চবিতে সংঘর্ষে নিহত ১ , আহত ৩০

cu

cuচট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) পুলিশ-ছাত্রলীগ-শিবির ত্রিমুখী সংঘর্ষে মামুন হোসেন নামের এক ছাত্র নিহত এবং ৩০ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে ৬ জনের অবস্থা
নিহত মামুন বিশ্ববিদ্যালয়ের মেরিন সাইন্স বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র। সে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রশিবির এর শাহ আমানত হলের সেক্রেটারী ছিল। অন্যদের মধ্যে ছাত্রশিবির এর জীববিজ্ঞান অনুষদের সভাপতি রকি, ছাত্রশিবির এর আইন অনুষদের সেক্রেটারী মোহাম্মদ শরীফ এবং ছাত্রশিবিরের সাথী পরিসংখ্যান বিভগের ছাত্র মুজাহিদের অবস্থা আশংকাজনক।  এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক সৌমেন পালিত,ছাত্রলীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক মনছুর আলম ও বাংলা বিভগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র আরমান আহত হন।

সিলেটে শনিবার রাতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক জালাল উদ্দিনের হাত-পায়ের রগ কেটে দেয় ছাত্রশিবির । এ ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ রোববার বেলা দুপুর ২ টার দিকে মিছিল বের করার এক পযার্য়ে শিবিরের সাথে সংঘর্ষ বাধে। এতে এক পর্যায়ে শিবির কর্মীরা গুলি ছুরলে ছাত্রলীগও তাদের উপর আক্রমণ করে। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে ২০ রাউন্ড গুলি বিনিময় হয়। পুলিশ তাদের নিয়ন্ত্রনে আনতে আরও ৩০ রাউন্ড গুলি ছুরে,পরে বিকাল ৫ টায় শাহ্ আমানত হলে তল্লাশি চালিয়ে শিবিরের ১৮ নেতা-কর্মীকে আটক করে।
সংঘর্ষে আহতদেরকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরী বিভগে নেয়া হয়েছে। মেডিক্যালে কর্তব্যরত কর্মচারীরা জানান আহতদের মধ্যে অনেকের অবস্থা আশংকাজনক।
বিশ্ববিদ্যালয় পুলিশ ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান,শনিবার সিলেটে জালাল উদ্দিনের রগ কাটার খবরে চবি ছাত্রলীগ বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। সংঘর্ষে ইতোমধ্যে ১ জন মারা গেছে বলে জানা গেছে।
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যায় শাখা ছাত্র শিবিরের সাধারণ সম্পাদক মুস্তাফিজের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি ১ জন শিবিরকর্মী নিহতের ঘটনা নিশ্চিত করেন। এছাড়া ২ জন শিবির কর্মী নিখোঁজ রয়েছে বলে দাবি করেন।