অধিকারের পরিচালক ও সম্পাদককে জিজ্ঞাসাবাদ করলো দুদক

odhikar + ACC

odhikar + ACCবৈদেশিক অনুদানের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে মানবাধিকার সংগঠন অধিকারের পরিচালক নাসির উদ্দিন এলান ও   সম্পাদক আদিলুর রহমানকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দুদকের উপ-পরিচালক হারুনুর রশীদ তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

বুধবার বিকেল ৩.০০টা থেকে ৪.৩০টা পর্যন্ত দুদকের প্রধান কার্যালয়ে তাদের এ জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় ।

দুদক সূত্র জানায়, বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান ও মানবাধিকার সংগঠন অধিকার তাদের গবেষণার কাজে বিদেশের  বিভিন্ন এনজিও থেকে কোটি কোটি টাকা অনুদান নিয়ে এসেছ। বিদেশ থেকে আনা এসব অনুদানের অর্থ সংস্থাটি সঠিকভাবে ব্যবহার করেনি। তাছাড়া তারা বিদেশি বিভিন্ন দাতা সংগঠন থেকে নানান রকম প্রজেক্ট দেখিয়ে মোটা অংকের অর্থ নিয়ে এসেছে। সংস্থার সম্পাদক আদিলুর রহমানসহ এর কর্মকর্তারা যোগসাজস করে মানি লন্ডারিংয়ের মাধ্যমে বিদেশি বিভিন্ন সংস্থা থেকে পাওয়া এসব অর্থ আত্মসাৎ করে।

সূত্র আরও জানায়, গত জুলা্ই মাসে অধিকারের বিরুদ্ধে দুদকের কাছে একটি অভিযোগ আসে। অভিযোগে বলা হয়, মানি লন্ডারিংয়ের মাধ্যমে বিদেশ থেকে আসা কোটি কোটি টাকা ভুয়া খরচ দেখিয়ে আত্মসাৎ করেছে সংস্থাটির সম্পাদক আদিলুর। অভিযোগটি আমলে নিযে গত আগস্ট মাসে সংস্থাটির আয়ের উৎস এবং তাদের অর্থ আত্মসাতের বিষয়টি অনুসন্ধান শুরু করে কমিশন।

অনুসন্ধান কারী কর্মকর্তা ও দুদকের উপ-পরিচালক হারুনুর রশিদ জানান, অধিকার বিভিন্ন প্রজেক্ট দেখিয়ে বিদেশি বিভিন্ন দাতা সংস্থাগুলোর কাছ থেকে টাকা আদায় করতো। আর এসব অর্থ নিজেরা আত্মসাৎ করতো বলে আমাদের কাছে অভিযোগ আসে। অভিযোগের ভিত্তিতে অধিকতর অনুসন্ধানের স্বার্থে অধিকারের সম্পাদক ও পরিচালককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। তাদের দেওয়া বিভিন্ন রেকর্ডপত্র পর্যালোচনা করা হচ্ছে। এবং এনজিও ব্যুরো থেকে আসা সমস্ত কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে।

জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বের হওয়ার সময় অধিকার সম্পাদক বলেন, দুদক আমাদের বিরুদ্ধে কিছু অভিযোগ এনেছে। আর আজ আমরা এ অভিযোগ গুলোর জবাব দিতে এসেছি। নিজেরা সঠিক পথে রয়েছেন বলে দাবি করেন তিনি।

প্রসঙ্গত,গত ৫ মে রাজধানীর মতিঝিল থেকে হেফাজতে ইসলামের কর্মীদের সরাতে পরিচালিত অভিযানে ৬১ জন নিহত হয় বলে এক প্রতিবেদন প্রকাশ করে মানবাধিকার সংগঠন ‘অধিকার’। যদিও সরকারের দাবি, মতিঝিলে রাতের ওই অভিযানে কেউ নিহত হয় নি। এই ঘটনার প্রেক্ষিতে গত ১০ অগাস্ট সংগঠনটির সম্পাদক আদিলুর রহমান শুভ্রকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। আর তাকে গ্রেপ্তারের পরই তার বিরুদ্ধে বিদেশি অনুদানের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ তুলে অনুসন্ধান শুরু করে দুদক।

এইউ নয়ন