'আতঙ্ক ছড়াতেই গণধর্ষণ করছে আইএস'
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » আন্তর্জাতিক

‘আতঙ্ক ছড়াতেই গণধর্ষণ করছে আইএস’

যৌন উত্তেজনার বশে নয় বরং আতঙ্ক ছড়াতেই গণধর্ষণ করছে ইসলামিক স্টেটের (আইএস) জঙ্গিরা- এমনটিই মনে করেন হলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী ও জাতিসংঘের বিশেষ দূত অ্যাঞ্জেলিনা জোলি।

ব্রিটিশ পার্লামেন্টে বক্তব্য রাখছেন হলিউড অভিনেত্রী জাতিসংঘের বিশেষ দূত অ্যাঞ্জেলিনা জোলি।

প্রতিবেদনে বলা হয়, যৌন উত্তেজনার বশে নয়, ঠাণ্ডা মাথায় আতঙ্ক ছড়াতে গণধর্ষণ করছে আইএস। মঙ্গলবার ব্রিটিশ পার্লামেন্টে এমনই বক্তব্য পেশ করলেন হলিউড অভিনেত্রী জাতিসংঘের বিশেষ দূত অ্যাঞ্জেলিনা জোলি।

আগে কখনও দেখা যায়নি, এমন ভয়াবহ ত্রাসের বার্তা পৌঁছে দিতে ধর্ষণকে হাতিয়ার করেছে আইসিস, দাবি জোলির।

মঙ্গলবার হাউস অফ লর্ডস-এর এক কমিটির সামনে তিনি জানান, এই হাতিয়ার হিংস্র, বর্বরোচিত এবং ভীতিপ্রদ। অবিলম্বে এই সমস্যার সমাধান প্রয়োজন।

গত গ্রীষ্মে সিরিয়া ও ইরাকের বিস্তীর্ণ অঞ্চল দখল করে স্বাধীন ক্যালিফেট ঘোষণা করে আইসিস। অধিকৃত অঞ্চল থেকে নানা বয়সের কয়েক লাখ নারীকে অপহরণের পর ধর্ষণ করা হয়। এরপর যৌন ক্রীতদাস হিসাবে তাদের নিলাম ডেকে বেঁচে দেওয়া হয়।

সংঘর্ষভূমিতে যৌন নিগ্রহ রুখতে ২০১২ সালে সাবেক ব্রিটিশ পররাষ্ট্র সচিব উইলিয়াম হেগের সঙ্গে জুটি বেঁধে বিশেষ উদ্যোগে সামিল হন অস্কারজয়ী অভিনেত্রী জোলি। রণভূমিতে যৌন হিংসার শিকার বেশ কয়েকজন নারীর সঙ্গে তার কথা হয়েছে বলে জানিয়েছেন অভিনেত্রী। এদের মধ্যে রয়েছে ১৩ বছর বয়সী এক কিশোরী। যে জানিয়েছিল, বন্ধুদের সঙ্গে বহু বার ধর্ষণ করার পর ৪০ ডলারের বিনিময়ে তাকে বেচে দেওয়া হয়।

এদিন হাউস অফ লর্ডস-এর কমিটির সামনে অ্যাঞ্জেলিনা জানান, আইসিস জানে ধর্ষণ এক অব্যর্থ অস্ত্র। জঙ্গিরা এই অস্ত্র তাদের সৃষ্ট ত্রাসের মধ্যমণি হিসাবে ব্যবহার করে। এই অস্ত্রের প্রয়োগে শুধু একটি পরিবার নয়, গোটা জাতিকে ধ্বংস করা সম্ভব। আইসিস-এর কাছে ধর্ষণ এক জঙ্গি নীতি বিশেষ।

এই বিভাগের আরো সংবাদ