ছুটির দিনে বাণিজ্য মেলায় জমে ওঠার আমেজ

Trade-Fair

বাণিজ্য মেলাছুটির দিনে জমে উঠেছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা। সব বয়সী দর্শনার্থীর পদচারণায় মুখরিত মেলা প্রাঙ্গণ। বিক্রেতাদের মুখেও সন্তুষ্টির ছাপ দেখা গেল আজ।

ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা ঘুরে দেখা যায়, ছুটির দিন হওয়াতে মেলা প্রাঙ্গণে ছিল দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভীড়। মেলার প্রথম তিন দিনে তেমন ভীড় চোখে না পড়লেও আজ সকাল থেকে বেলা যত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভীড়ও বাড়তে থাকে। ভীড় বাড়ার সঙ্গে বিক্রিও বেড়েছে প্যাভিলিয়ন ও স্টলগুলোতে।

গত তিন দিনে প্যাভিলিয়ন ও স্টল তৈরি কিংবা সাজানোর কাজে ব্যস্ত ছিলেন বিক্রেতারা।তবে আজ এই দৃশ্য পাল্টে গেছে। বেচা বিক্রি নিয়ে আজ ব্যস্ত প্রায় সব বিক্রেতারা।

ছুটির দিনে রাজিব, আবির, সোহাগসহ ঘুরতে এসেছেন ওরা ১১ জন। পড়ে মোহাম্মাদপুর গ্রাফিক্স আর্টস ইনিস্টিটিউডে। মেলা প্রাঙ্গণে প্রবেশ করতেই দেখা ওদের সঙ্গে। জিজ্ঞেস করতেই বলল রাস্তায় যানজট কম থাকায় মেলাতে এসে ভালোই লাগছে। হরতাল অবরোধ থাকলে মেলায় এতো মানুষ আসতো না বলে মনে করেন এই টিনেজ তরুণেরা।

একটু ভীড় দেখে প্রবেশ করলাম মেঘলা ফেব্রিক্সের স্টলে।কথা হয় স্টল মালিক নাজমুল হকের সঙ্গে। তিনি দেশি-বিদেশি বাহারি ডিজাইনের থ্রিপিস বিক্রিতে একটু ব্যস্ত আছেন তিনি। তিনি অর্থসূচককে জানান, ছুটির দিন হওয়াতে দর্শনার্থীর সংখ্যাও বেড়েছে। তাতে বিক্রিও মোটামুটি ভাল চলছে বলে জানান তিনি। হরতাল অবরোধ না থাকলে এই ভীড় চলমান থাকবে বলে আশা করেন তিনি।

আরএফএল প্যাভিলিয়নের বাজার ব্যবস্থাপক জিয়াদ জানান, প্রথম দুই দিনে গোছানোর কাজ একটু বেশি ছিল। বেচা বিক্রিও তেমন হয়নি। তবে আজ দর্শনার্থীদের ভীড় বাড়ছে। আশা করছি আগামিতে বেচা বিক্রি আরও ভাল হবে। তবে হরতাল অবরোধ থাকলে তা ব্যাহত হবে বলে মনে তিনি।

মেলায় দশৃনার্থীদের উপচে পড়া ভীড়ে সন্তোশ প্রকাশ করলো খোদ আয়োজকরা। মেলার দায়িত্বে থাকা সদস্য সচিব বিকর্ণ কুমার ঘোষ অর্থসূচককে জানান, নতুন সরকার ক্ষমতা গ্রহণের সঙ্গে সঙ্গে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে। পরিস্থিতি উন্নতি হওয়ার কারণে দর্শনার্থীদের সংখ্যা বেড়েছে বলে মনে করেন তিনি।

পরিবারের দুই মেয়েকে নিয়ে মেলাতে এসেছে বাড্ডার শিরিন আক্তার। তিনি জানান, ছুটির দিনে ওদের নিয়ে বেড়াতে এসেছি। হরতাল অবরোধ থাকলে আতংকে ঘর থেকে বের হওয়া যায় না। বাচ্চাদের নিয়ে মেলাতে ঘুরতে ভালোই লাগছে বলে জানান তিনি।

এদিকে আজও মেলায় প্যাভিলিয়ন ও স্টল তৈরির কাজে মিস্ত্রিদের ব্যস্ত থাকতে দেখা গেছে। নিউ ফ্যাম কর্ণার, ইন্ডিয়ান কার্পেট অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিস, সনেক্স, আরডি কারর্গো অ্যান্ড কালার্স, পারভেজ ট্রাডিশন, রাজা ইন্টাপ্রাইজ, দুবাই কালেক্টশন, মডেল, রাজ হ্যান্ডিক্রাপ্টসসহ আরও কিছু স্টল। তবে খবর নিয়ে জানা যায়, হরতাল অবরোধসহ নানা কারণে তাদের একটু দেরি হচ্ছে বলে দাবি করেন তারা। তবে আগামি কালকের মধ্যে এই কাজ শেষ হবে বলে জানান অনেকে।