'বিএনপি-জামায়াত নাশকতা না করলে পাসের হার বাড়ত'
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » লিড নিউজ

‘বিএনপি-জামায়াত নাশকতা না করলে পাসের হার বাড়ত’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিএনপি-জামায়াত নাশকতাসহ আত্মঘাতী কর্মকাণ্ড না চালালে এইচএসসিতে পাসের হার আরও বেশি হতো।

আজ রোববার সকালে গণভবনে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফলের ডিজিটাল অনুলিপি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে এই কথা বলেন তিনি। নাশকতার মধ্যে পড়াশোনা ও কষ্ট করে পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করায় শিক্ষার্থীদের অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। অভিভাবকদেরও অভিনন্দন জানান তিনি।

HSC_Photo

২০১৫ সালের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় অংশ নেওয়া পরীক্ষার্থীদের একাংশ।

শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি-জামায়াত মানুষ পুড়িয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে। ওই অবস্থায় পরীক্ষা হয়েছে। পরীক্ষার দুই মাস পূর্ণ হওয়ার একদিন আগেই আজ ফল প্রকাশ করা হলো। বর্তমান সরকার শিক্ষার ওপর জোর দেয় বলেই এটি সম্ভব হয়েছে।

বিজ্ঞানে পাসের হার বাড়ায় এবং মেয়েরা ভালো ফল করার বিষয়টিকে ইতিবাচক বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দরিদ্র শিক্ষার্থীদের জন্য প্রাথমিক থেকে স্নাতক পর্যন্ত বৃত্তির ব্যবস্থা করেছে সরকার। যেসব উপজেলায় সরকারি স্কুল-কলেজ নেই, সেখানে একটি করে নতুন স্কুল-কলেজ বা পুরোনো স্কুল-কলেজের কোনো একটিকে সরকারি করা হবে।

তিনি বলেন, শিক্ষিত জনগোষ্ঠী না হলে দেশ দারিদ্র্যমুক্ত হতে পারে না। তাই নানাভাবে শিক্ষার বিস্তারে কাজ করছে সরকার।

প্রসঙ্গত, বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের ডাকা হরতাল-অবরোধের মধ্যে গত ১ এপ্রিল ২০১৫ সালের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়। ১১ জুনে শেষ হয় লিখিত পরীক্ষা। এরপর ১৩ থেকে ২২ জুন পর্যন্ত চলে ব্যবহারিক পরীক্ষা। আটটি সাধারণ বোর্ড, মাদ্রাসা এবং কারিগরি বোর্ডের অধীনে ৮ হাজার ৩০৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১০ লাখ ৬১ হাজার ৮৮৪ জন পরীক্ষার্থী এবারের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল।

ফলাফল অনুযায়ী, এবারের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ৬৯ দশমিক ৬০ শতাংশ পরীক্ষার্থী পাস করেছে। এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় অংশ নেওয়া ১০ লাখ ৬১ হাজার ৮৮৪ জনের মধ্যে পাস করেছে ৭ লাখ ৩৮ হাজার ৮৭২ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪২ হাজার ৮৯৪ জন।

২০১৪ সালের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ৭৮ দশমিক ৩৩ শতাংশ শিক্ষার্থী পাস করেছিল। জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৭০ হাজার ৬০২ জন।

দুপুর ১টায় সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এবারের ফলাফলের বিভিন্ন দিক তুলে ধরবেন শিক্ষামন্ত্রী। বেলা ২টা থেকে শিক্ষার্থীরা শিক্ষা বোর্ডগুলোর ওয়েবসাইট (www.educationboardresults.gov.bd), নিজের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছাড়াও যে কোনো মোবাইল থেকে এসএমএস করে ফল জানতে পারবেন।

ঘোষণা অনুযায়ী এবারও পরীক্ষা শেষ হওয়ার ৬০ দিনের মধ্যেই ফল প্রকাশ করা হল।

এই বিভাগের আরো সংবাদ