বন্দরের ৩ জাহাজ সামিট অ্যালায়েন্স পোর্টের কাছে হস্তান্তর
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » পুঁজিবাজার

বন্দরের ৩ জাহাজ সামিট অ্যালায়েন্স পোর্টের কাছে হস্তান্তর

চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় নৌপথে কন্টেনার পরিবহনের জন্য চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে ৩টি জাহাজ লিজ নিয়েছে সামিট অ্যালায়েন্স পোর্ট। আজ বুধবার চট্টগ্রাম বন্দরের নিউমুরিং টার্মিনালে কোম্পানিটির কাছে জাহাজ তিনটি আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন নৌ পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান।Summit-Port

আলোচিত তিন জাহাজের পাশাপাশি নিজস্ব একটি জাহাজ নিয়ে কন্টেনার পরিবহনের আনুষ্ঠানিক কাজ শুরু করতে যাচ্ছে সামিট অ্যালায়েন্স পোর্ট। এ চার জাহাজের মাধ্যমে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে নারায়নগঞ্জে মেঘনা নদীর তীরে সামিট পোর্টের নৌ টার্মিনাল এবং সরকারি পানগাঁও নৌ বন্দরে কন্টেনার পরিবহন করবে কোম্পানিটি।

অনুষ্ঠানে নৌ পরিবহনমন্ত্রী বলেন, বন্দরের কেনা ৩টি জাহাজের মাধ্যমে পানগাঁও অভ্যন্তরীণ নৌ রুটে চলাচলে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। বন্দর কর্তৃপক্ষ এই ৩টি জাহাজ পরিচালনা করবে না। এছাড়া বন্দরের সে পরিমাণ লোকবলও নেই। জাহাজগুলো বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কাছে ভাড়া দিয়ে বন্দর প্রতি মাসে ৪২ লাখ টাকা আয় করতে পারবে বলে জানান তিনি।

মন্ত্রী বলেন, আমদানি-রপ্তানির সাথে দেশের প্রবৃদ্ধিও বাড়ছে। এ বাড়তি প্রবৃদ্ধি সামলানো একা চট্টগ্রাম বন্দরের পক্ষে সম্ভব নয়। তাই চট্টগ্রাম বন্দরের ওপর নির্ভরশীল হলে চলবে না। এজন্য মংলা, পায়রা বন্দরের পাশাপাশি গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণও দরকার।

শাজাহান খান আরও বলেন, বন্দরের নিজস্ব অর্থায়নে জাহাজ কেনাকে যারা সমালোচনা করেছেন তারা জানেন না, যেকোনো কাজই শুরুতে কিছুটা লোকসান গুণতে হয়। এখানেও শুরুর দিকে বন্দরকে কিছু লোকসান গুণতে হচ্ছে।

অনুষ্ঠানে সামিট পোর্টের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ  আজিজ খান বলেন,  চারটি জাহাজের মাধ্যমে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে সামিটের রিভার টার্মিনাল ও সরকারী পানগাঁও রিভার টার্মিনালে কনটেইনার পরিবহন করা হবে। এতে কম সময় ও খরচে চট্টগ্রাম বন্দরে আমদানি ও রপ্তানি পণ্যের কন্টেইনার পরিবহন সম্ভব হবে। ফলে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ওপর চাপ কমবে। অন্যদিকে জ্বালানী দূষণ কম হওয়ায় দেশের পরিবেশ রক্ষায় সহায়ক হবে।

লীজ নেয়া চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের এম.ভি. পানগাঁও এক্সপ্রেস, এম.ভি. পানগাঁও সাকসেস ও এম.ভি. পানগাঁও ভিশন নামের অভ্যন্তরীণ কন্টেইনারবাহী জাহাজগুলোর প্রতিটি গড়ে ১৫০টি কন্টেইনার পরিবহন করতে সক্ষম। অন্যদিকে সামিট এ্যালায়েন্স পোর্টের মালিকানাধীন এম.ভি এসএপিএল- ওয়ান পরিবহন করতে পারবে কমপক্ষে ২০০টি কন্টেইনার।

গত বছর সামিট অ্যালায়েন্স পোর্ট ২ লাখ কন্টেনার হ্যান্ডল করেছে বলে উল্লেখ করেন আজিজ খান।

অনুষ্ঠান শেষে সামিট অ্যালায়েন্স পোর্টের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ আজিজ খানের কাছে তিনটি জাহাজ হস্তান্তর করেন বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল নিজাম উদ্দিন আহমেদ।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন নৌ মন্ত্রণালয়ের সচিব শফিক আলম মেহেদী ও চট্টগ্রাম কাস্টমস কমিশনার হোসেন আহমেদসহ বন্দরের কর্মকর্তারা।

 

এই বিভাগের আরো সংবাদ