পলওয়েলে বেড়েছে খুচরা বিক্রি
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » পণ্যবাজার

পলওয়েলে বেড়েছে খুচরা বিক্রি

ঈদ সামনে রেখে বিদেশি পোশাকের মার্কেটে ক্রেতাদের ভিড় বাড়ছে। একই সঙ্গে বিক্রিও বাড়ছে। মঙ্গলবার রাজধানীর নয়া পল্টনের পলওয়েল, গাজী ভবন ও সিটি হার্ট মার্কেট ঘুরে দেখা যায়, মার্কেটে বাচ্চা ও টিনএজারদের পোশাকই বেশি বিক্রি হচ্ছে।

পলওয়েল মার্কেটে বাড়ছে ক্রেতাদের ভিড়

পলওয়েল মার্কেটে বাড়ছে ক্রেতাদের ভিড়। ছবি মহুবার।

বিক্রেতারা বলছেন, ঈদ আসতে আর কয়েকদিন বাকি। এসব মার্কেটে পাইকারি বিক্রি বলা যায় শেষের পথে। গত শুক্রবার থেকে খুচরা ক্রেতা আসতে শুরু করেছে। গতবার রাজনৈতিক পরিস্থিতি খারাপ থাকায় বিক্রি ভালো হয়নি। তবে এবার তেমনটি না হলেও মানুষের আর্থিক সংকট প্রবল। আবার মাসের মাঝামাঝিতে রোজা শুরু হওয়ায় প্রথম দিকে বেচাকেনা হয়নি। তবে সামনের দিনগুলোতে খুচরা ক্রেতা বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে।

গাজী ভবনের এমএসজেএইচ ট্রেডিংয়ের বাচ্চাদের পোশাক বিক্রেতা মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, গত মাসে পাইকারি বিক্রি বেশ ভালো ছিল। তবে রোজার শুরু থেকে তা কমতে শুরু করেছে। সেক্ষেত্রে খুচরা বিক্রি বাড়ছে। তিনি তার দোকানে পার্টি ফ্রক, টপস, সিঙ্গেল ফ্রক, থ্রিপিস, গাউন ফ্রক, ডিভাইডার, ভারতীয় টি শার্ট, লং গাউন বিক্রি করছেন।

একই ভবনের এসআরএল ট্রেডিংয়ের মাইন বলেন, পাইকারি বাচ্চাদের পোশাক ভালো বিক্রি হয়েছে। খুচরাতে তেমনটি শুরু হয়নি। তবে বাকি দিনগুলোতে খুচরা বিক্রি বাড়বে বলে আশা করছি।

পলওয়েল মার্কেটের লামিয়া ফ্যাশনের বিক্রেতা তার দোকানে পিকে, ফরমালিন, পপস, ভারতীয় ন্যারো, ভেক্সি, আরমানি, ভিকিং, ক্লাসিক, মেটাল একেএমসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ডের বিদেশি প্যান্ট বিক্রি করছেন। এর মধ্যে পিকে ২ হাজার টাকা, ফরমালিন ২ হাজার ২০০ টাকা, ভারতীয় ন্যারো ২ হাজার ৮০০ টাকা থেকে ৩ হাজার ২০০ টাকা, মেটাল একেএম আড়াই হাজার টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে মেয়েদের বিদেশি থ্রি পিসের জন্য জনপ্রিয় সিটিহার্ট মার্কেটে বিক্রি কমেছে বলে দাবি বিক্রেতাদের। তারা বলছেন, এবার বহু আমদানিকারক পোশাক কমিয়ে এনেছেন। যেখানে ১০ হাজার পিস থ্রিপিস আনতেন সেখানে ৩ থেকে ৪ হাজার পিস থ্রিপিস এনেছেন। তবে রোজার বাকী দিনগুলোতে বিক্রি বাড়বে বলে মনে করছেন তারা।

রিফাত কালেকশনের আনোয়ার হোসেন বলেন, তার দোকানে ভারতীয় থ্রিপিস বিনয়, লাবিনা, গঙ্গা বিভা, কারজিমা বিক্রি হচ্ছে। যা ৩ থেকে ৮ হাজারের মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে। এর সঙ্গে দেশি থ্রিপিস ২ থেকে সাড়ে তিন হাজার টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে।

মা ফেব্রিক্সের বিক্রেতা বলেন, এখনও প্রত্যাশিত বিক্রি করতে পারিনি। হরতাল অবরোধের ভয় না থাকলেও বেচাকেনা নেই। হয়ত সামনের দিনগুলো একটু বাড়তে পারে।
সিটি হার্ট মার্কেটের দোকানগুলোতে জোবেদা, অ্যাভোন, মিরা, প্রাচি সেভেন, প্রাচি এইট, বিনয়, আনারকলি, কিরনমালা, সোহানা, রাজকুমারীসহ বিভি্ন্ন ব্র্যান্ডের থ্রি পিস বিক্রি হচ্ছে।

এর মধ্যে কিরণমালা সাড়ে ৪ হাজার, সোহানা ৪ হাজার, রাজকুমারী ৮ হাজার, বিনয় ৫ হাজার টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে।

অর্থসূচক/শাহীন

এই বিভাগের আরো সংবাদ