বৃহস্পতিবার গণজাগরণ মঞ্চের কফিন মিছিল
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » জাতীয়

বৃহস্পতিবার গণজাগরণ মঞ্চের কফিন মিছিল

প্রকাশক-লেখক হত্যা ও হামলার প্রতিবাদে আধাবেলা শান্তিপূর্ণ হরতালের পর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অভিমুখে কফিন মিছিল ও সংহতি সমাবেশের নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করেছে গণজাগরণ মঞ্চ।

দুপুরে অবস্থান তুলে নেওয়ার আগে শাহবাগে এক সমাবেশে মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার বলেন, লেখক-প্রকাশকের ওপর হামলা-হত্যার বিচারের দাবিতে আগামী বৃহস্পতিবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় অভিমুখে কফিন মিছিল হবে। শুক্রবার বিকেল ৩টায় শাহবাগে হবে গণসংহতি সমাবেশ।

Imran H Sarkar

মঙ্গলবার দুপুরে অবস্থান তুলে নেওয়ার আগে শাহবাগে এক সমাবেশে বক্তব্য রাখছেন মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার। ছবি: মহুবার রহমান

তিনি বলেন, হরতালের কারণে জেএসসি পরীক্ষার সময় পেছানোর জন্য আমি শিক্ষার্থী এবং দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে বলে সাধারণ জনগণের কাছে দুঃখ প্রকাশ করছি।

হরতালকারীরা অবস্থান তুলে নেওয়ার পর আজ মঙ্গলবার দুপুর থেকে ঢাকার শাহবাগ মোড়, পুরানা পল্টন এবং সাভারে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে যানজট কিছুটা কমেছে।

ভোর ৬টা থেকেই শাহবাগের প্রজন্ম চত্বর ও টিএসসিতে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীরা। এ সময় শাহবাগ, কাঁটাবন, টিএসসিসহ বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় দফায় দফায় মিছিল চলে। তাদের অবস্থানের কারণে শাহবাগ মোড়ে যানবাহন বন্ধ হয়ে যায়।

সকালে এক প্রতিবাদ সমাবেশে ইমরান বলেন, এই হরতাল সাধারণ মানুষের জানমালের নিরাপত্তার জন্য। আজ সারাদেশের মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে এ হরতাল পালন করছে, যা প্রমাণ করছে তারা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

প্রতিবাদ সমাবেশ চলে বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেইটেও। সেখানে সিপিবি-বাসদের সমাবেশের কারণে পুরানা পল্টনের রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ থাকে। হরতাল শেষে ওই পথও খুলে দেওয়া হয়।

হরতালের কারণে আজকের জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) এবং জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেটের (জেডিসি) সকালের পরীক্ষা হবে দুপুরে।

প্রসঙ্গত, গত শনিবার শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটে জাগৃতি প্রকাশনীর কার্যালয়ে প্রকাশক ফয়সল আরেফিন দীপনকে হত্যা এবং লালমাটিয়ায় শুদ্ধস্বরের কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে প্রকাশক আহমেদুর রশিদ টুটুলসহ তিনজনকে কুপিয়ে জখম করার প্রতিবাদে গত রোববার ঢাকার শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে এক প্রতিবাদ সমাবেশ থেকে এই হরতালের ঘোষণা দেন গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার।

হরতালের সমর্থনে গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় ইমরান জানান, উগ্রবাদীদের চিন্তার সঙ্গে যারাই দ্বিমত পোষণ করছেন তাদেরকেই হত্যার হুমকি দেওয়া হচ্ছে। একে একে হত্যা করা হচ্ছে। এরই প্রতিবাদে আমরা দুইদিন ধরে কর্মসূচি পালন করে আসছি। যেহেতু সারাদেশের মানুষকে হুমকি দেওয়া হচ্ছে এবং তারা জানমালের নিরাপত্তা সংকটে ভুগছেন, তাই নিজেদের জায়গা থেকে সবাই স্বতঃস্ফূর্তভাবে এ হরতাল কর্মসূচি পালন করবেন বলে আশা করছি।

২০১৩ সালে শাহবাগে গণজাগরণ আন্দোলন গড়ে ওঠার সূত্রপাত ঘটেছিল ব্লগার ও অনলাইন অ্যাকটিভিস্টদের একটি মানববন্ধন থেকে। এরপর মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার দাবি জানিয়ে আসা অনেক দল, সংগঠন এই আন্দোলনে যুক্ত হলেও গণজাগরণ আন্দোলনের বিরোধীরাও শাহবাগ আন্দোলনকে ‘ব্লগারদের আন্দোলন’ হিসেবে দেখে আসছেন।

শাহবাগ আন্দোলন শুরুর কয়েকদিনের মধ্যে গণজাগরণ মঞ্চের সংগঠক ব্লগার আহমেদ রাজীব হায়দারকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এরপর একই কায়দায় হত্যা করা হয় আরও কয়েকজন ব্লগার ও অনলাইন অ্যাকটিভিস্টকে, যারা সবাই গণজাগরণ আন্দোলনের সমর্থক ছিলেন।

এই বিভাগের আরো সংবাদ