ভারত ভুটান নেপালের সঙ্গে যান চলাচল চুক্তি
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » লিড নিউজ

ভারত ভুটান নেপালের সঙ্গে যান চলাচল চুক্তি

বাংলাদেশ, ভারত, ভুটান ও নেপালের মধ্যে সড়ক পথে যান চলাচল চুক্তি হয়েছে। এর ফলে এখন থেকে এসব দেশের যাত্রীবাহী, ব্যক্তিগত ও পণ্যবাহী যান একে অপরের উপর দিয়ে যাতায়াত করতে পারবে।

বাংলাদেশ, ভারত, ভুটান ও নেপালের  মধ্যে  সড়ক পথে  যান চলাচল চুক্তির ফলে এসব দেশের যাত্রীবাহী, ব্যক্তিগত ও পণ্যবাহী যান একে অপরের উপর দিয়ে যাতায়াত করতে পারবে। ছবি সংগৃহীত

বাংলাদেশ, ভারত, ভুটান ও নেপালের মধ্যে সড়ক পথে যান চলাচল চুক্তির ফলে এসব দেশের যাত্রীবাহী, ব্যক্তিগত ও পণ্যবাহী যান একে অপরের উপর দিয়ে যাতায়াত করতে পারবে। ছবি সংগৃহীত

সোমবার ভুটানের রাজধানী থিম্পুতে এই চুক্তিতে সাক্ষর করেন ৪ দেশের সড়ক পরিবহন মন্ত্রী।এতে বাংলাদেশের পক্ষে ছিলেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ জনসংযোগ কর্মকর্তা আবু নাছের বলেন, “বেলা ১২টার দিকে সড়ক পরিবহনের একটি রূপরেখায় স্বাক্ষর করেন ৪ দেশের মন্ত্রীরা।”

এর আগে রোববার থিম্পুতে ৪ দেশের মধ্যে ‘মোটর যান পরিবহন চুক্তি’ চূড়ান্ত করার লক্ষ্যে পরিবহন সচিব পর্যায়ের বৈঠক হয়।

৮ জুন মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত ও নেপালের মধ্যে যান চলাচলে ‘বিবিআইএন মোটর যান চুক্তি (এমভিএ)’ সাক্ষরের প্রস্তাব অনুমোদন দেন ।

ওইদিন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোশাররাফ হোসেন ভুঁইঞা বলেন, চুক্তির প্রস্তাব অনুযায়ী বাংলাদেশ, ভারত, ভুটান, নেপালের সম্মতিতে ভবিষ্যতে এই সড়কপথে অন্য দেশগুলোও যুক্ত হতে পারবে।

চুক্তির খসড়া অনুযায়ী, যান চলাচলের জন্য ৪ দেশের মধ্যে রুট পারমিট নিতে হবে এবং এক দেশ থেকে অন্য দেশে যাওয়ার সময় মাঝপথে কোনো যাত্রী তোলা বা মালামাল বোঝাই করা যাবে না। যে দেশের উপর দিয়ে যান যাবে, সেই দেশের কর্তৃপক্ষ ইচ্ছা করলে তা অনুসন্ধান ও পরীক্ষা-নীরিক্ষা করতে পারবে। কোনো দেশের নিষিদ্ধ পণ্য আরেক দেশের উপর দিয়ে পরিবহন করা যাবে না।

চুক্তির আওতায়, যান চলাচলের জন্য সংশ্লিষ্ট দেশ নিজেদের নির্ধারিত হারে ‘ট্রানজিট ফি’ আদায় করবে।৩ বছর পরপর এই চুক্তি নবায়ন হবে।তবে কোনো দেশ চাইলে ৬ মাসের নোটিশ দিয়ে চুক্তি থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করে নিতে পাররে। ১৫ জুন চুক্তি ও পরে প্রটোকল সাক্ষরের পর শিগগিরই যানবাহন চলাচল শুরু হবে।

সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, “ইউরোপের আদলে এই ৪ দেশের মধ্যে ২০১৬ সালে যান চলাচল শুরু করা যাবে। যাতায়াতে ভিসা বা ইমিগ্রেশনে আন্তর্জাতিক নিয়ম মেনে করা হবে।”

এই বিভাগের আরো সংবাদ