চলতি মাসেই আসছে ভেঞ্চার ক্যাপিটাল আইন
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » পুঁজিবাজার

চলতি মাসেই আসছে ভেঞ্চার ক্যাপিটাল আইন

Software-Women

অলটারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড বিধি কার্যকর হলে আইটি প্রতিষ্ঠানগুলোতে বিপুল বিদেশী বিনিয়োগ আসবে

পুঁজিবাজারে আসছে বিকল্প বিনিয়োগ বা অলটারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড। প্রচলিত মিউচুয়াল ফান্ডের বাইরে কাজ করবে এ ধরনের ফান্ড। তহবিলের অর্থ বিনিয়োগ করবে সম্ভাবনাময় বিভিন্ন কোম্পানির শেয়ারে। ইতোমধ্যে এ ফান্ডের জন্য আইনের খসড়া তৈরি করেছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। বিএসইসি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানিয়েছে, আইনটি চূড়ান্ত করার আগে জনসাধারণের কাছ থেকে মতামত নেবে বিএসইসি। এ উদ্দেশ্যে শিগগিরই ‘দ্য বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (অল্টারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট) রুলস’ নামের আইনের খসড়াটি একটি ইংরেজি ও বাংলা দৈনিক পত্রিকা এবং বিএসইসির ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে। মঙ্গলবার বিএসইসির ৫৪৬তম কমিশন সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

জানা গেছে, স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত নয়, এমন কোম্পানিতে তহবিলের সিংহভাগ অর্থ বিনিয়োগের বিধান থাকছে। মূলত ব্যক্তিখাতের সম্ভাবনাময় কোম্পানিতে বিনিয়োগের উদ্দেশ্যে এসব তহবিল গঠনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। চলতি জুন মাসের মধ্যে এটি চূড়ান্ত হতে পারে। সাধারণভাবে এ ধরনের ফান্ড ভেঞ্চার ক্যাপিটাল হিসেবে পরিচিত।

খসড়া অনুযায়ী, দ্য বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (অল্টারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট) রুলস, ২০১৫-এর আওতায় নিবন্ধন নেওয়া তহবিল ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে এ তহবিল পরিচালনা করতে পারবে।

প্রস্তাব অনুসারে, প্রতিটি অল্টারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট ফান্ডের ন্যূনতম আকার হবে ১০ কোটি টাকা। এতে প্রাথমিকভাবে উদ্যোক্তার অংশ কোনোভাবেই তহবিলের মোট আকারের ১০ শতাংশের কম হতে পারবে না। এছাড়া তহবিলের ন্যূনতম ৭৫ শতাংশ অর্থ পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত নয়, এমন সিকিউরিটিজে বিনিয়োগ করতে হবে।

বাকি ২৫ শতাংশ অর্থ পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বিভিন্ন কোম্পানির শেয়ার, মিউচুয়াল ফান্ডের ইউনিট ও বন্ডে বিনিয়োগ করা যাবে।

বিএসইসি সূত্র জানিয়েছে, আইনটি তৈরির পর অল্টারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড নির্দিষ্ট সময়ের জন্য কোনো কোম্পানিতে ইক্যুইটি ও কোয়াসি ইক্যুইটি (বিনিয়োগের বিপরীতে সংশ্লিষ্ট কোম্পানির শেয়ার ধারণ) বিনিয়োগ করতে পারবে।

প্রতিটি অল্টারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট ফান্ডের ন্যূনতম আকার হবে ১০ কোটি টাকা। তহবিলের ন্যূনতম ৭৫ শতাংশ অর্থ পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত নয়, এমন সিকিউরিটিজে বিনিয়োগ করতে হবে 

খসড়া অনুসারে, শুধু বিএসইসিতে নিবন্ধিত তহবিল ব্যবস্থাপকরা ফান্ড গঠনের উদ্দেশ্যে মূলধন সংগ্রহ করতে পারবে। স্থানীয়, বিদেশী ও অনিবাসী বাংলাদেশীদের (এনআরবি) কাছে ইউনিট বিক্রির মাধ্যমে তহবিল সংগ্রহ করা যাবে। এক্ষেত্রে ট্রাস্ট অ্যাক্ট, ১৮৮২ অনুযায়ী বিএসইসিতে নিবন্ধিত কোনো ট্রাস্টি ইউনিটধারীদের স্বার্থ রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

খসড়া অনুযায়ী, ট্রাস্টি যোগ্য বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে সংগৃহীত চাঁদার অর্থ গ্রহণ করবে এবং তহবিলের উদ্দেশ্যে পরিচালিত কোনো তফসিলি ব্যাংক হিসাবে তা জমা করবে।

এছাড়া অল্টারনেটিভ ইনভেস্টমেন্ট ফান্ডের মেয়াদ হবে পাঁচ থেকে ১৫ বছর। প্রসপেক্টাসে ফান্ডের মেয়াদ উল্লেখ থাকতে হবে। ফান্ডের ইউনিটধারীদের বিনিয়োগ তিন বছরের জন্য লক ইন থাকবে। এ সময়ে ইউনিটধারীরা লভ্যাংশ পেলেও বিনিয়োগ প্রত্যাহার করতে পারবেন না।

উল্লেখ, প্রচলিত মিউচুয়াল ফান্ডের ক্ষেত্রে তহবিলের ৭৫ শতাংশ তালিকাভুক্ত সিকিউরিটিজে বিনিয়োগ করতে হয়। তাই শিল্প খাতের বিকাশে সরাসরি কোনো ভূমিকা রাখতে পারে না এসব ফান্ড।

আইনটি প্রণীত হলে দেশের আইটি খাতে বিপুল বিদেশী বিনিয়োগ আসতে পারে

দেশে বেসরকারি খাতে সম্ভাবনাময় অনেক প্রতিষ্ঠান থাকলেও মূলধনের অভাবে সে সম্ভাবনার পুরোটা কাজে লাগাতে পারছে না। বিশেষ করে তথ্য প্রযুক্তি খাতের (আইটি) প্রতিষ্ঠানগুলোকে মূলধনের অভাবে হিমসিম খেতে হয়। এসব প্রতিষ্ঠানে জমি, ভবন ও মেশিনারিজের মত দৃশ্যমান সম্পদ তেমন থাকে না বলে ব্যাংক ঋণ পাওয়া দুরুহ হয়ে উঠে।

অথচ দেশের আইটি খাত আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের আস্থা অর্জন করেছে। অনেক প্রতিষ্ঠান যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, অস্ট্রেলিয়া ও কানাডার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কাজ করে দিচ্ছে, আয় করছে মূল্যবান বৈদেশিক মুদ্রা। এ কারণে বিদেশী অনেক ফান্ড ও ব্যবসায়ী বাংলাদেশের আইটি প্রতিষ্ঠানগুলোতে বিনিয়োগে আগ্রহী। কিন্তু এ সংক্রান্ত আইনী কাঠামো না থাকায় কাঙ্খিত বিনিয়োগ আসছিল না। এমন অবস্থায় বিএসইসি ভেঞ্চার ক্যাপিটালের সুযোগ রেখে বিকল্প বিনিয়োগ তহবিলের আইন করছে।

সম্প্রতি ঢাকায় অনুষ্ঠিত এক আইটি সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় মূলত ভেঞ্চার ক্যাপিটাল প্রসঙ্গে কথা বলেন। আইটি প্রতিষ্ঠানগুলোকে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়ার সুযোগ দেওয়ার কথাও বলেন তিনি।

অর্থসূচক/জিইউ

এই বিভাগের আরো সংবাদ