তথ্যপ্রযুক্তি সুবিধা সাধারণ মানুষের মাঝে পৌঁছানোর নির্দেশ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » টেক

তথ্যপ্রযুক্তি সুবিধা সাধারণ মানুষের মাঝে পৌঁছানোর নির্দেশ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, প্রযুক্তি কখনও থেমে থাকার জন্য আসে না। এজন্য বর্তমান বিশ্বব্যবস্থায় টিকে থাকতে হলে প্রত্যেককে প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে।

PM_ Digital Task Force

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বৃহস্পতিবার তার কার্যালয়ে ডিজিটাল টাস্কফোর্সের দ্বিতীয় সভায় সভাপতিত্ব করেন। ছবি পিআিইডির

পল্লী অঞ্চলসহ সাধারণ মানুষ যাতে সহজে প্রযুক্তি সুবিধা লাভ করতে পারে এ জন্য সংশ্লিষ্টদের আরও উদ্যোগী হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি আজ বৃহস্পতিবার ডিজিটাল বাংলাদেশ টাক্সফোর্সের দ্বিতীয় বৈঠকে এ নির্দেশ দেন।

শেখ হাসিনা বলেন, প্রযুক্তি কখনও থেমে থাকার জন্য আসে না। সবসময় এর রূপান্তর ঘটছে। প্রযুক্তির এই অগ্রগতির সঙ্গে আমাদের তাল মিলিয়ে চলতে হবে।

বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফকালে বলেন, প্রধানমন্ত্রী বৈশ্বিক প্রযুক্তির অগ্রগতির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে দেশকে এগিয়ে নেওয়ার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন।

তিনি বলেন, প্রযুক্তি ও তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে জনগণকে সব ধরনের সরকারি সেবার সুফল পাওয়ার ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, পাঁচ বছর আগে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার মূল লক্ষ্য নিয়ে টাস্কফোর্স গঠিত হয়। এ লক্ষ্যে সরকার অনেক দূর এগিয়েছে।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, এলজিআরডি মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেইন, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল, প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়, তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম অন্যান্যের মধ্যে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

তথ্যপ্রযুক্তি সচিব শ্যামসুন্দর শিকদার অনুষ্ঠানে বিভিন্ন খাতে তথ্যপ্রযুক্তির অগ্রগতির কার্যক্রম তুলে ধরেন।

প্রযুক্তি ও তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহারে দেশের ব্যাপক অগ্রগতির কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি দুর্নীতি অনেক কমিয়েছে এবং জনগণের জীবনযাত্রা সহজ করতে ব্যয় ও সময়ের সাশ্রয় করেছে।

বৈঠকের শুরুতে তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতি স্মরণ করে বলেন, এই মহান নেতা ১৯৭৫ সালের এ মাসে তাঁর পরিবারের অধিকাংশ সদস্যসহ নিহত হয়েছেন।বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের মানুষের মুক্তির লক্ষ্যে সারাজীবন অতিবাহিত করেছেন।

এমন এক সময় বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়, যখন তিনি যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশকে পুনর্গঠনে আত্মনিয়োগ করেছিলেন এ কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করতে ১৯৮১ সালে দেশে ফিরে আসি। এ লক্ষ্যেই আমরা কাজ করে যাচ্ছি।

সূত্র: বাসস

এই বিভাগের আরো সংবাদ