আর্থিক প্রতিষ্ঠানে ‘মেয়াদী ঋণ’ শোধের সময় বাড়ল
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » ব্যাংক-বিমা

আর্থিক প্রতিষ্ঠানে ‘মেয়াদী ঋণ’ শোধের সময় বাড়ল

দেশের ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানে মেয়াদী ঋণের (এক বছরের বেশি মেয়াদের) ক্ষেত্রে ঋণ পরিশোধের সময়সীমা বাড়ানোর বিষয়ে নির্দেশনা দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো অযৌক্তিকভাবে বার বার ঋণের মেয়াদ বাড়াচ্ছে- এমন অভিযোগের প্রেক্ষাপটে কেন্দ্রীয় ব্যাংক এ সিদ্ধান্ত নিল। ব্যাংকগুলোর ক্ষেত্রে এ ধরনের নির্দেশনা থাকলেও ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানের জন্য এটিই প্রথম।

কোনো এসএমএ ঋণের মেয়াদ যদি ১ বছর অবশিষ্ট থাকে, তবে ঋণ পরিশোধের বর্ধিত মেয়াদ হবে ৩ মাস।

বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বাজার বিভাগ থেকে মঙ্গলবার এ বিষয়ে নির্দেশনা দিয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোর কাছে পাঠানো হয়েছে।

নির্দেশনায় বলা হয়, ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানের গ্রাহকদের যেসব হিসাব স্পেশাল মেনশন অ্যাকাউন্টের (এসএমএ) মানের রয়েছে কেবল তাদের ক্ষেত্রেই ঋণের মেয়াদ বাড়ানো যাবে। অর্থাৎ কোনো গ্রাহক যদি পর পর তিন মাস কিস্তি পরিশোধ করতে না পারে তাহলে তাদের হিসাব স্পেশাল মেনশন অ্যাকাউন্টের আওতায় পড়বে। এসএমএ অ্যাকাউন্ট ধারীরাই এ সুবিধা পাবেন। এসএমএ হিসাব ব্যতিরেকে সাধারণ গ্রাহকদের ক্ষেত্রে কোনো ক্রমেই মেয়াদ বাড়ানো যাবে না।

নির্দেশনায় আরও বলা হয়, মেয়াদ বৃদ্ধির সময়সীমা হবে ঋণ পরিশোধের অবশিষ্ট মেয়াদের ২৫ শতাংশ। অর্থাৎ কোনো এসএমএ ঋণের মেয়াদ যদি ১ বছর অবশিষ্ট থাকে তাহলে ঋণ পরিশোধের বর্ধিত মেয়াদ হবে ৩ মাস। তাছাড়া ঋণের মেয়াদ বাড়ানো সিদ্ধান্ত কেবল অনুমোদিত কর্তৃপক্ষকেই দিতে হবে। এ ক্ষেত্রে অনুমোদিত কর্তৃপক্ষ হিসেবে বিবেচিত হবে উক্ত প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পর্ষদ বা পরিচালনা পর্ষদ কর্তৃক স্বীকৃত পক্ষ।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বাজার বিভাগের মহাব্যবস্থাপক শাহ আলম বলেন, আর্থিক খাতের সুশাসন বাড়াতে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, বিভিন্ন সময় দেখা যায়, আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো অযৌক্তিকভাবে ঋণের মেয়াদ বাড়াছে। এ নির্দেশনার ফলে ঋণ খেলাপি হওয়ার সম্ভাবনা কমে যাবে বলেন মনে করেন তিনি।

এ বিষয়ে মাইডাস ফিন্যান্স লিমিটেডের কোম্পানি সচিব আব্দুল ওয়াদুদ অর্থসূচককে বলেন,কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এমন নির্দেশনা দেওয়ার ফলে প্রতিষ্ঠানগুলো ঋণ বিতরণে আরও সতর্ক হবে। ফলে ঋণ খেলাপি অনেকাংশে কমে আসবে।

অর্থসূচক/শাফায়াত/শাহীন

এই বিভাগের আরো সংবাদ