আইপিওতে ১১৪৪ কোটি টাকা তুলেছে ১৮টি কোম্পানি
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » পুঁজিবাজার

আইপিওতে ১১৪৪ কোটি টাকা তুলেছে ১৮টি কোম্পানি

চলতি বছর (২০১৫) পুঁজিবাজার থেকে ১ হাজার ১৪৪ কোটি ৩২ লাখ ২১ হাজার ২০০ টাকা তুলেছে নতুন তালিকাভুক্ত কোম্পানিও মিউচুয়াল ফান্ডগুলো। এ বছর ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত হয়েছে ১৫টি কোম্পানি ও ৩টি মিউচুয়াল ফান্ড। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

আইপিও অনুমোদন

আইপিও অনুমোদন

সূত্র মতে, তালিকাভুক্ত ১৫টি কোম্পানির মধ্যে ৯টি এসেছে প্রিমিয়াম নিয়ে। আর ৬টি এসেছে প্রিমিয়াম ছাড়া। ৯টি কোম্পানি প্রিমিয়াম হিসাবে বাজার থেকে নিয়েছে ৬২৪ কোটি ৫ লাখ ৫৯ হাজার ২০০ টাকা। আর ৩টি মিউচ্যুয়াল ফান্ডের উত্তোলিত টাকার পরিমাণ ১৫৫ কোটি টাকা।

ন্যাশনাল ফিড: ন্যাশনাল ফিড মিল লিমিটেড ডিএসইতে চলতি বছরের ১৯ জানুয়ারি লেনদেন শুরু করে। কোম্পানিটি আইপিওতে ১ কোটি ৮০ লাখ শেয়ার ইস্যুর করে ১৮ কোটি টাকা সংগ্রহ করে।

সি অ্যান্ড এ টেক্সটাইল: সি অ্যান্ড এ টেক্সটাইলস লিমিটেড ২১ জানুয়ারি ডিএসইতে লেনদেন শুরু করে। কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ৪ কোটি ৫০ লাখ শেয়ার ছেড়ে ৪৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করে।

ইফাদ অটোস:  ইফাদ অটোস লিমিটেড ডিএসইতে লেনদেন শুরু করে চলতি বছরের ৫ ফেব্রুয়ারি। কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ২ কোটি ১২ লাখ ৫০ হাজার শেয়ার ছেড়ে ৬৩ কোটি ৭৫ লাখ টাকা সংগ্রহ করে। ১০ টাকা ফেস ভ্যালুর সাথে ২০ টাকা প্রিমিয়ামসহ প্রতিটি শেয়ারের মূল্য নির্ধারণ করা হয় ৩০ টাকা।

শাশা ডেনিমস: শাশা ডেনিমস লিমিটেড ডিএসইতে লেনদেন শুরু করে চলতি বছরের ৫ মার্চ। কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ৫ কোটি শেয়ার ছেড়ে ১৭৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করে। ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের সাথে ২৫ টাকা প্রিমিয়ামসহ ৩৫ টাকা মূল্যে কোম্পানিটি শেয়ার ইস্যু করে।

জাহিন স্পিনিং: জাহিন স্পিনিং লিমিটেড এ বছরের ২৫ মার্চ ডিএসইতে লেনদেন শুরু করে। কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ১ কোটি ২০ লাখ শেয়ার ছেড়ে ১২ কোটি টাকা সংগ্রহ করে।

ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন: গত ৫ এপ্রিল ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড ডিএসইতে তালিকাভুক্ত হয়।

কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ৩ কোটি ৩০ লাখ শেয়ার ছেড়ে বাজার থেকে ২৩৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা উত্তোলন করে। ইউনাইটেড পাওয়ারের প্রিমিয়াম ছিল ৬০ টাকা।

বাংলাদেশ স্টিল রি-রোলিং মিলস: বিএসআরএম লিমিটেড ডিএসইতে লেনদেন শুরু করে ২৭ এপ্রিল। কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ১ কোটি ৭৫ লাখ শেয়ার ছাড়ে ৬১ কোটি ২৫ লাখ টাকা সংগ্রহ করে। ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের সঙ্গে ২৫ টাকা প্রিমিয়ামসহ ৩৫ টাকায় কোম্পানিটিকে শেয়ার ইস্যুর অনুমোদন দেয় নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি

তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজ: তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড ১৭ জুন ডিএসইতে লেনদেন শুরু করে।

কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ২ কোটি ৪৫ লাখ ৬৬ হাজার শেয়ার ছেড়ে ৬৩ কোটি ৮৭ লাখ টাকা সংগ্রহ করে। কোম্পানিটি ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের সঙ্গে ১৬ টাকা প্রিমিয়ামসহ ২৬ টাকায় কোম্পানিটিকে শেয়ার ইস্যুর অনুমোদন পায়।

অলিম্পিক অ্যাক্সেসোরিজ: ২৫ জুন লেনদেন শুরু করে অলিম্পিক অ্যাক্সসোরিজ লিমিটেড। কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ২ কোটি শেয়ার ছেড়ে ২০ কোটি টাকা সংগ্রহ করে।

আমান ফিড: আমান ফিড লিমিটেড ডিএসইতে লেনদেন শুরু করে ১ সেপ্টেম্বর। কোম্পানিটি ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের সাথে ২৬ টাকা প্রিমিয়ামসহ ৩৬ টাকা মূল্যে শেয়ার বিক্রির অনুমোদন পায়। আইপিওর মাধ্যমে কোম্পানিটি বাজারে ২ কোটি শেয়ার ছেড়ে ৭২ কোটি টাকা সংগ্রহ করে।

কেডিএস অ্যাক্সেসোরিজ: কেডিএস অ্যাক্সেসরিজের লেনদেন শুরু হয় ১৫ অক্টোবর। কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ১ কোটি ২০ লাখ শেয়ার ছেড়ে ২৪ কোটি টাকা সংগ্রহ করে। কোম্পানিটিকে ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের সাথে ১০ টাকা প্রিমিয়ামসহ ২০ টাকা মূল্যে শেয়ার ইস্যুর অনুমোদন দেয় কমিশন।

সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ: সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ ২৩ নভেম্বর ডিএসইতে লেনদেন শুর করে। কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ৩ কোটি শেয়ার ছেড়ে ৬০ কোটি টাকা সংগ্রহ করে। কোম্পানিটিকে ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের সাথে ১০ টাকা প্রিমিয়ামসহ ২০ টাকা মূল্যে শেয়ার ইস্যুর অনুমোদন দেয় কমিশন।

রিজেন্ট টেক্সটাইল: গত ১৪ ডিসেম্বর লেনদেন শুরু হয় রিজেন্ট টেক্সটাইলের। কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে ৫ কোটি শেয়ার ছেড়ে ১২৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করে। ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের সাথে ১৫ টাকা প্রিমিয়ামসহ ২৫ টাকা মূল্যে শেয়ার ইস্যুর অনুমোদন দেয় কমিশন।

এই বিভাগের আরো সংবাদ