বিদ্যাসাগর হতে পারবে ক্যাবরেরা!
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » টুকিটাকি

বিদ্যাসাগর হতে পারবে ক্যাবরেরা!

রাস্তার পাশের গ্যাসের আলোতে পড়াশোনা করেই ঈশ্বরচন্দ্র হলেন বিদ্যাসাগর। অন্যের বাড়িতে রাখালের কাজ করে আতিউর রহমান হয়েছেন ড. আতিউর রহমান; বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর। চা বিক্রেতা থেকে বিশ্বের অন্যতম গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ভারতের প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন নরেন্দ্র মোদি।

Daniel Cabrera

ফিলিপাইনের রাস্তার পাশের ফুটপাতে বসেই পড়ালেখা করছে ৯ বছরের শিশু ড্যানিয়েল ক্যাবরেরা।

আবার স্বর্ণের চামচ মুখে নিয়ে জন্মের পরও শিক্ষার আলোর স্পর্শ পায়নি- এমন মানুষের সংখ্যাও পৃথিবীতে কম নয়। তবে সম্ভাবনার কখনও শেষ দেখতে নেই। আবারও হয়তো দেখা মিলবে কোনো এক বিদ্যাসাগরের; নতুন কেউ হতে পারে ড. আতিউর বা নরেন্দ্র মোদি।

সম্প্রতি নতুন এক বিদ্যাসাগরের খোঁজ মেলল ফিলিপাইনে। রাস্তার পাশের ফুটপাতে বসে পড়ালেখা করতে দেখা গেছে এক শিশুকে।

বিশ্বজুড়ে রেস্তোরাঁ শিল্পের জন্য বিখ্যাত ম্যাকডোনাল্ডসে খাওয়ার সময় ওই শিশুর পড়ালেখার পদ্ধতি আবিষ্কার করলেন ফিলিপাইনের এক মেডিকেল ছাত্রী। ওই রেস্তোরাঁ থেকে রাস্তার পাশে ফুটপাতে ছড়িয়ে পড়া আলোয় পড়তে দেখে ওই শিশুর বিষয়ে জানতে আগ্রহী হন জয়েস টরেফ্রান্সার। রেস্তোরাঁ থেকে বের হয়ে নিজের সঙ্গে থাকা ক্যামেরায় ধারণ করেন ওই শিশুর ছবি। কথা বলেছেন, সেই শিশুর সঙ্গে।

ড্যানিয়েল ক্যাবরেরা স্থানীয় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র। জন্মের পর থেকেই পথে বড় হচ্ছে সে। ডাক্তার কিংবা পুলিশ হওয়ার লক্ষ্য নিয়ে সংগ্রাম করছে ৯ বছরের শিশুটি। ওই রাস্তার পাশের টংয়ে (ছোট্টখাবারের দোকান) মা ও দাদার সঙ্গে থাকে ক্যাবরেরা।

ক্যাবরেরা জানায়, কোনো এক অজানা অপরাধে দণ্ডপ্রাপ্ত অবস্থায় জেলেই মারা গেছে তার বাবা। তাদের বাড়িও ভোগ করেছে আগুন। এরপর থেকেই রাস্তার পাশের টংয়ে বাস করছে তারা। সেই টংয়ের নেই কোনো দেওয়াল। উন্মুক্ত আকাশের নিচেই বসবাস বলা চলে।

হাজারো প্রতিকুলতা থামাতে পারেনি ছোট্ট ড্যানিয়েল ক্যাবরেরাকে। যে বয়সের বাচ্চারা বল নিয়ে মাঠে ব্যস্ত থাকে সে বয়সে তার ভালোবাসা পড়াশোনার প্রতি। জানার আগ্রহ থেকেই নিজ উদ্যোগেই যাচ্ছে বিদ্যালয়ে। আর ঘরে কোনো আলো না থাকায় ছুটে গেছে খোলা রাস্তায়। রেস্তোরাঁর আলোর সাহায্য নিয়ে নিজেকে আলোকিত করতে মরিয়া ক্যাবরেরা।

রাস্তার পাশে পড়াশোনা করতে থাকা ড্যানিয়েল ক্যাবরেরার একটি ছবি ফেসবুকে পোস্ট করেছেন মেডিকেল ছাত্রী জয়েস টরেফ্রান্সার। ওই ছবির সঙ্গে তিনি লিখেছেন, এই পথশিশুটি আমাকে অনুপ্রেরনা দেয়।

এরপর ফিলিপাইনের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে পড়ে ক্যাবরেরার খবর। স্থানীয় এক সংবাদমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে জয়েস জানান, এই সামান্য ছবিটির অসাধারণ ক্ষমতা রয়েছে। আমার বন্ধুরা এই ছবিটি শেয়ার করেছে, তাদেরকে ধন্যবাদ।

ড্যানিয়েল ক্যাবরেরা স্বপ্নপূরণে তার পাশে থাকতে চান জয়েস। ওই পথশিশুর পড়াশোনার খরচ চালানোর জন্য ফেসবুকে একটি তহবিলের পেজও চালু করেছেন তিনি।

এই বিভাগের আরো সংবাদ