স্থগিত হতে পারে ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্সের আইপিও
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » পুঁজিবাজার

স্থগিত হতে পারে ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্সের আইপিও

National-Insurance

ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স-লোগো

আইনী জটিলতায় স্থগিত হতে পারে বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) আবেদনপত্র ও চাঁদা জমা নেওয়া। আগামি ৩০ জুন মঙ্গলবার থেকে কোম্পানিটির আইপিওর আবেদন জমা দেওয়ার কথা। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানিয়েছে, কাল-পরশু নাগাদ কোম্পানি কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) কাছে আবেদন স্থগিত করার আবেদন জানাতে পারে।

বিমা খাতের নিয়ন্ত্রক বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) অনুমোদন ছাড়াই পরিশোধিত মূলধন বাড়িয়েছে বলে অভিযোগ উঠায় আইপিও নিয়ে বেকায়দায় পড়েছে ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স কর্তৃপক্ষ। আর এ কারণেই আইপিওর আবেদন গ্রহণ স্থগিত, এমনকি আইপিওটি প্রত্যাহার করার আবেদন করতে হতে পারে।

দেশের অন্যতম শীর্ষ শিল্প গোষ্ঠি মেঘনা গ্রুপ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্সের প্রধান উদ্যোক্তা। কোম্পানিটিকে আইপিওতে নিয়ে আসার জন্য ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পালন করছে প্রাইম ফিন্যান্স ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড।

গত ১২ মে বিএসইসির ৫৪৩তম সভায় ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্সের আইপিওর অনুমোদন দেয়। এর ভিত্তিতে কোম্পানিটি গত ৪ জুন আবেদনপত্র ও চাঁদার টাকা জমা নেওয়ার সময়সূচি ঘোষণা করে। ঘোষণা অনুসারে ৩০ জুন চাঁদা জমা নেওয়া শুরু হয়ে ৯ জুলাই পর্যন্ত চলার কথা।

আইপিওর মাধ্যমে ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে  ১ কোটি ৭৭ লাখ শেয়ার ছেড়ে ১৭ কোটি ৭০ লাখ টাকা মূলধন সংগ্রহ করার কথা।

জানা গেছে, আইন অনুসারে কোনো বিমা কোম্পানি অনুমোদিত ও পরিশোধিত মূলধন পরিবর্তন করতে চাইলে তার জন্য আইডিআরএর অনুমোদন প্রয়োজন। কিন্তু ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স সে অনুমোদন নেয়নি।

যৌথমূলধনী কোম্পানি ও ফার্মস পরিদপ্তর (আরজেএসি) জানা গেছে, তাদের কাছে রক্ষিত নথি অনুসারে ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্সের অনুমোদিত মূলধন ২০ কোটি টাকা। আর পরিশোধিত মূলধন ৬ কোটি টাকা। কোম্পানিটির লাইসেন্স নেওয়ার সময়ে বিদ্যমান আইন অনুসারে পরিশোধিত মূলধন হওয়ার কথা ১৫ কোটি টাকা, যার মধ্যে ৯ কোটি টাকা সংগ্রহ করতে হবে আইপিওর মাধ্যমে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে।

ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স আইপিও অনুমোদনের জন্য জমা দেওয়া নথিপত্রে অনুমোদিত মূলধন দেখিয়েছে ১০০ কোটি টাকা। কোম্পানির সংঘস্মারক এবং সংঘবিধিতে পরিশোধিত মূলধনও ১০০ কোটি টাকা দেখানো হয়েছে। এতে উদ্যোক্তাদের অংশ ৬০ কোটি টাকা আর সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে ৪০ কোটি টাকা সংগ্রহ করা হবে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

অন্যদিকে আইপিওর প্রসপেক্টাসে পরিশোধিত মূলধন দেখানো হয়েছে ২৬ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। আইপিওর মাধ্যমে ১৭ কোটি ৭০ লাখ টাকা সংগ্রহ করা হলে পরিশোধিত মূলধন ৪৪ কোটি ২৫ লাখ টাকা হবে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

এ ক্ষেত্রে সংঘস্মারক ও প্রসপেক্টাসে উল্লেখ করা পরিশোধিত মূলধনের তথ্য অসামঞ্জস্যপূর্ণ। তাছাড়া মূলধন বাড়ানোর ক্ষেত্রে আইডিআরএ থেকে নেওয়া হয়নি আগাম অনুমোদন।

আইনের এমন লংঘনে প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ আইডিআরএ এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে বিএসইসি এবং আরজেএসসিকে চিঠি দিয়েছে। বিএসইসির কাছে জানতে চাওয়া হয়, তারা ওই অসঙ্গতি থাকা সত্ত্বেও ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্সের আইপিও অনুমোদন কেনো দিয়েছে। উত্তরে বিএসইসি বলেছে, কোম্পানিটি আরজেএসসির সত্যায়িত করা সংঘস্মারক ও সংঘবিধির কপি দেখেই আইপিওর অনুমোদন দিয়েছে। এ ক্ষেত্রে কোম্পানি বিমা আইনের কোনো ধারা লংঘন করে থাকলে তারা (আইডিআরএ) এর বিরুদ্ধে যে কোনো ব্যবস্থা নিতে পারেন। এ বিষয়ে বিএসইসির কোনো করণীয় নেই।

বিএসইসির চিঠির উত্তরে আইডিআরএ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্সকে আইপিওর চাঁদা গ্রহণ স্থগিত রাখতে নির্দেশ দেয়। নইলে কঠোর শাস্তির মুখোমুখী হতে হবে বলে জানিয়ে দেওয়া হয় কোম্পানিটিকে। এর পরিপ্রেক্ষিতে কোম্পানিটি বিএসইসির কাছে আইপিওর চাঁদা গ্রহণ স্থগিত করার অনুরোধ জানাতে যাচ্ছে।

বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির প্রধান উদ্যোক্তা মেঘনা গ্রুপের কর্ণধার মোস্তফা কামাল ও ও তার পরিবারের সদস্যরা। প্রসপেক্টাসে দেওয়া তথ্য অনুসারে, মোস্তফা কামাল কোম্পানিটির চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন। কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদে আছেন তার স্ত্রী বিউটি আক্তার, মেয়ে তাহমিনা বিনতে মোস্তফা, তানজিমা বিনতে মোস্তফা, ছেলে তানভির আহমেদ মোস্তফা এবং জামাতা তায়িফ বিন ইউসুফ।

মোস্তফা কামাল ও তার পরিবার যৌথভাবে কোম্পানিটির ৩৬ শতাংশ শেয়ারের মালিক।

এই বিভাগের আরো সংবাদ