যেকোনো মূল্যে 'গণতন্ত্র হত্যা দিবস' পালনের আহ্বান ফখরুলের
রবিবার, ৭ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » লিড নিউজ

যেকোনো মূল্যে ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ পালনের আহ্বান ফখরুলের

Fakhrul

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ফাইল ছবি

বিএনপির নেতাকর্মীদের পাশাপাশি দেশপ্রেমিক-গণতান্ত্রিক সব দল ও শক্তিকে যেকোনো মূল্যে আগামীকাল ৫ জানুয়ারিকে ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ পালনের আহ্বান জানিয়েছেন দলটির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজ রোববার বিকেলে বিএনপির সহ-দপ্তর সম্পাদক আব্দুল লতিফ জনি স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এ আহ্বান জানান।

বিবৃতিতে মির্জা ফখরুল বলেন, দেশের গণতন্ত্রকামী মানুষ ৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র হত্যা দিবস উপলক্ষে বিএনপি ও ২০ দলের ডাকা শান্তিকপূর্ণ ও নিয়মতান্ত্রিক কর্মসূচিতে অংশ নিতে উন্মুখ হয়ে আছে। এ পরিস্থিতিতে ক্ষমতাসীনরা ভীত হয়ে সারা দেশে গ্রেপ্তার ও হয়রানির তাণ্ডব শুরু করেছে।

শনিবার রাত থেকে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে তার গুলশানের কার্যালয়ে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে- দাবি করে তিনি বলেন, ক্ষমতাসীনরা দলের নেতাকর্মীদের তার কাছে ঘেঁষতে দিচ্ছে না। এমনকী সংবাদকর্মীদেরও তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে দেওয়া হচ্ছে না।

মির্জা ফখরুল বলেন, আতঙ্কিত স্বৈরশাসনের এই দানবীয় তাণ্ডবের বিরুদ্ধে নিন্দা ও ঘৃণা প্রকাশের কোনো ভাষা নেই। জনগণের ন্যায়সঙ্গত আন্দোলনের মাধ্যমেই কেবল এসব অপকের্মর জবাব দেওয়া সম্ভব।

এজন্য দেশবাসীকে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বিএনপি নেতা ফখরুল বলেন, দলীয় নেতাকর্মী ছাড়াও দেশপ্রেমিক-গণতান্ত্রিক সব দল ও শক্তিকে যেকোনো মূল্যে গণতন্ত্র হত্যা দিবস পালনের মাধ্যমে ক্ষমতাসীনদের দম্ভ ও স্বেচ্ছাচারিতার উপযুক্ত জবাব দেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

এদিকে আগামীকাল ৫ জানুয়ারি আওয়ামী লীগ ও বিএনপির পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি ঘিরে উত্তেজনার মধ্যে ঢাকা মহানগরে সব ধরনের মিছিল, সভা, সমাবেশ ও জমায়েত নিষিদ্ধ করেছে মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

রোববার ঢাকা মহানগর পুলিশের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আজ বিকেল ৫টা থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এই নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে।

প্রসঙ্গত, নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি পূরণ না হওয়ায় ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়নি নবম জাতীয় সংসদের প্রধান বিরোধীদল বিএনপি ও তাদের জোটসঙ্গীরা।

এই দিনটিকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ‘গণতন্ত্রের বিজয় দিবস’ হিসেবে উদযাপন করতে চাইছে। এর অংশ হিসেবে ঢাকার ১৬টি স্থানে সমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছিল আওয়ামী লীগ। তবে সভা-সমাবেশে নিষেধাজ্ঞার পর কর্মসূচি পালন না করার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতারা।

আর বিএনপি দিনটিকে ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ হিসেবে পালন করার লক্ষ্যে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনেসহ ৩টি স্থানে সমাবেশ করার অনুমতি চেয়েছিল।

এই বিভাগের আরো সংবাদ