মালয়েশিয়ায় আরও ২৪ 'অভিবাসী'র কবর
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » প্রবাস

মালয়েশিয়ায় আরও ২৪ ‘অভিবাসী’র কবর

থাইল্যান্ড সীমান্তবর্তী এলাকায় কবরের সন্ধান পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে মালয়েশিয়া সরকার। এসব কবর থেকে ২৪ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এগুলো অভিবাসন প্রত্যাশীদের কবর বলে ধারণা করছে দেশটির কর্তৃপক্ষ।

আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থার রয়টার্সে আজ রোববারের এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

Grave

মালয়েশিয়ায় থাইল্যান্ড সীমান্তবর্তী এলাকায় সন্ধান পাওয়া একটি গণকবর থেকে কঙ্কাল উদ্ধার করা হচ্ছে। ফাইল ছবি

এতে বলা হয়েছে, থাইল্যান্ডের সীমান্তবর্তী এলাকা মালয়েশিয়ার বুকিত ওয়াং বার্মার জঙ্গলে সন্ধান পাওয়া কবর থেকে গতকাল শনিবার ২৪ জনের মরদেহ উদ্ধার করেছে দেশটির পুলিশ। গত মে মাসে এর পার্শ্ববর্তী একটি এলাকায় বেশকিছু কবরের সন্ধান পাওয়া গিয়েছিল। সেখান থেকে ১৩৯ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছিল।

প্রতিবেদনে আরও জানানো হয়েছে, বাংলাদেশ ও মায়ানমারসহ দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় দেশগুলো থেকে থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়ায় অনুপ্রবেশের অন্যতম একটি রুট এটি। দারিদ্রপীড়িত অভিবাসী প্রত্যাশীদের এই জঙ্গলে আটক রেখে মুক্তিপণ আদায় করত বলে সন্দেহ করা হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, গত মে মাসে মালয়েশিয়া সীমান্তবর্তী থাইল্যান্ডের শংখলা জেলায় একটি গণকবরের সন্ধান পাওয়া যায়। ওই গণকবরে শতাধিক মানুষের কঙ্কাল পাওয়া গেছে। এরপর মানবপাচারে জড়িত সন্দেহে ওই জেলার মেয়রকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মানবপাচারে জড়িত থাকার অভিযোগে গত জুলাই মাসে থাইল্যান্ডের একটি আদালতে সেনাবাহিনীর জেনারেল, রাজনীতিবিদসহ ৭২ জনের বিচার শুরু হয়। এদের মধ্যে বাংলাদেশি ও মায়ানমারের নাগরিকও রয়েছে।

এর কিছুদিন পরই থাইল্যান্ড সীমান্তবর্তী মালয়েশিয়ার একটি জঙ্গলে ১৩৯টি কবরের সন্ধান পাওয়া যায়। এসব কবরের বেশ কয়েকটিতে একাধিক মরদেহ ছিল।

এরপর মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও থাইল্যান্ড উপকূলে সাগরে ভাসমান অবস্থায় পাচারকারীদের কয়েকটি নৌকা থেকে কয়েক হাজার বাংলাদেশি ও মায়ানমারের রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করা হয়।

নির্যাতনের শিকার রোহিঙ্গারা গত কয়েক বছর ধরে সমুদ্রপথে ঝুঁকি নিয়ে মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও থাইল্যান্ডে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। বাংলাদেশ থেকেও কাঠের নৌকা বা মাছ ধরার ট্রলারে করে নিয়মিত মালয়েশিয়ায় যাওয়ার চেষ্টার ঘটনা ঘটছে। এসব অভিবাসন প্রত্যাশীদের পাচারকারীরা বিপজ্জনক সমুদ্রপথে ট্রলারে করে থাইল্যান্ডে নিয়ে যান। গভীর জঙ্গলে বিভিন্ন শিবিরে তাদের আটকে পাচারকারীরা তাদের পরিবারের কাছ থেকে মুক্তিপণ আদায়ের ঘটনাও ঘটেছে। এমনকি পাচারকারীদের নির্যাতনে প্রাণ হারিয়েছেন অনেকেই।

এই বিভাগের আরো সংবাদ