পরকীয়ায় ধরা দেড় লাখের বেশি ভারতীয়!
শুক্রবার, ৫ই জুন, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » টেক

পরকীয়ায় ধরা দেড় লাখের বেশি ভারতীয়!

লাইফ ইজ শর্ট, হ্যাভ অ্যান অ্যাফেয়ার’। অনলাইন ডেটিং সাইটটির ক্রেতা টানার মূল মন্ত্র এটাই। শুধু এ পাড়ার সুন্দরীর সঙ্গে ও পাড়ার সুঠাম পুরুষটির আলাপ করিয়ে দেওয়া নয়। একাকী পুরুষের জন্য পুরুষসঙ্গী, বিবাহিত মহিলার জন্য পুরুষ বা নারী, অবিবাহিতদের জন্য সঙ্গী— যেমনটি চান, একেবারে তেমনটি বেছে নিতে সাহায্য করে অ্যাশলে ম্যাডিসন নামে এই ডেটিং সাইট। এতো দিন সব ভালই চলছিল। প্রেমের এই অন্তর্জাল ডালপালা শিকড়বাকড় ছড়িয়ে পৌঁছে গিয়েছে দুনিয়ার বিভিন্ন অংশে। হু হু করে বেড়েছে ক্রেতার সংখ্যা।

ছবি সংগৃহীত

ছবি সংগৃহীত

কিন্তু এতো প্রেমে বাদ সাধল হ্যাকার। আর তার জেরে এই সাইটে নাম লেখানো ৩ কোটি ৭০ লাখ ক্রেতার জীবন বিপন্ন। এর মধ্যে দেড় লাখের বেশি ভারতীয় নারী-পুরুষ রয়েছেন জানা গেছে।

বুধবার হিন্দুস্তান টাইমসের এক খবরে বলা হয়েছে, যোদপুর থেকে আইজাল, লেহ থেকে নাগেরচল; হাজার হাজার ভারতীয় অ্যাশলে ম্যাডিসন নামের এর ওয়েবসাইটে ধরা খেয়েছে।

ওয়েবসাইটের তথ্যানুযায়ী, নয়াদিল্লি থেকে ধরা খেয়েছেন ৩৮ হাজার ৬৫২, মুম্বাই থেকে ৩৩ হাজার ৩৬, চেন্নাই থেকে ১৬ হাজার ৪৩৪ এবং কোলকাতা থেকে ১১ হাজার ৮০৭ জন। এছাড়া হায়দ্রাবাদ থেকে ১২ হাজার ৮২৫, বেঙ্গালুরু থেকে ১১ হাজার ৫৬১, আহমেদাবাদ থেকে ৭ হাজার ৯, চণ্ডিগড় থেকে ২ হাজার ৯১৮, লক্ষ্মৌ থেকে ৩ হাজার ৮৮৫ এবং পাটনা থেকে ২ হাজার ৫২৪ জন।

প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, বিশ্বব্যাপী পরকীয়ায় ধরা এই ম্যাপ তৈরি করেছে স্প্যানিশ এজেন্সি Tecnilógica; যেখানে দেখানো হয়েছে, হ্যাককৃত ওই ওয়েবসাইট ব্যবহারকারীদের অধিকাংশই পুরুষ। তবে ভারতে নারী ব্যবহারকারীর সংখ্যাও কম নয়। ফাঁস করা তথ্যের মধ্যে ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত তথ্যও রয়েছে। যেমন: ইমেইল, ক্রেডিট কার্ডের তথ্য, সেক্সুয়াল প্রিফারেন্স ইত্যাদি।

অ্যাশলে ম্যাডিসনের মালিক হচ্ছে কানাডাভিত্তিক কোম্পানি অ্যাভিড লাইভ মিডিয়া। ‘অ্যাক্ট অব ক্রিমিনালিটি’ হিসেবে কোম্পানিটি তাদের হ্যাককৃত ওয়েবসাইটের এই বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করেছে।

প্রকাশিত ম্যাপে আরও দেখানো হয়েছে, ৩৭ মিলিয়ন ব্যবহারকারীদের মধ্যে ওয়েস্টার্ন ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রের নারী-পুরুষই বেশি। আরও রয়েছে ল্যাটিন আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ব্রিটেনের গ্রাহক। ব্রিটেনের বিপদগ্রস্ত সদস্য সংখ্যা ১২ লাখ বলে ধারণা করা হচ্ছে।

গত মাসে ওয়েবসাইটটি হ্যাকারদের কবলে পড়ে। সে সময় হ্যাকাররা হুমকি দেন, ওয়েবসাইটটি অবিলম্বে বন্ধ না করলে সাইট থেকে ক্রেতাদের নগ্ন ছবি থেকে শুরু তাদের যৌন ফ্যান্টাসি— সব রকম তথ্য তারা প্রকাশ করে দেবে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ