‘২০১৬ সাল হবে পর্যটন বর্ষ’
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » লিড নিউজ

‘২০১৬ সাল হবে পর্যটন বর্ষ’

পর্যটন শিল্পকে আরও গতিশীল করতে সরকার ২০১৬ সালকে পর্যটন বর্ষ হিসেবে উদযাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার সকালে ঢাকার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ ঐতিহ্য ও পর্যটন সম্মেলনের উদ্বোধনের পর তিনি এ কথা জানান। জাতিসংঘের বিশ্ব পর্যটন সংস্থা (ইউএনডব্লিউটিও) ও বাংলাদেশের বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় যৌথভাবে দুইদিনের এই সম্মেলনের আয়োজন করে।

PM Tourism Industry

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ মঙ্গলবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বুদ্ধিস্ট পর্যটন সার্কিট উন্নয়ন বিষয়ক সম্মেলনের উদ্বোধন শেষে স্যুভেনির কর্নার পরিদর্শন করেন। ছবি: পিআইডি

প্রধান অতিথির বক্তব্যে শেখ হাসিনা বলেন, সম্মেলনের প্রতিনিধিরা এই অঞ্চলে পর্যটন শিল্পের উন্নয়ন ও প্রসারে রোডম্যাপ প্রস্তুতি করতে সক্ষম হবেন। একইসঙ্গে এই রোডম্যাপ বাস্তবায়নে পারস্পরিক সহযোগিতার মনোভাব নিয়ে সবাই এগিয়ে আসবেন।

তিনি বলেন, সার্কভুক্ত দেশের মধ্যে ভুটান, নেপাল, ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের (বিবিআইএন) মোটর ভেইকেল এগ্রিমেন্ট (এমবিএ) চুক্তি সই হয়েছে। ফলে এ অঞ্চলের পর্যটন শিল্প বিকশিত হবে। পর্যটকদের আসা যাওয়া বাড়বে। ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার ঘটবে।

শেখ হাসিনা বলেন, দেশের সর্বদক্ষিণে কক্সবাজার জেলার টেকনাফ উপজেলার সাবরাংয়ে এক্সক্লুসিভ ট্যুরিস্ট জোন গড়ে তোলার কাজ চলছে। এতে বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণের পদক্ষেপও নেওয়া হয়েছে। এর পাশে বিশেষ একটি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলা হবে।

তিনি বলেন, ২০১৬ হবে ভিজিট বাংলাদেশ ইয়ার। পর্যটন শিল্পের উন্নয়নের পাশাপাশি প্রচার ও বিপণনে গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার। বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড এ লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, কক্সবাজার, সেন্টমার্টিন, কুয়াকাটাসহ দেশের সব পর্যটন এলাকায় উন্নয়ন কাজ অব্যাহত রেখেছে সরকার। কক্সবাজার থেকে টেকনাফ পর্যন্ত ৮২ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে মেরিন ড্রাইভ নির্মাণের কাজ এগিয়ে চলছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ইউএনডব্লিউটিওর মহাসচিব তালিব রাফাই অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন। জাতিসংঘের বিশ্ব পর্যটন সংস্থার প্রধান এবং ভারত, ভুটান, নেপাল, মিয়ানমারসহ ১৩টি দেশের পর্যটনমন্ত্রী ও কর্মকর্তারা সম্মেলনে যোগ দিয়েছেন।

এই বিভাগের আরো সংবাদ