ফোরকান মল্লিকের মৃত্যুদণ্ড
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » লিড নিউজ

ফোরকান মল্লিকের মৃত্যুদণ্ড

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে পটুয়াখালীর ফোরকান মল্লিককে ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২। আজ বৃহস্পতিবার বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল-২ এই রায় ঘোষণা করেন।

Forkan Mallik

২০১৪ সালের ২৫ জুন গ্রেপ্তারের পর মানবতাবিরোধী অপরাধের আসামি পটুয়াখালীর ফোরকান মল্লিক। ফাইল ছবি

ফোরকানের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের আনা পাঁচটির মধ্যে তিনটি অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। এর মধ্যে দুটি অভিযোগে (৩ ও ৫ নম্বর) তাকে ফাঁসির আদেশ দেওয়া হয়েছে। অন্য একটিতে (৪ নম্বর) আমৃত্যু কারাদণ্ড। অপর দুটি অভিযোগ (১ ও ২ নম্বর) থেকে খালাস দেওয়া হয়েছে তাকে।

এবারই প্রথম নিজস্ব এজলাসে কোনো মামলার রায় ঘোষণা করলেন ট্রাইব্যুনাল-২। আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে ৯৯ পৃষ্ঠার সংক্ষিপ্ত রায় পড়া শুরু হয়; শেষ হয় ১০টা ৫৫ মিনিটে। রায় ঘোষণার সময় আসামি ফোরকান কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন।

ট্রাইব্যুনালের রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা। অন্যদিকে এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবে বলে জানিয়েছে আসামিপক্ষ।

গত মঙ্গলবার রায় ঘোষণার জন্য আজকের দিন ধার্য করেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২। গত ১৪ জুন দুই পক্ষের যুক্তিতর্কের শুনানি শেষে রায়ের জন্য এই মামলাটি অপেক্ষমান (সিএভি) রাখেন ট্রাইব্যুনাল।

গত বছরের ১৮ ডিসেম্বর মানবতাবিরোধী অপরাধের পাঁচটি অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে ফোরকানের বিরুদ্ধে মামলার বিচারকাজ শুরু হয়। তার বিরুদ্ধে আটজনকে হত্যা, চারজনকে ধর্ষণ, তিনজনকে ধর্মান্তরিত করা, ১৩টি পরিবারকে দেশান্তরে বাধ্য করা, ৬৪টি বাড়িঘর-দোকান লুট ও অগ্নিসংযোগের অভিযোগ আনা হয়।

চলতি বছরের ১৯ জানুয়ারি এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের সূচনা বক্তব্য ও সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হয়। রাষ্ট্রপক্ষে সাক্ষ্য দেন তদন্ত কর্মকর্তাসহ ১৪ জন। আসামিপক্ষে সাক্ষ্য দেন পাঁচজন। এরপর রাষ্ট্রপক্ষ ও আসামিপক্ষ যুক্তি উপস্থাপন করে। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন কৌঁসুলি মোখলেছুর রহমান। আসামিপক্ষে ছিলেন আবদুস সালাম খান।

ফোরকানের বাড়ি পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ উপজেলার ছইলাবুনিয়া গ্রামে। গত বছরের ২৫ জুন পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) একটি দল বরিশালের রূপাতলী বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ