রাজশাহীতে অবরোধের তৃতীয় দিনের সংঘর্ষে আহত ৩৫

Rajshahi Attock

Rajshahi Tortureরাজশাহীতে অবরোধের তৃতীয় দিনে ১৮ দলের সাথে পুলিশের দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনায় পুলিশ সদস্যসহ অন্তত ৩৫ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছে। সংঘর্ষের এক পর্যায়ে পুলিশের ব্যবহৃত হিউম্যান হলারে অগ্নিসংযোগ করে অবরোধকারীরা।

 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, অবরোধের সমর্থনে সোমবার সকাল ৮টার দিকে নগরীর হড়গ্রাম এলাকা থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে ১৮ দল। মিছিলটি কোর্ট স্টেশন এলাকায় পৌঁছে সড়ক অবরোধ করে। খবর পেয়ে পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করতে অর্ধ শতাধিক রাউন্ড রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল ছোড়ে। জবাবে মিছিলকারীরাও পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ ও বেশ কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এ সময় উভয় পক্ষের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

 

এ সময় অবরোধকারীরা পুলিশের ব্যবহৃত হিউম্যান হলারে অগ্নিসংযোগ করলে পুলিশ সদস্যরা দ্রুত আগুন নিভিয়ে ফেলে। পরে অতিরিক্ত পুলিশ এসে আরও শতাধিক রাউন্ড রাবার বুলেট, শর্ট গানের গুলি, টিয়ারশেল, সাউন্ড গ্রেনেড ও ফাঁকা গুলি ছুড়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। প্রায় আধাঘণ্টাব্যাপী চলা এ সংঘর্ষে পুলিশের রবাব বুলেটে ও টিয়ার শেলের আঘাতে অন্তত ৩০ জন নেতাকর্মী আহত হয়।

 

এ সময় শর্টগানে গুলি লোড করতে গিয়ে শামসুজ্জামান নামের এক পুলিশ কনস্টেবল নিজ হাতে গুলিবিদ্ধ হন। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ১০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

 

এর আগে ভোর সাড়ে ৬টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন অক্ট্রয় মোড় এলাকায় শিবির কর্মীরা সড়ক অবরোধ করে মিছিল করার চেষ্টা করে। এ সময় পুলিশ এসে কয়েক রাউন্ড রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে তাদের ছত্রভঙ্গ করতে চাইলে সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষে ৫ শিবির নেতাকর্মী আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

 

এদিকে, চলমান অবরোধের সমর্থনে নগরীর কাদিরগঞ্জ এলাকা থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের বিএনপি নেতারা। মিছিলটি নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে রাজশাহী কলেজের সামনে গিয়ে শেষ হয়। এছাড়া কাদিরগঞ্জ গ্রেটার রোড মোড়ে সড়কে আগুন জ্বালিয়ে পিকেটিং করেছে ছাত্রদল।

 

মহানগর পুলিশ কমিশনার ব্যারিস্টার মাহবুবুর রহমান জানান, অবরোধে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ও মোড়সমূহে অতিরিক্তি পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। নিয়মিত টহল দিচ্ছে পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি।

এআর