‘ভক্তদের কারণে আমি সাঙ্গা’
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » ক্রিকেট

‘ভক্তদের কারণে আমি সাঙ্গা’

আর কখনোই ব্যাট, প্যাড, গ্লোভস পরে মাঠে নামবেন না কুমার সাঙ্গাকারা। ক্রিকেটের সবুজ মাঠেই জীবনের সোনালি সময় কাটিয়ে দিয়েছেন তিনি। এসময়ে শ্রীলঙ্কা দলের জন্য হয়ে উঠেছিলেন অন্যতম ভরসার প্রতীক। বিশ্ব ক্রিকেট পেয়েছিল একজন অনন্য অসাধারণ খেলোয়াড়। শুধু ক্রিকেটীয় মস্তিষ্কের জন্য নয়, মাঠে তার শালীন ব্যবহারও অবিস্মরণযোগ্য। ইতিহাসের অমোঘ নিয়মে এরকম একজন অনন্য, অবিস্মরণযোগ্য, ক্ষুরধার ক্রিকেটারকেও বিদায় নিতে হল ক্রিকেট থেকে।

বিদায় বেলায় অশ্রুসিক্ত সাঙ্গাকারা

বিদায় বেলায় অশ্রুসিক্ত সাঙ্গাকারা

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে সাঙ্গাকারা বলেছিলেন, ক্রিকেটই তার জীবন, ক্রিকেটই তার প্রাণ। ক্রিকেট ছাড়া তার জীবন শূণ্য। ক্রিকেটের প্রতি এমন মায়া মমতা যার তিনি তো বিদায় বেলায় অশ্রুসিক্ত হবেন এটাই স্বাভাবিক।

কলম্বো টেস্ট দিয়ে ক্রিকেট থেকে বিদায় নিলেন কুমার সাঙ্গাকারা। বিদায় বেলায় যেন কোনোভাবেই তার অশ্রু বাঁধ  মানছিল না। তবে কি শুধু অশ্রুভরা মুখখানায় দেখিয়ে গেলেন অগণিত ভক্তদের। নাহ্, বিদায়ী অনুষ্ঠানে বিদায়ী ভাষণে ক্রিকেট, ক্রিকেটার, সংশ্লিষ্টদের জন্যও দিয়ে গেলেন নানান দিক নির্দেশনা।

বিদায়ী ভাষণে নিজের সম্পর্কে সাঙ্গাকারা বলেন, ১৫ বছর ধরে অসাধারণ একটি দলের হয়ে খেলেছি। এ দলটির ড্রেসিং রূমের অংশ হওয়া গর্বের। ড্রেসিং রূমকে খুব মিস করবো।’

ভক্ত, কোচ, ম্যানেজার ও সতীর্থদের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘ ক্রিকেটে আমার দীর্ঘ চলার পথে অনেক ভক্ত, সমর্থক, বন্ধু-বান্ধব তৈরী হয়েছে। তবে সবার আগে যারা এখানে উপস্থিত রয়েছেন শুধু আমার জন্য, তাদেরকে ধন্যবাদ। এরপর ধন্যবাদ জানাবো আমার সতীর্থদের। তাদের সাথে আমি ক্রিকেট শিখেছি। এটা এমন এক স্কুল, যেখানে সব সময়ই যেতে মন চাইবে। এখান থেকেই ভিত্তি গড়ে তোলার মূল প্রেরণা পেয়েছিলাম। এরপর আমি ধন্যবাদ জানাবো আমার কোচদের। তারপর ধন্যবাদ জানা্বো ম্যানেজারদের।

সব প্রেরণার উৎস বাবা মা, তারপর ভাইবোন উল্ল্যেখ করে অশ্রসিক্ত কণ্ঠে সাঙ্গা বলেন,  আমাকে যদি কেউ জিজ্ঞেস করেন এত শক্তি পেয়েছো কোথা থেকে আমি বলব আমার বা-মার কাছ থেকে। তারাই আমার সবচেয়ে বড় অনুপ্রেরণা। এরপর আমার ভাই-বোন।’

সবচেয়ে বড় অর্জন তুলে ধরে শ্রীলঙ্কার হয়ে টেস্টে সবচেয়ে বেশি রান সংগ্রাহক বলেন,  অর্জন তো শত শত। বিশ্বকাপও জিতেছি। কিন্তু আমার সবচেয়ে বড় অর্জন ভক্তদের ভালোবাসা। জয়- পরাজয়ে, সুখে-দুখে যাদের অকুণ্ঠ সমর্থনে আমি আজ আমি হতে পেরেছি।

বিরাট বাহিনীর প্রশংসা করতেও ভুলেন নি সাঙ্গাকারা। তিনি বলেন,  আমার বিদায় বেলায় তোমরা কঠিন, প্রতিদ্বন্দীতাপূর্ণ ক্রিকেট খেলেছো। কখনও আমরা জিতেছি, কখনও হেরেছি। তবে ক্রিকেটীয় চেতনাকে উজ্জীবিত করার জন্য তোমাদের ধন্যবাদ। ’

সর্বশেষ ম্যাথিউজ উদ্দেশে সাঙ্গাকারা বলেন, অ্যাঙ্গি (ম্যাথিউজ) তুমি খুবই ভাগ্যবান। তোমার হাতে দুর্দান্ত, অসাধারণ একটি দল রয়েছে। তোমারও ভবিষ্যৎও খুব উজ্জ্বল দেখতে পাচ্ছি। শুধু প্রয়োজন ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলা। কখনও হেরে গেলে ভয় পেয়ো না। ভেবো, জয়ের জন্য ওটা খুবই প্রয়োজন ছিল।’

বিদায় অনুষ্ঠানে কুমার সাঙ্গাকারাকে বিদায়ী সংবর্ধনা ও সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

এই বিভাগের আরো সংবাদ