শেষ হয়ে যাচ্ছে সাপের কামড়ের মহৌষধ!
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » টুকিটাকি

শেষ হয়ে যাচ্ছে সাপের কামড়ের মহৌষধ!

সাপের কামড়ের চিকিৎসায় ব্যবহৃত বিশ্বের প্রতিষেধকগুলোর অন্যতম একটি পৃথিবী থেকে বিদায় নিতে যাচ্ছে। আর তা হলে বিশ্বের লাখ লাখ মানুষকে জীবন নাশের হুমকিতে পড়তে হবে বলে সতর্ক করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

মঙ্গলবার বিবিসি, মিরর অনলাইনসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে এ খবর জানানো হয়েছে।

ছবি সংগৃহীত

ছবি সংগৃহীত

প্রতিবেদনে বলা হয়, আগামী বছরের জুন মাসে ‘ফ্যাব অ্যাফ্রিক’ নামের এই ওষুধের সবশেষ ব্যাচের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। আফ্রিকায় ১০ ধরনের সাপের দংশনে প্রতিষেধক হিসেবে কাজ করে এই ওষুধ।
ফ্যাব অ্যাফ্রিক প্রস্তুতকারক কোম্পানি স্যানোফি প্যাসতিউর জানিয়েছে, বাজারে এই ওষুধ সরবরাহ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, বাজারে ফ্যাব অ্যাফ্রিক এর বিকল্প ওষুধও আছে। তবে এমএসএফ নামের একটি দাতব্য সংস্থা বলছে, সেগুলো ফ্যাব অ্যাফ্রিক এর মতো কার্যকরী নয়। সাব-সাহারা আফ্রিকা জুড়ে বিভিন্ন ধরনের সাপের দংশন থেকে আক্রান্ত মানুষকে বাঁচাতে তার কার্যকারিতা প্রমাণিতও হয়েছে।

গত বছরই ফ্যাব আফ্রিকের উৎপাদন বন্ধ করে দেয় স্যানোফি। এর পরিবর্তে তারা জলাতঙ্কে রোগের প্রতিষেধক নিয়ে কাজ শুরু করেছে।

এমএসএফ জানিয়েছে, স্যানোফি তাদের ফ্যাব অ্যাফ্রিকর প্রস্তুতপ্রণালী অন্য একটি কোম্পানিকে দিতে আলোচনা চালাচ্ছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কোম্পানিটিও জানিয়েছে, তারা এই ওষুধের প্রস্তুত-প্রণালী অন্যর সঙ্গে শেয়ার করবে। তবে ২০১৬ সাল শেষ হওয়ার আগে তা চূড়ান্ত হবে না বলে আশা করা হচ্ছে। এর অর্থ, আগামী বছরের জুনের পর অন্তত আরও দুই বছর এই ওষুধের কার্যকরী বিকল্প বাজারে আসবে না। ফলে এই সময়ে সাপের কামড়ে সাব সাহারার অগণিত মানুষকে মরতে হতে পারে।

দাতব্য সংস্থাটির এক মুখপাত্র পল্লি মার্কান্ডি জানান, সাপে কামড়ানোর পর সাধারণত অধিকাংশ মানুষ বলতে পারে না যে, তাদের কোন সাপে দংশন করেছে। তাই ফ্যাব আফ্রিক এর মতো বিভিন্ন সাপের কামড়ে কাজ করে এমন একটি প্রতিষেধক অত্যন্ত প্রয়োজন।

তিনি বলেন, কার্যকরী প্রতিষেধক ছাড়া থাকতে হবে- এটা আমাদের জন্য বড় চিন্তার। কারণ মানুষকে অকারণে মরতে হবে।

আরেক মুখপাত্র এলায়েন বার্নাল জানান, স্যানোফি তাদের এই ওষুধ প্রস্তুত প্রযুক্তি অন্যদের কাছে হস্তান্তর করার প্রস্তাব দিয়েছে। যদিও তার বাস্তবায়ন হয়নি এখনও।

এদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, সর্পদংশন মূলত একটি অবহেলিত ইস্যু; যার ওপর আরও মনোযোগ ও বিনিয়োগ বাড়ানো প্রয়োজন।

ধারণা করা হয়, প্রতিবছর বিশ্বব্যাপী ৫০ লাখ মানুষ সাপের দংশনের শিকার হয়। এর মধ্যে ১ লাখের বেশি মারা যায়। আর সাব সাহারায় এ কারণে বছরে ৩০ হাজার মানুষ মারা যায়। এছাড়া এই এলাকায় বছরে ৮ হাজার মানুষের অঙ্গচ্ছেদ করতে হয় সাপের কামড়ের কারণে।

অর্থসূচক/শাহীন

এই বিভাগের আরো সংবাদ