বেলুনে বেলুনেই ইন্টারনেট সেবা দিবে গুগল
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » টেক

বেলুনে বেলুনেই ইন্টারনেট সেবা দিবে গুগল

বায়ুমণ্ডলের দ্বিতীয় স্তর স্ট্র্যাটোস্ফিয়ারে বেলুন ভাসিয়ে গোটা বিশ্বকে ঘিরে ইন্টারনেট সিগন্যালের একটি বলয় তৈরি করতে চলেছে গুগল। প্রযুক্তি জায়ান্ট প্রতিষ্ঠানটি এই প্রকল্পের নাম দিয়েছে লুন-ইন্টারনেট প্রজেক্ট।

গুগলের ইন্টারনেট বেলুন নিয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে বক্তারা। ছবি সংগৃহীত

গুগলের ইন্টারনেট বেলুন নিয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে বক্তারা। ছবি সংগৃহীত

প্রকল্প অনুযায়ী, তার বা টাওয়ার নয়। এবার বেলুন থেকেই পাওয়া যাবে ইন্টারনেট সংযোগ। হাওয়ার চেয়েও হালকা বেলুন ভেসে বেড়াবে স্ট্র্যাটোস্ফিয়ারে। তার নীচে ৪০ কিলোমিটার ব্যাসের এলাকাজুড়ে প্রায় ৪জি-র সমান স্পিডে ইন্টারনেট সিগন্যাল মিলবে।

২০১৩ সালে পরীক্ষামূলকভাবে প্রকল্পটি নিউজিল্যান্ডে  শুরু  হয়। এরপর ধাপে ধাপে প্রযুক্তি এবং পরিষেবার ব্যাপক উন্নতি ঘটিয়েছে গুগল। এবার গোটা বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে গুগলের এই নতুন গ্যাস বেলুন।

আপাতত ইন্দোনেশিয়ার আকাশে ভাসতে শুরু করছে গুগলের বেশ কয়েকটি দৈত্যাকার হিলিয়াম বেলুন। প্রতিটি বেলুনে থাকছে দু’টি করে রেডিও ট্রান্সসিভার। তাদের কাজ ডেটা আদান-প্রদান করা। কোনো কারণে যান্ত্রিক গোলোযোগ হলে পরিস্থিতি সামাল দিয়ে পরিষেবা নির্বিঘ্ন রাখতে মজুত থাকছে একটি করে ব্যাক-আপ রেডিও। এ ছাড়াও বেলুনে থাকছে একটি কম্পিউটার ও একটি জিপিএস লোকেশন ট্র্যাকার।

গুগলের ইন্টারনেট বেলুন। ছবি সংগৃহীত

গুগলের ইন্টারনেট বেলুন। ছবি সংগৃহীত

বায়ুমণ্ডলের সবচেয়ে নীচের স্তর ট্রপোস্ফিয়ার। এখানে বাতাস খুব অস্থির।একারণেই সেখানে বেলুন রাখছে না গুগল। এর ঠিক উপরের স্তর স্ট্র্যাটোস্ফিয়ারে ভাসানো হচ্ছে বেলুন। কারণ ওই স্তরে বাতাস বেশ স্থির। হাওয়া বেশ মৃদু চলাচল করে। ফলে বেলুন হঠাৎ করে ভেসে এক জায়গা থেকে অন্যত্র চলে যাবে না।

আবার বেলুন সরানোর দরকার হলে, যে অংশে হাওয়া বইছে সেখানে বেলুনকে নামানোর ব্যবস্থাও থাকছে। বিদ্যুৎ সংযোগের মাধ্যমে গোটা ব্যবস্থাকে সচল রাখতে বেলুনেই থাকছে সৌর বিদ্যুতের প্যানেল। যে এলাকার উপর বেলুন ভাসবে, তার নীচে বৃত্তাকারে ৪০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ইন্টারনেট সিগন্যাল মিলবে।

 

 

এই বিভাগের আরো সংবাদ