অনিয়ম রোধে ক্রয় নীতিতে আসছে পরিবর্তন
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » লিড নিউজ

অনিয়ম রোধে ক্রয় নীতিতে আসছে পরিবর্তন

সব ধরনের অনিয়ম দূর করতে সরকারি কেনাকাটার ক্ষেত্রে প্রচলিত বিধিমালায় বড় ধরনের পরিবর্তনের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। যুক্ত হচ্ছে অনলাইনে ক্রয়াদেশের নিয়ম। সেই সঙ্গে পরিবর্তন আনা হচ্ছে অনলাইনে ক্রয়নীতি। এ লক্ষ্যে ইতোমধ্যে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের সেন্ট্রাল প্রকিউরমেন্ট টেকনিক্যাল ইউনিট (সিপিটিইউ) কাজ শুরু করেছে।

ধান- ছবি সংগৃহীত

ধান- ছবি সংগৃহীত

মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে ‘পাবলিক প্রকিউরমেন্ট আইন, ২০০৬ ও পাবলিক প্রকিউরমেন্ট বিধিমালা, ২০০৮ (মুদ্রণ ২০১৩) এর সংশোধনে এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। বৈঠকে ক্রয় নীতিমালার বেশকিছু বিধিতে পরিবর্তনের নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, প্রচলিত আইন: (এলটিএম) সীমিত দরপত্র পদ্ধতিতে ২ কোটি টাকা পর্যন্ত প্লাস মাইনাস ৫ ভাগ সীমা নির্ধারিত আছে। সেটাকে পরিবর্তন করে ১০ ভাগ করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে ক্রয় অভিজ্ঞতার আর্থিক সীমা ২ কোটি থেকে বাড়িয়ে ৩ কোটিতে নেওয়া হচ্ছে। এই সীমায় যৌথ উদ্যোগ নেওয়া যাবে না।

সংশোধনীতে দাপ্তরিক প্রাক্কলিত মূল্যের ১০ ভাগ পযর্ন্ত কম হলে কার্য সম্পাদন জামানত চুক্তি মূল্যের ১০ ভাগ, মূল চুক্তিতে প্রত্যাশিত সম্প্রসারিত সমাপ্তির তারিখ হতে প্রতিদিন বিলম্বের জন্য ঠিকাদার চুক্তি র্নিধারিত দৈনিক বা সপ্তাতিক হারে বিলম্বজনিত ক্ষতিপূরণ এবং ঠিকাদারের ত্রুটির কারণে ক্রয়কারি কতৃক চুক্তি বাতিল করলে ক্রয়কারির নিজস্ব বিবেচনায় ঠিকাদারকে ন্যূনতম এক বছরের অনধিক এবং ২ বছরের জন্য সব ধরনের ক্রয় কার্যক্রমে অংশগ্রহণের অযোগ্য বিবেচনার সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে।

বৈঠক সূত্র জানা গেছে, ক্রয় আইন এবং বিধিমালায় ফাঁক-ফোকরের সুযোগে ঠিকাদারদের বিরুদ্ধে সরকারি ক্রয় কার্যক্রমে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে কাজ নেওয়াসহ বিভিন্ন ধরনের অভিযোগ পাওয়া যায়। এ পরিপ্রেক্ষিতে সরকারি কেনাকাটায় বড় ধরনের পরিবর্তন আনা হচ্ছে। আজকের বৈঠকে এসব বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। তবে এখন বিষয়টি চূড়ান্ত নয়। আরও আলোচনা পরিবর্তন হতে পারে।

এমআই/

 

 

এই বিভাগের আরো সংবাদ