উচ্চ-মধ্যম আয়ের দেশ হতে বিলম্ব হবে বাংলাদেশের: সিপিডি
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » অর্থনীতি

উচ্চ-মধ্যম আয়ের দেশ হতে বিলম্ব হবে বাংলাদেশের: সিপিডি

২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশের পক্ষে উচ্চ-মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হওয়ার লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব নয় বলে মনে করে গবেষণা প্রতিষ্ঠান সিপিডি (সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগ)।

আজ বৃহস্পতিবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে স্বল্পোন্নত দেশগুলো নিয়ে জাতিসংঘের সহযোগী সংস্থা আঙ্কটাডের প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠানে এ মন্তব্য করেছেন সিডিডি ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাটার্য্য।

Debopryo_CPD

আজ বৃহস্পতিবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে স্বল্পোন্নত দেশগুলো নিয়ে জাতিসংঘের সহযোগী সংস্থা আঙ্কটাডের প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠানে সিডিডির ফেলো দেবপ্রিয় ভট্টাটার্য। ছবি মহুবার রহমান

দেবপ্রিয় ভট্টাটার্য্য বলেন, একটি দেশ নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ থেকে উচ্চ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হতে তার মাথাপিছু আয় কমপক্ষে চার হাজার ১২৫ ডলার হওয়া দরকার। অথচ বাংলাদেশের বর্তমান মাথাপিছু আয় মাত্র এক হাজার ১০০ ডলার। আর ২০২১ সালের মধ্যে অর্থাৎ আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে মাথাপিছু আয় চার হাজার ডলারের ওপর নেওয়াও সম্ভব নয়। এটা অলীক কল্পনা। এটা বাস্তব করতে দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি হতে হবে প্রায় ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ।

দেবপ্রিয় বলেন, বাংলাদেশের বর্তমান আর্থ-সামাজিক বাস্তবতায় এটি অবাস্তব কল্পনা।

জাতিসংঘের সহযোগী সংস্থা আঙ্কটাডের তিনটি সূচকের ভিত্তিতে স্বল্পোন্নত দেশগুলোকে মূল্যায়ন করে উল্লেখ করে দেবপ্রিয় বলেন, একটি দেশের মোট জনগোষ্ঠির গড় মাথাপিছু আয় সূচক, মানবসম্পদ উন্নয়ন সূচক ও অর্থনৈতিক ভঙ্গুরতা সূচক; এই তিনটি সূচকের ভিত্তিতে দেশের অবস্থা মূল্যায়ন করা হয়। সূচকগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ শুধু অর্থনৈতিক ভঙ্গুরতা সূচকে লক্ষ্য অর্জন করতে পেরেছে। বাকি সূচকগুলোতে লক্ষ্যে পৌঁছানো সম্ভব হয়নি। ২০২১ সালের যে সময়কে লক্ষমাত্রা হিসেবে ধরা হয়েছে তা খুবই অপ্রতুল সময়। এ সময়ে সবগুলো সূচক পূরণ সম্ভব নয়।

তিনি বলেন, ২০৪১ সালের উচ্চ আয়ের দেশে পরিণত হওয়া নির্ভর করছে সেই সময়ে দেশের সার্বিক পরিস্থিতি কী দাঁড়ায় সেটির উপর। যতটা না আমরা সংখ্যার দিকে জোর দিচ্ছি; নীতি, পরিকল্পনা ও কৌশলের দিকে ততটুকু মনোযোগ নেই।

গ্রামীন অর্থনীতির বৈপ্লবিক পরিবর্তন ছাড়া পৃথিবীর কোনো দেশ নিম্ন মধ্য আয়ের দেশের থেকে উচ্চ মধ্য আয়ের দেশে পরিণত হওয়ার কোনো নজির নেই মন্তব্য করে দেবপ্রিয় বলেন,  বাংলাদেশকেও গ্রামীণ অর্থনীতি অর্থাৎ কৃষির দিকে নজর না দিয়ে উন্নয়ন সম্ভব নয়। সুতরাং নীতি নির্ধারকদের অবশ্যই এটি বিবেচনায় এনে তারপর চিন্তা করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে গবেষণা পত্র উপস্থাপন করেন সিপিডির গবেষক তৌফিকুল ইসলাম খা। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, পরিচালক আনিসাতুল ফাতেমা ইউসুফ,ফাহমিদা খাতুন এবং অতিরিক্ত গবেষণা পরিচালক ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম প্রমুখ।

 

এই বিভাগের আরো সংবাদ