যুদ্ধাপরাধীর বিচার না হলে দেশ কলঙ্কমুক্ত হবে না : প্রধানমন্ত্রী

Prime Minister Sheikh Hasina
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফাইল ছবি
Sheikh_Hasina_
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দায়রা জজ আদালত প্রাঙ্গনে বক্তব্য দানের সময় বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার না করলে বাংলাদেশের জনগণকে কলঙ্কমুক্ত করা হবে না। ঢাকা আইনজীবী সমিতির ভবন উদ্বোধন এবং চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করার পর তিনি সেখানে বক্তব্যকালে একথাবলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের সকল নাগরিক আইনের সমান অধিকার পাবে। তিনি ন্যায় বিচার নিশ্চিত করতে বিচারকদের প্রতিও আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ন্যায়বিচার পাওয়া সকল নাগরিকের মৌলিক অধিকার।

তিনি উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, “সংবিধানের ২৭ নং অনুচ্ছেদে উল্লেখ আছে, সকল নাগরিক আইনের দৃষ্টিতে সমান এবং আইনের সমান আশ্রয় লাভের অধিকারী।” মানুষ আইনের দৃষ্টিতে সমান এবং প্রত্যেকটা মানুষ আইনের আশ্রয় লাভের অধিকারী। এটা আমাদের সংবিধানের অধিকার কাজেই আমাদের সংবিধানের উপর সম্মান রেখে চলতে হবে। আর সেটাই আমাদের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য।

তিনি আরও বলেন, ঢাকা আইনজীবী সমিতির ভবন নির্মাণ করা হয়েছে একটি মাত্র সিঁড়ি রেখে। তিনি প্রশ্ন রাখেন, যে প্রকৌশলী এই একটি মাত্র সিঁড়ি দিয়ে দশ তলা ভবন নির্মান করেছে, তিনি তা কেন করেছেন, কি উদ্দেশ্য নিয়ে করেছেন? এখানে কোনো ঘাবলা ছিল কিনা? কারণ, একটা আদালত ভবন যখন তৈরি হয় তখন সেখানে অনেক মানুষ আসবে। তিনি খুবই আর্শ্চয হয়েছেন এই বিষয়টিতে।এই প্রেক্ষিতে তিনি আরও দুইটি সিঁড়ি এবং একটি লিফট এর ব্যবস্থা করতে বলেন।

আইনজীবী সমিতি থেকে আইনজীবীদের জন্য একটি আধুনিক হাসপাতালের তৈরি করে দেওয়ার কথা বলা হয়। এর প্রেক্ষিতে তিনি বঙ্গবন্ধু মেডিকেল সহ ঢাকা শহরে যে সমস্ত হাসপাতাল আছে সেগুলো উন্নত করা হয়েছে বলেন এবং সেগুলো ব্যবহারেরও পরামর্শ দেন। তবে ডিজিটাল লাইব্রেরি করার জন্য প্রধানমন্ত্রী ১ কোটি টাকা বরাদ্দ দেন।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, গত সরকারের আমলে একটি মাত্র সরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ছিল। আর বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ছিল হাতে ঘোনা কয়েকটা। আর আমরা অনেক বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের অনুমতি দিয়েছি। কিন্তু দুঃখের বিষয় হল কিছু কিছু বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল সরকারের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে।