অবসরের পরই পৌর নির্বাচন করতে পারবে সরকারি চাকরিজীবীরা
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » জাতীয়

অবসরের পরই পৌর নির্বাচন করতে পারবে সরকারি চাকরিজীবীরা

ছবি সংগৃহীত

ছবি সংগৃহীত

সরকারি চাকরিজীবীদের অবসর নিয়ে ন্যূনতম ৩ বছর অপেক্ষা করতে হবে না। এই নির্বাচনে তারা অবসর গ্রহণের পরেই প্রার্থী হতে পারবেন।

সংসদ নির্বাচনে সরকারি চাকরিজীবীদের অবসরে যাওয়ার পর ন্যূনতম ৩ বছর পার না হলে নির্বাচনে অযোগ্য হন। কিন্তু পৌর নির্বাচনে অবসর গ্রহণের পর পরই প্রার্থীহতে আইনী কোনো বাধা নেই।

প্রস্তাবিত পৌরসভা নির্বাচন পরিচালনা বিধিমালাতে এ বিধানটি বহাল রেখেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

এছাড়া প্রস্তাবিত পৌরসভা নির্বাচন পরিচালনা বিধিমালাতে নির্বাচিত পৌর মেয়ররা পদত্যাগ না করেই নির্বাচনে অংশগ্রহণের বিধানটিও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে নির্বাচন কমিশনার মো. শাহ নেওয়াজ বলেন, মেয়ররা পদত্যাগ না করেই আসন্ন পৌর নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন।

তাদের স্বপদে থেকে নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার ক্ষেত্রে আইনী কোনো বাধা নেই। কারণ পৌর মেয়র পদটি লাভজনক নয়।

তিনি বলেন, পৌর মেয়ররা শুধু পৌর নির্বাচনে নয়, জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও তাদের পদ ছাড়ার প্রয়োজন নেই।

ইসির সংশ্লিষ্ট শাখার এক কর্মকর্তা বলেন, আগামী ডিসেম্বরে পৌর নির্বাচন অনুষ্ঠানে এখনও বদ্ধপরিকর ইসি। তবে কিছু জটিলতার কারণে এখন ২৪৫টি পৌর এর পরিবর্তে ২৪২টিতে নির্বাচন করার বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন।

এসব পৌরসভার ছবিসহ ভোটার তালিকার সিডি আগামী ১৫ নভেম্বরের মধ্যে ইসি সচিবালয়ে পাঠাতে নির্দেশ পাঠায় কমিশন। সোমবার ইসির এ নির্দেশনা মাঠ পর্যায়ে পাঠানো হয়।

কমিশন সূত্র জানায়, বর্তমানে সারাদেশে পৌরসভার সংখ্যা ৩২৪টি। এরমধ্যে ২০১১ সালে নির্বাচনী উপযোগী ২৬৯টি পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছিল কমিশন। তবে স্থানীয় সরকারের অনুরোধে ওই সময়ে বোদা, রংপুর, বাগাতিপাড়া, কাঞ্চন, নারায়ণগঞ্জ, সিদ্ধিরগঞ্জ, গাজীপুর, পূর্বধলা, কুমিল্লা সদর দক্ষিণ ও রামগড় এই ১০টি পৌরসভার নির্বাচন স্থগিত রাখা হয় এবং নতুন করে মেহেরপুর, ফরিদপুর, মিরকাদিম ও শ্রীবরদী এই ৪টি পৌরসভা তফসিলে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন, ২০০৯ এর ২০ ধারা অনুসারে পৌরসভার মেয়াদ শেষ হওয়ার আগের ৯০দিন অর্থাৎ তিন মাসের মধ্যে নির্বাচন সম্পন্ন করার বিধান রয়েছে। এ হিসাবে আগামী নভেম্বর থেকে জানুয়ারিতে এ নির্বাচন করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

এদিকে আইন মন্ত্রণালয়ের ভেটিং শেষে আগামীকালের মধ্যে পৌরসভা নির্বাচনের আচরণ বিধিমালা জারি করা সম্ভব হবে বলে আশা করছে কমিশন।

মন্ত্রী-সংসদ সদস্যসহ সরকারি সুবিধাভোগীদের পৌর নির্বাচনের প্রচারণায় অংশ নেয়ার নিষেধাজ্ঞা প্রস্তাবিত আচরণবিধিতে তুলে দেয়া হয়েছে।

ইসি সচিবালয়ের যুগ্মসচিব (আইন) মো. শাহজাহান বলেন, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের ভেটিং পাওয়া গেলে দ্রুত গেজেট আকারে সংশোধিত বিধিমালা জারি করা হবে।

সূত্র: বাসস

এই বিভাগের আরো সংবাদ