স্বস্তিতে নেই কর্নাটকও
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » ক্রিকেট

স্বস্তিতে নেই কর্নাটকও

বোলারদের দাপটে ভারতের ঘরোয়া লিগ রঞ্জি ট্রফি চ্যাম্পিয়ন কর্নাটকের সামনে দাঁড়াতেই পারেনি বাংলাদেশ ‘এ’ দলের ব্যাটসম্যানরা। ফলে সবকটি উইকেট হারিয়ে মাত্র ১৫৮ রান সংগ্রহ করতে সক্ষম হয় সফরকারীরা।

প্রয়াত জগমোহন ডালমিয়ার স্মরণে বাংলাদেশ এ দলের ১ মিনিট নিরবতা

প্রয়াত জগমোহন ডালমিয়ার স্মরণে বাংলাদেশ এ দলের ১ মিনিট নিরবতা

জবাবে ব্যাট করতে নেমে স্বস্তিতে নেই কর্নাটকও। বাংলাদেশ ‘এ’ দলের দুই স্পিনার শুভাগত হোম এবং সাকলায়েন সজীবের ঘূর্ণি যাদুতে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৬৩ রান তুলতে সক্ষম হয়েছে কর্নাটক। ফলে দিন শেষে মাত্র ৫ রানের লিড পেয়েছে রঞ্জি ট্রফি চ্যাম্পিয়নরা।

৫৫ রানে শিশির ভভানি এবং ১৪ রান নিয়ে জগাদেশা সুচিথ ক্রিজে রয়েছেন।

মঙ্গলবার মহিশুরে বাংলাদেশ ‘এ’ দলের দেওয়া ১৫৮ রানের লক্ষে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই বিপদে পড়ে কর্নাটক। রবিকুমার সম্রাট-মৈনাক আগরওয়ালের ২৮ রানের জুটি ভাঙেন স্পিনার সাকলায়েন সজীব। তিনি মৈনাক আগরওয়ালকে সাজঘরে ফেরান। এরপরে অভিষেক রেড্ডিকে নিয়ে ২৪ রানের জুটি গড়েন রবিকুমার। এবার ২৫ রান করা রবিকুমারকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন শুভাগত হোম চৌধুরী।

এরপর ৬৫, ৬৯ এবং ৭৫ রানের মধ্যে আরও তিন উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে কর্নাটক। ৬ষ্ঠ উইকেট জুটিতে শ্রেয়াস গোপাল এবং শিশির ভভানি ২৫ রানের জুটি গড়ে দলকে ১০০’র কৌটায় নিয়ে যান। সেই জুটিও ভাঙেন শুভাগত। তবে ৭ম উইকেটে ৬৩ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়ে ক্রিজে রয়েছেন শিশির ভভানি -জগাদেশা সুচিথ।

সাকলায়েন সজীব ও শোভাগত হোম নেন তিনটি করে উইকেট।

এর আগে শ্রীকান্তদত্ত নরসিমা রাজা ওয়াদিয়ার মাঠে টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশ ‘এ’ দলের অধিনায়ক মুমিনুল হক। এরপরের গল্পটা শুধুই ব্যর্থতার। চরমভাবে ব্যর্থ হয় টপ ও মিডল অর্ডারের ব্যাটসম্যানরা। ওয়ানডের মতো এখানেও শীর্ষ ব্যাটসম্যানরা রানের দেখা পাননি। ২য় ওভারে নিজের নামের পাশে কোনো রান না তুলে সাজঘরে ফেরেন রনি তালুকদার। রনিকে ফেরান ডানহাতি পেসার প্রসিধ কৃষ্ণা। এরপর ১ রান করে সাজঘরে ফেরেন অধিনায়ক মুমিনুল হক। ১০ম ওভারে প্রসিধ জোড়া আঘাত হানেন। ওই ওভারে তিনি ফিরিয়ে দেন এনামুল হক (৫) ও সৌম্য সরকারকে (০)। তারপর দলীয় ৪১ রানের মাথায় প্রসিধের শিকার হন নাসির হোসেন ( ৮)।

একদিকে উইকেট পড়লেও অন্যপ্রান্ত সামলে ছিলেন লিটন দাস। কিন্তু ঠিক ৫০ বলে ১১ বাউন্ডারিতে ৫০ রান করেই বিদায় নেন লিটন। এরপর টেল অ্যান্ডারদের নিয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলার চেষ্টা করেন শুভাগত হোম। তবে তিনিও ৫৫ রান করে আউট হয়ে যান। এরপর কামরুল ইসলাম রাব্বি ৮ ও ১৫ রান করেন সাকলায়েন সজীব।

কর্নাটকের হয়ে  ৫ উইকেট নেন ডানহাতি পেসার প্রসিধ কৃষ্ণা।

এই বিভাগের আরো সংবাদ