বাজেটে কর অব্যাহতি রহিত, হতাশ পোল্ট্রি ব্যবসায়ীরা
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » পণ্যবাজার

বাজেটে কর অব্যাহতি রহিত, হতাশ পোল্ট্রি ব্যবসায়ীরা

চলতি (২০১৫-১৬) অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে পোল্ট্রি শিল্পে কর অব্যাহতি সুবিধা রহিত করায় হতাশা প্রকাশ করেছেন পোল্ট্রি শিল্পের সাথে সংশ্লিষ্ট খামারি ও ব্যবসায়ীরা।

ছবি সংগৃহীত

ছবি সংগৃহীত

বুধবার রাজধানীর পোল্ট্রি শিল্প সমন্বয় কমিটির (বিপিআইসিসি) নিজস্ব কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক বিশেষ সভায় ব্যবসায়ীরা তাদের এই হতাশার কথা তুলে ধরেন।

সভায় বিপিআইসিসির আহ্বায়ক এবং ফিড ইন্ডাষ্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সভাপতি মসিউর রহমান বলেন, গত অর্থবছরের বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী পোল্ট্রি খাতের জন্য কর অব্যাহতি সুবিধা ২০১৯ সাল পর্যন্ত বাড়ানোর ঘোষণা দেন। অথচ চলতি অর্থবছরের বাজেটে তা রহিত করে বিভিন্ন খাতে কর আরোপ করা হয়েছে। ফলে পোল্ট্রি খামারি ও শিল্প উদ্যোক্তাদের মাঝে হতাশা নেমে এসেছে।

তিনি বলেন, পোল্ট্রি খাত থেকে কর অব্যাহতি সুবিধা উঠিয়ে নিলে বাজারে ডিম, মুরগি এবং একদিন বয়সী বাচ্চার দাম বেড়ে যাবে। এতে সাধারণ ক্রেতা থেকে শুরু করে খামারি ও শিল্প-উদ্যোক্তা সকলেই ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। পাশাপাশি পোল্ট্রি শিল্পের অগ্রগতিকে বাধাগ্রস্ত করবে এবং স্পর্শকাতর এ শিল্পে বিনিয়োগ নিরুৎসাহিত করবে।

মসিউর রহমান বলেন, মাত্র তিন দশক আগেও পোল্ট্রি একটি শতভাগ আমদানি নির্ভর খাত ছিল। এ শিল্প খাতটিকে কর অব্যাহতি সুবিধা প্রদান করায় ২০০৭, ২০০৯ এবং ২০১১ সালে বার্ড-ফ্লুর ভয়াবহ সংক্রমণে এ শিল্পের ভয়াবহ ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা ও ৫০ শতাংশ খামার বন্ধ হওয়ার পরও এ শিল্পের অগ্রগতি থেমে থাকেনি। এখন যদি নতুনভাবে কর আরোপ হলে এ শিল্পে আবারও বিপর্যয় নেমে আসবে।

এ সময় তিনি বলেন, আমরা সামগ্রিক বিবেচনায় পোল্ট্রি সেক্টরকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত কর অব্যাহতি প্রাপ্ত সেক্টর হিসেবে পুণঃঘোষণার দাবী জানাচ্ছি।

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, ব্রিডার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের মহাসচিব সাইদুর রহমান বাবু, এনিম্যাল হেলথ কোম্পানীজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক ডা. এম নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

এই বিভাগের আরো সংবাদ