বিশেষায়িত বস্ত্র রপ্তানি বেড়েছে ১২.৮৮%
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » লিড নিউজ

বিশেষায়িত বস্ত্র রপ্তানি বেড়েছে ১২.৮৮%

২০১৫-১৬ অর্থবছরের প্রথম ৫ মাসে বিশেষায়িত বস্ত্র রপ্তানিতে আয় হয়েছে ৪ কোটি ৩২ লাখ ৯০ হাজার মার্কিন ডলার। যা এই সময়ের রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২ দশমিক ৬৩ শতাংশ কম। তবে গত ২০১৪-১৫ অর্থবছরের প্রথম ৫ মাসের তুলনায় এই খাতে ১২ দশমিক ৮৮ শতাংশ বেশি বৈদেশিক মুদ্রা আয় হয়েছে এবার।

Terry Towel

রপ্তানিযোগ্য টেরি গামছা।

বাংলাদেশ উন্নয়ন রপ্তানি ব্যুরোর (ইপিবি) নভেম্বর-২০১৫ এর প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরে বিশেষায়িত বস্তু রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১১ কোটি ৫৬ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার। গত ২০১৪-১৫ অর্থবছরে এই খাতে আয় হয়েছিল ৩ কোটি ৮৩ লাখ ৫০ হাজার মার্কিন ডলার। চলতি অর্থবছরের প্রথম ৫ মাসে এই খাতে রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৪ কোটি ৪৪ লাখ ৬০ হাজার মার্কিন ডলার।

বিশেষায়িত বস্ত্রের মধ্যে চলতি অর্থবছরের প্রথম ৫ মাসে টেরি গামছা রপ্তানিতে ২ কোটি ৫ লাখ ৮০ হাজার মার্কিন ডলারের বৈদেশিক মুদ্রা আয় হয়েছে; যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২৪ দশমিক ৫০ শতাংশ বেশি। একইসঙ্গে গত অর্থবছরের প্রথম ৫ মাসের তুলনায় ২১ দশমিক ৭৮ শতাংশ বেশি এটি। ২০১৪-১৫ অর্থবছরে এই খাতে আয় হয়েছিল ১ কোটি ৬৯ লাখ মার্কিন ডলার।

স্পেশাল ওভেন ফেব্রিক রপ্তানি করে ২০১৫-১৬ অর্থবছরের প্রথম ৫ মাসে আয় হয়েছে ৬৩ লখা ৩০ হাজার মার্কিন ডলার; যা এই সময়ের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৯ দশমিক ৭১ শতাংশ বেশি। একইসঙ্গে গত অর্থবছরের তুলনায় এবার ৩৪ দশমিক ১১ শতাংশ বেশি বৈদেশিক মুদ্রা আয় হয়েছে এই খাতে।

গামছা ও ওভেন ফেব্রিক রপ্তানি ইতিবাচক থাকলেও বোনা কাপড় রপ্তানিতে ধস দেখা গেছে ২০১৫-১৬ অর্থবছরের প্রথম ৫ মাসে। আলোচ্য সময়ে এই খাতে আয় হয়েছে ১ কোটি ৩৫ লাখ ৬০ হাজার মার্কিন ডলার; যা এই সময়ের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৩২ দশমিক ১৭ শতাংশ কম। একইসঙ্গে গত অর্থবছরের প্রথম ৫ মাসের তুলনায় ৯ দশমিক ১২ শতাংশ কম বৈদেশিক মুদ্রা আয় হয়েছে এই খাতে।

অন্যান্য বিশেষায়িত বস্ত্রের রপ্তানিতে আলোচ্য সময়ে আয় হয়েছে ২৮ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলার; যা লক্ষ্যমাত্রার ২৯ দশমিক ৯৫ শতাংশ বেশি। একইসঙ্গে গত অর্থবছরের প্রথম ৫ মাসের তুলনায় ৫৫ দশমিক ৮০ শতাংশ বেশি এটি।

অর্থসূচক/ইমাদ

এই বিভাগের আরো সংবাদ