‘৩৪ বিসিএসের ফল কেন বাতিল নয়’
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » শিক্ষা

‘৩৪ বিসিএসের ফল কেন বাতিল নয়’

৩৪তম বিসিএস পরীক্ষার ফল কেন বাতিল করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে ৩৪তম বিসিএসের ভাইভা কেন পুনরায়  নেওয়া হবে না, তাও রুলে জানতে চাওয়া হয়েছে।

হাই কোর্ট। ছবি সংগৃহীত

হাই কোর্ট। ছবি সংগৃহীত

বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট  বেঞ্চ সোমবার এ রুল জরি করেন।

আগামী ৪ সপ্তাহের মধ্যে পাবলিক সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যান, সদস্য, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক, শিক্ষাসচিব, আইনসচিব, জনপ্রশাসন সচিবসহ ৯ জনকে এ রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

৩৪তম বিসিএস লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ চৌধুরী জাফর শরীফ ও আল মাসুম রিফাত সম্প্রতি এর ফলাফল বাতিল চেয়ে হাইকোর্টে একটি রিট দায়ের করেন।

রিটে বলা হয়, নিয়মনুযায়ী মেধাক্রম অনুসারে ফল প্রকাশ করার কথা, কিন্তু পিএসসি কর্তৃপক্ষ এবার সেটি না করে রোল নম্বর অনুসারে ফল প্রকাশ করেছে। রোল নম্বর অনুসারে নিয়োগের ফলে পেছনের অনেক মেধাবীরা বাদ পড়েছে। কারণ ৩৪তম বিসিএস পরীক্ষার ফল মেধা ও  কোটা অনুসরণ করে আলাদাভাবে প্রকাশ করা হয়নি। একীভূত করে এ ফল প্রকাশ করা হয়েছে। এছাড়াও যোগ্য প্রার্থী থাকা সত্ত্বেও ৪০৪টি পদ শুন্য রাখা হয়েছে, যা আইনসঙ্গত নয়।

রিটে ফলাফল পর্যালোচনা করে আরও বলা হয়, প্রতিবন্ধী কোটায় ১ শতাংশ পরীক্ষার্থীকে চাকরি দিতে হলে এবার ২১ জন প্রতিবন্ধীর নিয়োগ পাওয়ার কথা। কিন্তু মাত্র ৩ জনকে নিয়োগের সুপারিশ করেছে পিএসসি। এটিও বেআইনি।

এর পর মঙ্গলবার ওই রিটের শুনানি নিয়ে আদালত রুল জারি করেন।

আদালতে রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট নুর-উস সাদিক। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন সহকারী অ্যার্টনি জেনারেল ফরিদা ইয়াসমিন।

আদেশের পর নুর উস সাদিক সাংবাদিকদের বলেন, গত ২৯ আগস্ট ৩৪ তম বিসিএসের চূড়ান্ত ফল  ঘোষণা করা হয়। ২ হাজার ১৫৯ জনকে নিয়োগের সুপারিশ করে পিএসসি। নন-ক্যাডার অভিধান ২০১০-এর ৫ এর ১ ধারা অনুযায়ী, মেধাক্রম অনুসারে চূড়ান্ত ফল তৈরি করতে হবে। কিন্তু তারা (পিএসসি) এটা না করে  রোল নম্বরের ওপর ভিত্তি করে এ ফল প্রকাশ করেছে।  এটা বেআইনি। এ কারণে রিটটি করা হয়ছিল। আদালত রুল জারি করেছেন।

 

এই বিভাগের আরো সংবাদ