ঘমেয়াদী প্রক্রিয়া। তবে আগামী এপ্রিল-মে মাসের মধ্যে ৩০ শতাংশ ট্যানারি স্থানান্তর করা সম্ভব হতে পারে।

এর আগে, ট্যানারি স্থানান্তরে গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছিলেন শিল্পমন্ত্রী।

কবে নাগাদ চামড়া শিল্প নগরীতে কেন্দ্রীয় বজ্য শোধনাগারের (সিইটিপি) নির্মাণ কাজ শেষ হবে তা নিয়ে রয়েছে সংশয়।

গত ডিসেম্বরে চামড়া শিল্প নগরীতে কারখানার ভবনের বাস্তবায়ন কাজের চিত্র তুলে ধরেন এ প্রকল্পে কর্মরত বুয়েটের ডেপুটি চিফ ইঞ্জিনিয়ার মো. আবু বাকের সিদ্দিক। তিনি অর্থসূচককে জানিয়েছিলেন, চামড়া শিল্প নগরীতে ১৫৫টি শিল্প ইউনিটের মধ্যে ৪র্থ তলার ছাদ ঢালাই সম্পন্ন করেছে ১টি, ২য় তলার ছাদ ঢালাই সম্পন্ন করেছে ৫টি, ১ম তলার ছাদ ঢালাই সম্পন্ন করেছে ৩৪টি, পাইলিং শেষ করে গ্রেটভীম ও কলাম ঢালাই করেছে ২৮টি, পাইলিং শেষ করেছে ১৪টি, পাইলিং কাজ চলমান ৭টি, পাইল কাষ্টি শেষে পাইল ড্রাইভ করেছে ৭টি, পাইল কাষ্টিং করেছে ৩টি, বেস ঢালাই শেষ করে গ্রেটভীম ও কলাম ঢালাই করেছে ২৪টি, বেস ঢালাইয়ের জন্য মাটি খনন করেছে ও নির্মাণ মেটেরিয়াল এনেছে ৬টি, বাউন্ডারি ওয়াল ও গার্ড শেড করেছে ৫টি, শুধু বাউন্ডারি ওয়াল করেছে ১টি ট্যানারি। এছাড়া মামলাজনিত কারণে বরাদ্দপত্র জারি হয়নি ১টি ট্যানারির। তবে তিনিও মনে করেন, যে কাজ এখনও বাকি আছে, তাতে আরও তিন-চার মাসের আগে ট্যানারি স্থানান্তর পুরোপুরি সম্পন্ন হবে না।

আজকের সভায় চামড়া শিল্পনগরী প্রকল্পের অগ্রগতির বিষয়ে শিল্পমন্ত্রী বলেন, নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে চামড়া শিল্পনগরে সিইটিপির বর্জ্য পরিশোধন কাজ শুরু করতে হবে। যেসব ট্যানারি মালিক নির্মাণকাজে বিলম্ব করছেন, তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। যারা ট্যানারি স্থানান্তরের জন্য সরকারের দেওয়া ক্ষতিপূরণের অর্থ নিয়ে কাজ বন্ধ রেখেছেন, তাদের হাজারীবাগের কারখানার মালামাল জব্দ করা হবে। এসময় বিসিককে ট্যানারি মালিক বরাবর উকিল নোটিশ পাঠানোর নির্দেশনাও দেন তিনি।

অর্থসূচক/এমএইচ

এই বিভাগের আরো সংবাদ