শহীদ জিয়াউর রহমান ছিলেন গণতন্ত্রের প্রতিষ্ঠাতা: কর্নেল অলি

Ali Ahmed

Ali Ahmedবিএনপির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি শহীদ জিয়াউর রহমান বাংলাদেশের গণতন্ত্রের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন বলে মন্তব্য করেছেন এলডিপির চেয়ারম্যান কর্নেল ড. অলি আহমেদ বীরবিক্রম।

রোববার বেলা ১টা ৩০ মিনিটে জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ‘জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ’ (জ্যাব) এর জিয়াউর রহমানের ৭৮তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ‘স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব ও শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

প্রয়াত রাষ্ট্রপতির আত্মার মাগফেরাত কামনা করে অলি বলেন, যারা শহীদ জিয়ার আদর্শে অনুপ্রাণিত তারা আজকের এই দিনে তার রুহের মাগফেরাত কামনা করে দু’রাকাত নফল নামাজ পড়বেন।

জিয়াউর রহমানকে সফল রাষ্ট্রনায়ক, ক্ষণজন্মা পুরুষ উল্লেখ করে তিনি বলেন, জিয়াউর রহমান স্বাধীনতা ঘোষণা করার সময় আমি তার পাশেই ছিলাম। সেই ঘোষণা ছিল দিশেহারা দেশের মানুষকে শান্তি দেওয়ার ঘোষণা।

রক্ষীবাহিনীর সদস্যের হাতে ইনু সাহেবরা কিভাবে নিগৃহীত হয়েছিল এখন তারা তা ভুলে গেছেন এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, যারা আ.লীগের কাছে নিগৃহীত হয়েছিলেন তারা এখনও কিভাবে ঐ দলে থেকে বেগম জিয়ার সমালোচনা করেন তা আমাকে বিস্মিত করে।

এ সময় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন- বিডিনিউজ২৪ডটকম এর সিনিয়র সম্পাদক আমানুল্লাহ কবির। তিনি বলেন, তিনজনকে বাদ দিয়ে দেশের ইতিহাস লেখা সম্ভব নয়। ইতিহাস থেকে মাওলানা ভাসানী ও জিয়াউর রহমানের নাম মুছে ফেলে মাত্র একটি নামকে ইতিহাসে রাখার গভীর ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। আর সেই নামটি শেখ মুজিব ।

এমন একটা সময় আসবে যখন দেশের মানুষ শহীদ জিয়াকে আর চিনবে না এ আশংকা প্রকাশ করে আমানুল্লাহ আরও বলেন, তখন তাকে চিনবে শুধু খালেদার স্বামী বা তারেকের বাবা হিসেবে। কেননা ইতিহাস থেকে তার নাম মুছে ফেলার সব ধরনের চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

জ্যাবে’র মহাসচিব এলাহী নেওয়াজ খানের সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য রাখেন- এলডিপি’র মহানগর সভাপতি খালিদ সাইফুল্লাহ, সাংবাদিক আমিরুল ইসলাম কাগজী, সৈয়দ মেজবা, দেশরক্ষা আন্দোলনের আহ্বায়ক এম আনোয়ার হোসেন, ডা. সালেহ উদ্দিন, ড. ফরহাদ আলী ডোনার, ইঞ্জিনিয়ার মোস্তাফিজুর রহমান মানিক প্রমুখ।

এমআর