ছাড়েও জমেনি জুয়েলারি মার্কেট
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » পণ্যবাজার

ছাড়েও জমেনি জুয়েলারি মার্কেট

ঈদুল ফিতরের মাত্র দু’দিন বাকি। তার ওপর ছাড় থাকলেও জমে উঠেনি জুয়েলারি মার্কেট। প্রসিদ্ধ কয়েকটি ব্র্যান্ডের দোকান ছাড়া বাকি দোকানগুলো অনেকটা ক্রেতা শূন্য। এর পেছনে ৩টি কারণ দেখিয়েছেন দোকানীরা। প্রথমত, বাজেটে নতুন করে স্বর্ণের উপর ভ্যাট আরোপ; দ্বিতীয়ত, স্বর্ণের দাম তুলনামূলক বেশি এবং তৃতীয়ত, ইমিটেশন জুয়েলারির বাজার দখল।

ছবি সংগৃহীত

ছবি সংগৃহীত

বুধবার দুপুরে রাজধানীর অন্যতম জুয়েলার্স মাকেট বায়তুল মোকারমের দোতলায় গিয়ে দেখা যায়, ১টা পেরিয়ে গেলেও অনেক দোকানী এখনো হিসাবের খাতা খোলেননি। তবে দোকান খোলার পরপরই ঠিকই খরচ শুরু হয়েছে। ঈদের আগের সপ্তাহ অন্তত ভালো বেচা-কেনার আশা করলেও তার প্রতিফলন দেখছেন না তারা।

ঈদ উপলক্ষে বায়তুল মোকাররমের অধিকাংশ দোকানে চলছে বিশেষ ছাড়। কিন্তু ছাড়েও যেন সাড়া মিলছে না।

স্বর্ণের গহনার মজুরিতে ৪০ শতাংশ ছাড় দিচ্ছে দোতলার এসএস জুয়েলার্স। তারপর বুধবার দুপুর ১টা পর্যন্ত কোনো বিক্রি করতে পারেনি প্রতিষ্ঠানটি।

ম্যানেজার শফিকুর রহমান জানান, ক্রেতা একদম নেই। দিনে গড়ে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা বিক্রি হয়। যেখানে গত বছর ছিল অন্তত ৩ লাখ টাকা। বৈরি আবহাওয়া কারণে বেচাকেনা কম বলে মনে করছেন এ দোকানী।

স্বর্ণের গহনায় মজুরিতে ৩৫ শতাংশ এবং ডায়মন্ডে ৩১ শতাংশ ছাড় দিচ্ছে ভেনাস জুয়েলার্স। ভেনাস জুয়েলার্সের আশুতোষ দাস অর্থসূচককে জানান, গত মার্চে বাজুস নির্ধারিত দামেই স্বর্ণ বিক্রি হচ্ছে। তবে ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরের বাজেটে স্বর্ণে ভ্যাট ৩ শতাংশ থেকে ৫ শতাংশ করা হয়েছে। যার প্রভাব পড়েছে বাজারে। ক্রেতারা কোনো ভাবেই বেশি ভ্যাট দিতে চাচ্ছেন না। ক্রেতাদের সঙ্গে প্রতিনিয়ত বাক বিতণ্ডা হচ্ছে। অনেকে না কিনে ফিরে যাচ্ছেন।

ক্রেতা দিদারুল আলম বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারের দরের তুলনায় আমাদের দেশে স্বর্ণের দাম বেশি। তার সঙ্গে ভ্যাট ৫% মানা যায় না।

একাধিক ব্যবসায়ী জানান, স্বর্ণের বাজারে ৭০ ভাগ ক্রেতা কমেছে। হুবহু স্বর্ণের মতো দেখতে ইমিটেশন জুয়েলার্সে দখল হয়ে পড়ছে বাজার। দাম এবং সাধ্যের সমন্বয় ঘটাতে ক্রেতারা ইমিটেশন গহনায় ঝুঁকছেন। যার দরুণ অব্যাহত লোকসানের কারণে অনেকে ব্যবসা ছেড়ে দিচ্ছেন।

বর্তমান বাজার মূল্য:

স্বর্ণ প্রতি ভরি (১১.৬৬৪ গ্রাম) ২২ ক্যারেট স্বর্ণ ৪৪ হাজার ৫২১ টাকা, ২১ ক্যারেট স্বর্ণ ৪২ হাজার ৪২১ টাকা এবং ১৮ ক্যারেটের দাম ৩৫ হাজার ৭৭৩ টাকা, সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণের ভরি ২৪ হাজার ৮৬ টাকা। রুপা প্রতি ভরি ২১ ক্যারেট (ক্যাডমিয়াম) ১ হাজার ৪৯ টাকা।

এই বিভাগের আরো সংবাদ