ভোটে নয়, অস্ত্রের জোরে ক্ষমতায় আছে সরকার : খালেদা জিয়া

BNP-Shomabesh

BNP-Shomabeshজনগণের ভোটে নয়, অস্ত্রের জোরে সরকার ক্ষমতায় আছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ  জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। সোমবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপি নেতৃত্বাধীন আঠারো দলীয় জোটের গণসমাবেশে তিনি এ মন্তব্য করেন।

প্রহসনের নির্বাচনকে প্রত্যাখ্যান করায় জনগণকে ধন্যবাদ জানিয়ে খালেদা জিয়া বলেন, নির্দলীয় সরকার ছাড়া সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারে না।

গায়ের জোরে ভোট নেওয়া যায় না, এই সরকার অবৈধ সরকার, ৫ তারিখের প্রহসনের নির্বাচন এ দেশের মানুষ মানেনি।

তিনি বলেন, বিভিন্ন পত্রিকায় অবৈধ নির্বাচনের খবর এসেছে। এ সময় কয়েকটি জাতীয় দৈনিক পত্রিকা হাতে নিয়ে জনগণের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, প্রথম আলোয় লেখা হয়েছে জালভোটের নির্বাচন, কলঙ্কিত সরকার। ইনকিলাব পত্রিকার শিরোনাম ‘নির্বাচন জনগণের নীরব প্রত্যাখ্যান’ এসব লেখা থেকেই বোঝা যায় এই সরকার ভোটে নয় অস্ত্রের জোরে ক্ষমতায় এসেছে। আর অস্ত্রের জোরে ক্ষমতায় টিকে থাকা যায় না।

তিনি আরও বলেন, ১৫৩ আসনে কোনো ভোট হয়নি। তাহলে এসব জায়গায় এমপি হবেন কিভাবে? ১৪৭ আসনে ভোট করেছে তারা, ভোট পেয়েছে ৫ শতাংশেরও কম। তাই এই নির্লজ্জ সরকারকে অবিলম্বে নিদর্লীয় সরকারের অধিনে নির্বাচন দিয়ে তাদের যোগ্যতা যাচাইয়ের আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, সরকার জনবিচ্ছিন্ন হয়ে দমন-পীড়ন চালাচ্ছে। এসবের সাথে আ. লীগের লোক জড়িত। সরকার যৌথবাহিনীর নামে সারাদেশে হত্যা, নির্যাতন, গুম চালাচ্ছে নিরীহ লোকের ওপর ।

তিনি বলেন, যেহেতু এ সরকার জনগণের সরকার নয়। তাই এরা জনগণের ওপর নির্যাতন চালাতে পারে। গত ৫ বছরে তারা সম্পদ লুট করেছে, শেয়ারবাজার লুট করেছে, হলমার্ক, বিসমিল্লাহ গ্রুপের মাধ্যমে টাকা লুট করেছে। এসব লুটপাটকারী এখন ধরা-ছোঁয়ার বাইরে। দুদুকও তাদের ব্যাপারে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি।

২৯ ডিসেম্বর মার্চ ফর ডেমোক্রেসিতে কী করলো সরকার? আমাদেরকে সেদিন তারা বের হতে দেয়নি। পরদিনই সারাদেশে হরতাল অবরোধ করেছে এই তারা। এ হলো সরকার। অথচ আমাদের সময় আমরা কাউকে বাধা দেয়নি। জনগণে এই সরকারের ওপর অনাস্থা দিয়েছে। সংসদ রয়েছে কিন্তু সদস্য নেই। কারণ তারা কেউ জনগণের নির্বাচিত নয়।

খালেদা জিয়া সরকারের কাছে সব রাজবন্দির মুক্তি দাবি করে বলেন, দেশে রাজনৈতিক বিবেচনায় যেসব নেতাকর্মীকে জেলে বন্দি করে রাখা হয়েছে তাদের সবাইকে মুক্তি দিয়ে দেশে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিয়ে গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠা করুন।

তিনি বলেন, আগামি ২৯ জানুয়ারি আমাদের কালোপতাকা মিছিল কর্মসূচি রয়েছে। আশা করি এই কর্মসূচিতে সরকার কোনো বাধা দিবে না।

খালেদা জিয়া বলেন, এই প্রহসনের নির্বাচনের পর নির্দলীয় সরকারের দাবি এখন শুধু বিএনপি বা আঠারো দলীয় জোটের নয়, এটি এখন গণদাবিতে পরিণত হয়েছে।

তিনি বলেন, দেশে সংখ্যালঘুদের ওপর যেসব  হামলা হয়েছে এগুলোর সাথে সরকারদলীয় লোকজনের হাত রয়েছে। এর প্রমাণ পাওয়া গেছে বারবার। কিন্তু এই সরকার তাদের একজনকেও ধরেনি।

খালেদা বলেন, সরকার কথায় কথায় জঙ্গিবাদের ধোঁয়া তুলছে, এই জঙ্গিবাদের উত্থান হয়েছে তাদের আমলেই। তাদের সময়ে উদীচীতে বোমা হামলার মধ্য দিয়ে এ দেশে জঙ্গিবাদ সৃষ্টি হয়েছে। আমরা কখানো জঙ্গিবাদকে প্রশ্রয় দেইনি।

তিনি বলেন, দেশে এখন বিরোধী দল বলতে কিছু নেই।  চলছে একদলীয় স্বৈরশাসন। তাই অতি দ্রুত নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিয়ে দেশকে গণতান্ত্রিক ধারায় ফিরিয়ে আনতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া