'অজুহাতে' চড়া সবজিবাজার
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » পণ্যবাজার

‘অজুহাতে’ চড়া সবজিবাজার

পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকলেও রাজধানীর খুচরা বাজারে কমছে না সবজির দাম। বেশিরভাগ মৌসুমী সবজি বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি ৫০ টাকা থেকে ৬০ টাকা দরে। বুধবার রাজধানীর শান্তিনগর, ফকিরাপুলসহ আশে-পাশের বেশ কয়েকটি কাঁচাবাজার ঘুরে দেখা যায়, সপ্তাহের ব্যবধানে শিম, মুলা, টমেটো, বেগুন, গাজরসহ বেশিরভাগ শীতকালীন সবজির দাম কেজিতে বেড়েছে ৫ থেকে ১০ টাকা পর্যন্ত।

bazar

রাজধানীর একটি কাঁচাবাজার। ফাইল ছবি

এদিকে সপ্তাহের ব্যবধানে ইলিশের দামও হালিতে ৬০০ থেকে ৮০০ টাকা বেড়ে ২ হাজার ৮০০ টাকা থেকে ৩ হাজার ২০০ টাকা ধরে বিক্রি হচ্ছে।

বিক্রেতারা বলছেন, সরবরাহের তুলনায় চাহিদা অনেক বেশি। তাছাড়া আজ বিজয় দিবস উপলক্ষে সরকারি-বেসরকারি অফিস বন্ধ থাকায় স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় চাহিদা একটু বেশি। ফলে দামও বেড়েছে। তবে গত সপ্তাহের দামেই বিক্রি হচ্ছে মাংস, ডিমসহ অন্যান্য মুদি পণ্য।

বাজার ঘুরে দেখা যায়, প্রতি কেজি শিম ৫০ টাকা, টমেটো প্রকারভেদে ৬০ থেকে ৮০ টাকা, বেগুন ৫০ টাকা, লাউ ৫০ টাকা, গাজর ৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। প্রতি কেজি চিচিংগা ৬০ টাকা, ঝিংগা ৬০ টাকা, করলা ৬০ টাকা, চাল কুমড়া ৬০ টাকা, ফুল কপি ও বাধা কপি ৩০ টাকা, কাঁচা পেপে ৩০ টাকা এবং কাঁচা টমেটো ২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

ইলিশের দাম বাড়া প্রসঙ্গে পাইকারি ব্যবসায়ীদের দায়ী করেন শান্তিনগর বাজারের মাছ বিক্রেতা গোলাম রসুল। তিনি বলেন, পাইকারি বাজার থেকে বাড়তি দামে কিনতে হয়েছে। ফলে বিক্রি করতে হচ্ছে একটু বাড়তি দামে। তাছাড়া সরকারি ছুটি থাকায় বাজারে ইলিশের চাহিদাও বেশি।

এদিকে সপ্তাহ শেষে নতুন আলুর দাম কমেছে কেজিতে ২০ টাকা। গত সপ্তাহের ৬০ টাকা দরের আলু বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকায়। পুরাতন আলু বিক্রি হচ্ছে ৩৫ টাকা কেজিতে।

এদিকে স্থিতিশীল রয়েছে পেঁয়াজ ও রসুনের দাম। বাজারে দেশি পুরাতন পেঁয়াজ ৭০ টাকা, দেশি নতুন পেঁয়াজ ৩৫ টাকা ও আমদানি করা পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি ৪০ টাকা দরে। দেশি রসুন ১১০ টাকা, আমদানি করা মোটা রসুন ১৩০ টাকা ও একদানা রসুন ১৯০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। দেশি আদা ৭০ টাকা ও মোটা আদা ৮০ টাকা কেজিতে পাওয়া যাচ্ছে। অধিকাংশ ডালই গত সপ্তাহের দামে বিক্রি হচ্ছে। দেশি মসুর ডাল ১৩০ টাকা, আমদানি করা মোটা মসুর ডাল ১০০ টাকা, মুগ ডাল ১১০ টাকায় যাওয়া যাচ্ছে। এছাড়া কাঁচামরিচ কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ৭৫ থেকে ৮০ টাকা দরে।

বোতলজাত সয়াবিন তেলের মধ্যে ৫ লিটারের রূপচাঁদা পাওয়া যাচ্ছে ৪৮০ টাকা ও তীর ৪৬০ টাকার মধ্যে।

অন্যদিকে, ইলিশের দাম বাড়লেও অন্যান্য মাছের দাম কিছুটা স্থিতিশীল। বাজারে আকার ভেদে প্রতি কেজি রুই মাছ বিক্রি হচ্ছে ৩০০ টাকা থেকে ৪৫০ টাকা, কাতলা ৩৫০ থেকে ৪৮০ টাকায়।

মাংসের বাজার ঘুরে দেখা যায়, প্রতি কেজি গরুর মাংস ৪০০ টাকা, খাসির মাংস ৫৩০ টাকা। ব্রয়লার মুরগি ১৩০ টাকা, লেয়ার মুরগি ১৬০ টাকা।

স্থিতিশীল রয়েছে ডিমের দাম। বাজারে ব্রয়লার মুরগির ডিম ৩২ টাকা, দেশি মুরগি ও হাসের ডিম ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

অর্থসূচক/শাফায়াত

এই বিভাগের আরো সংবাদ