আবারও বেড়েছে পেঁয়াজের দাম
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » পণ্যবাজার

আবারও বেড়েছে পেঁয়াজের দাম

মাঝে কিছুটা কমলেও আবারও বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। পাশাপাশি বেড়েছে রসুনের দামও। সপ্তাহের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম কেজিতে বেড়েছে ৪ থেকে ৫ টাকা। রসুনের দাম কেজিতে বেড়েছে ১০ থেকে ২০ টাকা পর্যন্ত। তবে বেশিরভাগ শাকসবজির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কারওয়ান বাজার থেকে ছবি তুলেছেন মহুবার রহমান।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কারওয়ান বাজার থেকে ছবি তুলেছেন মহুবার রহমান।

শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারসহ আশেপাশের বেশকিছু খুচরা বাজার ঘুরে দেখা যায়, দেশি পেঁয়াজ প্রতি কেজি ৮০ থেকে ৮৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া, ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৭৫ টাকায়। রসুন বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ১০০ থেকে ১২০ টাকা দরে। কাঁচামরিচ বিক্রি হচ্ছে ১৮০ থেকে ২০০ টাকা কেজিপ্রতি।

এদিন কারওয়ান বাজারে বেগুন (লম্বা) বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ৭০ থেকে ৭৫ টাকা, করলা ৬০ থেকে ৭০ টাকা, কাকরোল ৫০ থেকে ৬০ টাকা, সিম ১২০ থেকে ১২৫ টাকা, বরবটি ৫৫ থেকে ৬০ টাকা, টমেটো ৮০ থেকে ৯০ টাকা, পটল ৫০ থেকে ৬০ টাকা।

সবজির দাম না কমার কারণ হিসেবে ব্যবসায়ীরা বরাবরের মত বৃষ্টির অজুহাতকেই দাঁড় করান। তারা জানান, গত কয়েকদিনের বৃষ্টি বাজারে প্রভাব ফেলেছে। অনেক সবজি পঁচে গেছে। এজন্যই সবজির দাম কমছে না।

অন্যান্য নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের মধ্যে মসুর ডাল কেজিপ্রতি ১২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে । ভোজ্য তেলের মধ্যে তীর (৫ লিটার) ৪৬৫ টাকা, পুষ্টি (৫ লিটার) ৪৬০ টাকা, রুপচাঁদা (৫ লিটার) ৪৮০ টাকা।

চালের মধ্যে চিনিগুড়া বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ৭০ থেকে ৭২ টাকা, মিনিকেট ৪২ থেকে ৪৫ টাকা, নাজিরশাইল ৪২ থেকে ৪৫ টাকা, আটাশ ৩৩ থেকে ৩৬ টাকা।

মাছের মধ্যে মাঝারি আকারের ইলিশের জোড়া ১ হাজার ৯০০ টাকা থেকে ২ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। রুই কেজিপ্রতি ২২০ থেকে ৩৫০ টাকা, কই মাছ ২৫০ টাকা, তেলাপিয়া ১৫০ টাকা।

হাঁসের ডিম বিক্রি হচ্ছে হালিপ্রতি ৪৫ থেকে ৪৮ টাকায়, মুরগির ডিম ৩৮ থেকে ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

মাংসের বাজার ঘুরে দেখা যায়, গরুর মাংস প্রতিকেজি ৩৭০ থেকে ৩৮০ টাকা, খাসি ৫৫০ থেকে ৫৬০ টাকা, ব্রয়লাম মুরগি ১৪০ থেকে ১৪৫ টাকা, দেশি মুরগি ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকা, পাকিস্তানি মুরগি ১৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এমএইচ/

এই বিভাগের আরো সংবাদ