দেশ-জাতির মঙ্গল কামনায় শেষ হলো বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » বিবিধ

দেশ-জাতির মঙ্গল কামনায় শেষ হলো বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব

আখেরি মোনাজাতে দেশ-জাতি ও বিশ্বের মঙ্গল কামনার মধ্য দিয়েছে শেষ হয়েছে গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগতীরে মুসলমানদের দ্বিতীয় বৃহত্তম জমায়েত বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। আজ রোববার বেলা ১১টা ৭ মিনিটে শুরু হওয়া মোনাজাত পরিচালনা করেন ভারতের শীর্ষস্থানীয় মুরব্বি মাওলানা মোহাম্মদ সা’দ। মোনাজাতের আগে হেদায়েতি বয়ান করেন তিনি।

এই মোনাজাতে অংশ নিয়েছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার লাখো মানুষ। মোনাজাতে অংশ নিতে ইজতেমা প্রাঙ্গণে ঢল নেমেছে লাখো মানুষের। ময়দানের আশপাশের রাস্তায়ও অবস্থান নিয়েছেন বিপুলসংখ্যক মানুষ।

আখেরি মোনাজাতের আগে বাদ ফজর বয়ান করেন বাংলাদেশের মাওলানা ওয়াসিফুল ইসলাম। গত ১৮ বছর ধরে বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করেন ভারতের প্রখ্যাত আলেম ও বিশ্ব তাবলিগ জামাতের সাবেক আমির মাওলানা জোবায়েরুল হাসান। তার মৃত্যুর পর মোনাজাত পরিচালনার দায়িত্ব পান মাওলানা মোহাম্মদ সা’দ।

আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে আজ ভোর থেকেই শীত উপেক্ষা করে লাখো মুসল্লি মহাসড়কে হেঁটে ও ট্রেনে করে টঙ্গীর ইজতেমা ময়দানে সমবেত হয়েছেন। বিপুল নারী মুসল্লিও মোনাজাতে অংশ নিতে ইজতেমার আশপাশের সড়কে সকাল থেকেই অবস্থান নিয়েছেন। ইসলামের আমল, আকিদা ও দাওয়াত বিষয়ে দেশি-বিদেশি মুসল্লিদের বয়ান শুনেন তারা। আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা।

ইজতেমায় উপস্থিত কয়েকজন মুসল্লি জানান, দেশ ও মানুষের জন্য দোয়া করতে ইজতেমায় হাজির হয়েছেন তারা। এই শিক্ষা আমল করে ইসলামী জীবনাচরণে মনোনিবেশের কথাও বললেন তারা।

বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব শেষ হওয়ার পর ৪ দিন বিরতি দিয়ে আগামী ১৫ জানুয়ারি শুরু হবে ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব। ১৭ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের বিশ্ব ইজতেমা।

আখেরি মোনাজাতের আগে ইজতেমার সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির বিষয়ে গাজীপুরে পুলিশ সুপার (এসপি) হারুন অর রশীদ জানান, মুসল্লিদের জন্য বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা বিভিন্ন পয়েন্টে নিয়োজিত আছেন। তারা মুসল্লিদের ঘরে ফেরা পর্যন্ত এখানে দায়িত্ব পালন করবেন।

তিনি আরও জানান, আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে ভোর থেকেই মুসল্লিদের নির্বিঘ্নে যাতায়াত সুবিধার জন্য টঙ্গী জংশন থেকে ২৩টি বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। মোনাজাত শেষ না হওয়া পর্যন্ত ইজতেমা পার্শ্ববর্তী সড়কে গণপরিবহন চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ