হরতাল-অবরোধ মুক্ত প্রথম কার্যদিবসে ব্যস্ত ঢাকা

Road-Jam-2বছরটা আরও ১২ দিন আগে শুরু হলেও আজ ছিল হরতাল অবরোধমুক্ত প্রথম কার্যদিবস। পবিত্র ঈদ-এ মিলাদুন্নবী, রাজধানীর টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে বিশ্ব ইজতেমার আসর ও শিক্ষার্থীদের পড়াশোনায় অপরিমেয় ক্ষতিসহ নানাকিছু বিবেচনা করে টানা অবরোধ কর্মসূচির ঘোষণা স্থগিত করেছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দল। চলমান রাজনৈতিক সংকটাপূর্ণ অস্থিতীশীল দেশে জোটটির কর্মসূচি স্থগিতের স্বিদ্ধান্তে জনমনে ফিরে এসেছে স্বস্তি। মানুষের মাঝে ফিরে এসেছে স্বাভাবিক কর্মচাঞ্চল্যতা।

হরতাল অবরোধমুক্ত কার্যদিবসে শঙ্কা কাটিয়ে রাজধানীর মানুষ ছুটছে কর্মস্থলে কিংবা নিজ নিজ গন্তব্যে। রাজধানীতে অফিস পাড়াগুলোয় কর্মব্যস্ত মানুষের ভীড় লেগে গেছে। শিক্ষার্থীরা কাধে ব্যাগ নিয়ে পাঠ অধ্যয়নে শিক্ষাঙ্গনে, শিক্ষাঙ্গনকে করছে মুখোরিত।

রাস্তায় ফিরে এসেছে সেই পুরোনো ঢাকা। হাজারো গাড়ি-ঘোরা, তীব্র যানজট, হর্নের শব্দে কান ঝালাপালা। সাধারণ মানুষও যেন এই পরিবেশ পেয়ে ফিরে পেয়েছেন স্বাভাবিকতা।

রাজধানীর ডেফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আসাদুজ্জামান জানান, দীর্ঘদিন থেকে স্বাভাবিক কার্যদিবস না থাকায় অফিস, আদালতসহ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে স্থবিরতা নেমে এসেছিল। আজ অনেকদিন পর পুরোনো চিত্র দেখে আমারও ভালো লাগছে।

তবে রাস্তাঘাটে প্রচুর যানজট থাকার কারণে ক্যাম্পাসে আসতে দেরী হয়েছে বলে জানালেন তিনি।

প্রায় দু’মাস পর নিজেদের গাড়ীতে চড়ে গুলশান মানারাতের ছাত্রী রুনী সকালবেলা তার মা রুমানাকে নিয়ে স্কুলে এসেছে।  অর্থসূচককে জানাল তার অনুভূতি। রুনী বলল, আজ গাড়ী নিয়ে স্কুলে এসেছি। বাবা বলেছে আজকে ভয় নেই। রাস্তায় ককটের ফাটবেনা।

প্রকৌশলী বাবা রুবায়েত হাসানের কথা বিশ্বাস করে এভাবেই স্বস্তির কথা জানালো ৭ বছরের শিশু রুনী হাসান।

প্রসঙ্গত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দীর্ঘ দিন থেকে চলে আসা রাজনৈতিক অস্থিরতায় সারা দেশের কর্মকাণ্ডে এক ধরনের স্থবিরতা নেমে আসে।

এক পরিসংখ্যানে দেখা যায় গত ৫ নভেম্বর নির্বচনের তফসিল ঘোষণা হওয়ার পর থেকে ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত হরতাল-অবরোধমুক্ত  কোনো কর্মদিবস ছিল না।  এরপর ৫ জানুয়ারি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নির্বাচিত হয়ে সরকার গঠন করেছে। নির্বাচনের পরের দিন থেকে ১৮ দলীয় জোট নির্বাচনের ফলাফল বর্জন ও আরেকটি গ্রহনযোগ্য নির্বাচনের দাবিতে আবারও অনির্দিষ্ট কালে টানা অবরোধের ডাক দেয়।

তবে নানা কারণে শেষ পর্যন্ত জোটটি তাদের অবরোধ কর্মসূচি প্রত্যাহার করে।