পশ্চিমবাংলায় বাংলাদেশ বন্দনা
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » ক্রিকেট
হিন্দি বলয়ে তুলোধুনা ভারত

পশ্চিমবাংলায় বাংলাদেশ বন্দনা

Anandabazaar-24Ghonta-firstpost

কলকাতার জনপ্রিয় চার পত্রিকার লোগো

ভারতের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক জয়ে উচ্ছ্বসিত পশ্চিমবাংলার বেশিরভাগ মানুষ। বিশেষ করে তাদের গণমাধ্যম। পশ্চিমবাংলার প্রধান সবগুলো বাংলা কাগজ ও অনলাইনে বাংলাদেশের অকুণ্ঠ প্রশংসা করা হয়েছে। এদের কারো কারো শিরোনাম পড়ে বিভ্রান্ত হতে পারেন পাঠক-সংবাদপত্রটি ভারতের না বাংলাদেশের।

বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে বাংলাদেশের প্রতি করা অবিচারে হয়ত বাঙালি হিসেবে তাদেরও অহমে আঘাত লেগেছিল। তাছাড়া কারসাজি আর প্রতারণার জয়ে যে মর্যাদা ক্ষুন্ণ হয়ে তা ভারতের অন্যরা না বুঝলেও পশ্চিমবাংলার মানুষ ঠিকই বুঝে। নিজেদের মর্যাদা ক্ষুন্ন হওয়াতেও এক ধরনের ক্ষোভ ছিল তাদের। সেই বাংলাদেশের কাছে বৃহস্পতিবার ভারত বিশাল ব্যাবধানে হারলে ওই ক্ষোভ, বাংলাদেশের প্রতি পুরনো সমবেদনা আর বাঙালির অহম একসাথে জেগে উঠে।

উল্লেখ, চলতি বছরের ১৯ মার্চ অস্ট্রেলিয়ায় বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালের ম্যাচে বিতর্কিত এবং সন্দেহজনক আম্পায়ারিংয়ের সুযোগ নিয়ে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে জয়ী হয়েছিল ভারত। এতে ফুঁসে উঠেছিল পুরো বাংলা। বিশ্ব ক্রিকেট অঙ্গনেও তোলপাড় তুলে এ বিষয়। খোদ ইন্ডিয়ায় অনেকে আইসিসি ও ভারতের সমালোচনা মুখর হয়ে উঠে।

Anandabazaar-24Ghonta-Headline

বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচের রিপোর্টে পশ্চিমবাংলার কয়েকটি পত্রিকার শিরোনাম

বিশ্বকাপের পর বৃহস্পতিবারের বাংলাদেশ ও ভারত প্রথমবারের মতো মুখোমুখী হয়। আর তাতে আহত বাঘের মতো প্রবল আক্রোশে ঝাঁপিয়ে পড়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। তাদের থাবায় ছিন্নভিন্ন হয়ে পড়ে উদ্ধত ভারত। পরাজিত হয় ৭৯ রানের বিশাল ব্যবধানে।

বৃহস্পতিবারের ম্যাচ নিয়ে পশ্চিমবাংলার শীর্ষ পত্রিকা আনন্দবাজার শিরোনাম করেছে, ধোনির ভুল আর অজানা আতঙ্কে মেলবোর্নের বদলা’

আনন্দবাজার তার নিউজের শুরুতে প্রবল আবেগ জাগিয়ে তুলেছে। লিখেছে, ….পাগলের মতো কাঁদতে-কাঁদতে গ্যালারি ধরে ছুটে চলেছে যে যুবক, তাঁর হাতটা কত জন খেয়াল করলেন কে জানে। চোখ দিয়ে জল ঝরছে অঝোরে, হাতের মুঠো শক্ত করে ধরে একটা সাদা কাগজ। কাগজে কিছু একটা লেখা।

বুকে সজোরে ধাক্কা দেওয়ার মতো একটা লাইন লেখা ‘বাঙালি, বিশ্বকাপের প্রতিশোধ নাও!’…..

দুই প্রতিবেশীর এক যুদ্ধকে কী ভাবে ক্রিকেটের বাইশ গজ থেকে তুলে এনে জীবনের বাইশ গজে আছড়ে ফেলা যায়, দেখে নিল বৃহস্পতিবারের মীরপুর মাঠ। কোনও সন্দেহ নেই চার মাস ধরে পুড়ে চলা এক অপমানের বৃত্ত এ দিন মীরপুর মাঠে শেষ করে ফেললেন এগারো বাঙালি। কাপ কোয়ার্টার ফাইনালে হারের প্রতিশোধ নিয়ে। মহেন্দ্র সিংহ ধোনির ‘মহাভারত’-কে ধুলোয় মিশিয়ে। কিন্তু ম্যাচের সেটা একমাত্র আঙ্গিক ভাবলে চরমতম অন্যায় হবে। বাংলাদেশ দেখিয়ে দিল, বিশ্বকাপ কোয়ার্টার ফাইনাল ফ্লুক ছিল না। দেখিয়ে দিল, পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ওয়ান ডে সিরিজ জয়কে আশ্চর্যের দৃষ্টিভঙ্গি থেকে দেখার কোনও দরকার ছিল না। এশীয় ক্রিকেটে তো বটেই, গোটা ওয়ান ডে পৃথিবীতেই তারা এখন দুর্নিবার শক্তি। যারা ইংল্যান্ডকে হারাতে পারে। পাকিস্তানকে পারে। ভারতকেও পারে।

পারে এক অজানা আতঙ্ককে লেলিয়ে দিয়ে।

রাত বারোটার মীরপুর প্রেসবক্সেও লিখতে বসে আবহে মহানাটকীয়তা দেখে হাত কাঁপবে। প্রতিশোধের ম্যাচে পাঁচ উইকেট নিয়ে ভারতকে কাঁপিয়ে গেলেন কে? না, উনিশ বছরের এক তরুণ বাঁ হাতি পেসার। যাঁকে এক বছর আগেও বাংলাদেশ ক্রিকেট চিনত না। অথচ ওই ছেলেই আজ রায়নাকে নিলেন। রোহিত শর্মাকে নিলেন। পাটা উইকেটে তাঁর স্লোয়ার আর কাটারে বশ্যতা স্বীকার করে নিল দুঁদে ভারতীয় ব্যাটিং। এ বার বাংলাদেশ সাংবাদিকদের দেখুন। আবেগে থরথরিয়ে প্রেসবক্সেই কাঁপছেন। দর্শকদের সঙ্গে চেঁচাচ্ছেন। ওঁদের অনেকে ছিলেন মার্চের মেলবোর্নে। দেখেছেন, মাশরফিদের কান্না। প্রেসবক্স থেকে বেরিয়ে বাইরের গ্যালারিতে দৃষ্টি নিয়ে যান। উদোম গায়ে, ঘামতে ঘামতে ওখানে এখনও উৎসব করে চলেছে উন্মত্ত দর্শক। জামা ওড়াচ্ছে, তাসা বাজাচ্ছে, চেয়ার চাপড়াচ্ছে। সত্যি বলতে, আবেগের এই ছবিকে সাদা পাতার কালো দাগে তুলে ধরা কঠিন নয়। অসম্ভব।

এই সময় শিরোনাম করেছে, বাঙালি বাঘের থাবায় ক্ষতবিক্ষত ভারত। ‘বাঙালি বাঘ’ শব্দের মধ্যেই লুকিয়ে আছে জাত্যাভিমান, বাংলাদেশের মানুষের প্রতি সহমর্মিতা।

এই সময়ের রিপোর্টের একটি জায়গায় লিখা হয়েছে, কে চিনতেন বনগাঁ সীমান্তের সাতক্ষিরার মুস্তাফিজুর রহমানকে? মহেন্দ্র সিং ধোনি বারবার চমক দিতে ভালোবাসেন। এ দিন তাঁকেই চমকে দিলেন বছর কুড়ির বাঁহাতি পেসার মোস্তাফিজুর রহমান।

জি নিউজের বাংলা অনলাইন ২৪ ঘণ্টা শিরোনাম করেছে, ১১ বাঙালির দাপটে মীরপুরে ধরাশায়ী টিম ইন্ডিয়া

পত্রিকাটি লিখেছে,  মীরপুরে এগারো বাঙালির দাপটে বাংলাদেশ সফরে প্রথম একদিনের ম্যাচে শোচনীয় পরাজয় হল টিম ইন্ডিয়ার। ৭৯ রানে হেরে তিনটি একদিনের ম্যাচের সফর শুরু করল ধোনি বাহিনী।

আনন্দবাজার পত্রিকা গোষ্ঠির অনলাইন এবিপি আনন্দ শিরোনাম করেছে, বিতর্কে ধোনির গুঁতো, নৈশভোজ না করে বেরিয়ে গেল টিম

এবিপির রিপোর্ট, এক দিকে মহেন্দ্র সিংহ ধোনির বাংলাদেশ পেসারকে ধাক্কা মেরে ফেলে দেওয়া। অন্য দিকে, টিম ইন্ডিয়ার নৈশভোজ না সেরে স্টেডিয়াম ছেড়ে বেরনো। ওয়ান ডে সিরিজের প্রথম ভারত বনাম বাংলাদেশকে ঘিরে এই দু’টো চাঞ্চল্যকর ঘটনাই ঘটে থাকল।

এই বিভাগের আরো সংবাদ