চীনের রেস্তোরাঁয় বিশুদ্ধ বায়ুর মূল্য ১ ইউয়ান!
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » টুকিটাকি

চীনের রেস্তোরাঁয় বিশুদ্ধ বায়ুর মূল্য ১ ইউয়ান!

চীনের পূর্বাঞ্চলের শহরগুলোতে বায়ুদূষণ চরম মাত্রায় পৌঁছেছে। দেশটির জিয়াংশু প্রদেশে বিশুদ্ধ বায়ু বিক্রি হচ্ছে জনপ্রতি ১ ইউয়ানে!

দেশটির বার্তা সংস্থা সিনহুয়ার প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, চীনের পূর্বাঞ্চলের ঝ্যাং জিয়াগাং শহরের একটি রেস্তোরাঁয় খাবারের দামের পাশাপাশি বিক্রি হচ্ছে বিশুদ্ধ বায়ু। ভোক্তাদের না জানিয়ে এই অতিরিক্ত অর্থ আদায় করা হচ্ছিল বলে অভিযোগ উঠেছে ওই রেস্তোরাঁর বিরুদ্ধে।

সম্প্রতি চীনের একটি সংবাদমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশের পর ওই রেস্তোরাঁ বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন।

স্থানীয় কর্তৃপক্ষের এই বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, ভোক্তাদের না জানিয়ে এভাবে অতিরিক্ত অর্থ নেওয়া অবৈধ।

Resturent

রেস্তোরাঁর খাবার।

সিনহুয়ার প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, বায়ুদূষণের কারণে ঝ্যাং জিয়াগাং শহরে সম্প্রতি খুব বেশি ধোঁয়া সৃষ্টি হচ্ছে। এটা এমন এক পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, ১০০ মিটার দূরের জিনিস দেখা যাচ্ছে না।

বায়ুদূষণ থেকে ভোক্তা এবং খাবার রক্ষা করতে ঝ্যাং জিয়াগাং শহরের একটি রেস্তোরাঁয় সম্প্রতি ফিল্টার সিস্টেম স্থাপন করা হয়েছে। এর ব্যয় পুষিয়ে নিতে ভোক্তাদের কাছ থেকে জনপ্রতি ১ ইউয়ান বা ১২ টাকা করে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করেছেন ওই রেস্তোরাঁর মালিক। ভোক্তাদের না জানিয়ে এই অতিরিক্ত চার্জ আরোপ করা হয়েছিল।

জিয়াংশু প্রদেশের এক কর্মকর্তা জানান, রেস্তোরাঁয় খাবারের জন্য অর্ডার দেওয়া হয়। রেস্তোরাঁর কোনো ভোক্তা বিশুদ্ধ বায়ুর অর্ডার নিয়ে আসেন না। তাই এটাকে পণ্য হিসেবে বিক্রি করা যায় না। আর ভোক্তাদের না জানিয়ে অতিরিক্ত চার্জ কেটে নেওয়াও অবৈধ।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, বিশুদ্ধ বায়ু সেবনের জন্য অতিরিক্ত অর্থ নেওয়ায় ওই রেস্তোরাঁর ভোক্তারা অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন। তবে এই সংবাদ প্রকাশের পর চীনের বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এমন ব্যতিক্রমী উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে নিজেদের মতামত ব্যক্ত করেছেন অনেকেই।

সিনা ওয়েইবো মাইক্রোব্লগ সাইটে অনেকেই বলেছেন, বিশুদ্ধ বায়ুর জন্য অতিরিক্ত ফি দিতে তাদের আপত্তি নেই। সেখানে একজন লিখেছেন, আমি খুশি মনেই এই ফি দেব। অপর একজন লিখেছেন, সরকারের উচিত ওই রেস্তোরাঁকে অনুকরণ করে বিশুদ্ধ বায়ু সরবরাহের ব্যবস্থা নেওয়া।

তবে কেউ কেউ লিখেছেন, সেবা দিয়ে অতিরিক্ত নেওয়াটা কোনো সমস্যা নয়। অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের বিষয়ে ভোক্তাদের জানানো হয়নি- এটাই অপরাধ।

এই বিভাগের আরো সংবাদ