অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে পারে পুঁজিবাজার: বিরূপাক্ষ পাল
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » লিড নিউজ

অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে পারে পুঁজিবাজার: বিরূপাক্ষ পাল

অর্থনীতিকে চাঙ্গা করার ক্ষেত্রে পুঁজিবাজার ব্যাপক ভূমিকা রাখতে পারে বলে মনে করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. বিরূপাক্ষ পাল।

আজ মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অ্যান্ড ম্যানেজমেন্টের (বিয়াম) অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত স্টেট অব ইকনোমি শীর্ষক সেমিনারে এ মন্তব্য করেন তিনি।

Stat Of Economy

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অ্যান্ড ম্যানেজমেন্টের (বিয়াম) অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত স্টেট অব ইকোনমি শীর্ষক সেমিনারে অতিথিরা। ছবি: মহুবার রহমান

তিনি বলেন, অর্থনীতিকে চাঙ্গা করার ক্ষেত্রে পুঁজিবাজার ব্যাপক ভূমিকা রাখতে পারে। তবে এ নিয়ে গবেষণা দরকার। উন্নত বিশ্বের দেশ ক্যাপিটাল মার্কেটকে গুরুত্ব দিয়ে তাদের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করেছে। আমাদেরও সেটা করা উচিত। গবেষণা করলে এ মধ্যকার সংকটগুলো উঠে আসবে। আর সংকট উত্তোরণ করা গেলে পুজিবাজার চাঙ্গা হবে। চাঙ্গা হবে দেশের অর্থনীতি।

আলোচনার শুরুতে তিনি দেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি, মাথাপিছু আয়, বিনিয়োগ, সুদ হার, নারীদের কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ, আমদানি, রপ্তানি, রেমিট্যান্স, দারিদ্র্যতার হার, মূল্যস্ফীতি নিয়ে নানা সূচক তুলে ধরেন।

তেল নিয়ে ড. বিরূপাক্ষ পাল বলেন, বিশ্ববাজারে তেলের দাম নিম্নমুখী। তবে দেশের বাজারে এর কোনো প্রভাব দেখা যাচ্ছে না। অর্থনৈতিক উন্নয়নে বিনিয়োগ বাড়াতে বিশ্ববাজারের সঙ্গে জ্বালানি তেলের দামের সমন্বয় করতে দেশের বাজারে এই পণ্যের দাম কমানো প্রয়োজন। আর এটা করা গেলে অর্থনৈতিক উন্নয়নে বিনিয়োগ বাড়বে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের এই প্রধান অর্থনীতিবিদ আরও জানান, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে একসময় বেকারত্বের হার ভয়াবহ ছিল। কিন্তু বর্তমানে তারা সে অবস্থা থেকে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে। তাদের অর্থনৈতিক উন্নতি বাড়ছে। আর এক্ষেত্রে মার্কিন পুঁজিবাজার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। অন্যদিক ইউরোপ গুরুত্ব দিচ্ছে ব্যাংকে। কিন্তু এ দেশের দরকার এই দুইয়ের মধ্য সমন্বয়। তিনি কোম্পানিগুলোকে ব্যাংকের প্রতি নির্ভরতা না বাড়িয়ে পুঁজিবাজারে আসার অনুরোধ জানান।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহি চৌধুরী। তিনি বিরূপাক্ষের বক্তব্যে সমর্থন জানিয়ে উল্লেখ করেন,  দেশের বিদ্যুৎ খাতের উন্নয়নে পুঁজিবাজার থেকে অর্থ সংগ্রহ করবে সরকার। বাজারে বন্ড ছেড়ে ১০ কোটি ডলার সংগ্রহ করা হবে।

বাজারে বন্ড ছেড়ে ১০ কোটি ডলার সংগ্রহ করা হবে

তিনি বলেন, এ বন্ড ইস্যু করার ফলে বিদ্যুত খাত এবং দেশের পুঁজিবাজার-উভয়ই লাভবান হবে। এ ধরনের বন্ড বাজারের বৈচিত্র ও গতিশীলতা বাড়াবে।

জানা গেছে, গত জুলাই মাসের মাঝামাঝি সময়ে সরকার বিদ্যুত খাতের জন্য পুঁজিবাজার থেকে অর্থ সংগ্রহের সম্ভাবনা খতিয়ে দেখা শুরু করে গুরুত্বের সঙ্গে। এ নিয়ে বেশ কয়েকটি বৈঠকের পর বন্ডের মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহ করার বিষয়টি চুড়ান্ত করা হয়। এর আলোকে শিগগিরই বন্ড ইস্যুর প্রক্রিয়া শুরু হবে।

শিল্পভিত্তিক উন্নয়ন প্রতিষ্ঠানকে বাজারে আসার জন্য তৈরি থাকতে বলে তৌফিক-ই-ইলাহি জানান, আগামী বছরে জ্বালানি খাতের বেশকিছু কোম্পানি পুঁজিবাজারে আসবে। শিল্পভিত্তিক উন্নয়ন প্রতিষ্ঠানকেও বলা হচ্ছে, আপনারা এ বাজারে আসার জন্য তৈরি থাকুন।

‘স্টেট অব ইকোনমি’ সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন বিনিয়োগ বোর্ডের এক্সিকিউটিভ চেয়ারম্যান এম.এ. সামাদ। সমাপনী বক্তব্যে তিনি পুঁজিবাজার নিয়ে কথা বলেন। এম এ সামাদ জানান, বাংলাদেশের ক্যাপিটাল মার্কেট অনুন্নত। বিনিয়োগ বাড়লে বাজার উন্নয়ন সম্ভব।

এই বিভাগের আরো সংবাদ