চিকিৎসার জন্য ঢাকায় রাজ্জাক
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » লিড নিউজ

চিকিৎসার জন্য ঢাকায় রাজ্জাক

মায়ানমার সীমান্তরক্ষী পুলিশ বিজিপির হাতে আট দিন আটক থাকার পর দেশে ফেরত আনা হয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) নায়েক আবদুর রাজ্জাককে। কিন্তু নাকে আঘাত থাকার কারণে চিকিৎসার জন্য তাকে আপাতত ঢাকায় থাকতে হচ্ছে।

ছবি- বিবিসির

ছবি- বিবিসির

চিকিৎসা শেষে ২/১ দিনের মধ্যে তিনি ছুটি নিয়ে গ্রামের বাড়ি নাটোরের সিংড়া উপজেলার বলিয়াবাড়ি গ্রামের যাবেন। বাড়ি ফিরে নবজাত তৃতীয় সন্তান, অন্য দুই সন্তান ও স্ত্রীসহ পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মিলিত হওয়ায় অপেক্ষা করছেন রাজ্জাক নিজেও।

এর আগে শুক্রবার সকাল ৬টায় চট্টগ্রামের কক্সবাজার থেকে তিনি ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন।

বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ বলেন, নায়েক রাজ্জাকের নাকে সামান্য আঘাত রয়েছে। ঢাকায় চিকিৎসার পর ২/১ দিনের মধ্যে ছুটিতে বাড়ি যাবেন তিনি। ছুটি শেষ হলে আবার কাজে যোগ দেবে।

গত ১৭ জুন ভোরে বিজিবির ছয় সদস্যের একটি দল নায়েক আবদুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে নাফ নদীতে টহল দেওয়ার সময় মায়ানমারের রইগ্যাদং ক্যাম্পের বিজিপির সদস্যরা একটি ট্রলারে করে বাংলাদেশের জলসীমায় প্রবেশ করে। বিজিপির ট্রলারটিকে বাংলাদেশের জলসীমা ছেড়ে যেতে বলা হলে তারা নায়েক রাজ্জাককে জোর করে ট্রলারে তুলে নেয়। বিজিবির অন্য সদস্যরা এতে বাধা দিলে দুইপক্ষের মধ্যে গুলিবিনিময় হয়। এতে সিপাহী বিপ্লব কুমার গুলিবিদ্ধ হন। পরে বিজিপির ট্রলার রাজ্জাককে নিয়ে মায়ানমারের দিকে চলে যায়।

এরপর বিজিবির পক্ষ থেকে কয়েক দফা পতাকা বৈঠকের আহ্বান জানানো হলেও মায়ানমারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সাড়া না পাওয়ায় বিষয়টি ঝুলে থাকে। বিজিপির ফেসবুক পেইজে নায়েক রাজ্জাকের দুটো ছবি প্রকাশ করা হয়; যাতে রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে হাতকড়া পরা দেখা যায়।

অবশেষে রাজ্জাককে ধরে নিয়ে যাওয়ার আট দিন পর বৃহস্পতিবার মায়ানমারের মংডুতে প্রায় পাঁচ ঘণ্টা পতাকা বৈঠকের পর রাজ্জাককে বিজিবি কর্মকর্তাদের কাছে হস্তান্তর করে মায়ানমার বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি)।

পরে বৃহস্পতিবারই সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে তাকে নিয়ে টেকনাফ স্থলবন্দরের পুলিশ ইমিগ্রেশন চেকপোস্টে পৌঁছায় টেকনাফ ৪২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবু জার আল জাহিদদের নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলের সদস্যরা। 

এই বিভাগের আরো সংবাদ