প্রতিষ্ঠার ৭ বছর পরেও নেই ইন্টারনেট সংযোগ

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে এসেও দেশের একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে নেই ইন্টারনেট সংযোগ! বিস্ময়কর হলেও এ অবস্থা কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি)। প্রতিষ্ঠার সাত বছর পরেও ইন্টারনেট সংযোগ না থাকায় বিশ্ববিদ্যায়ের শিক্ষার্থী ও শিক্ষকেরা বঞ্চিত হচ্ছেন যোগাযোগ প্রযুক্তির সুবিধা থেকে।

২০০৭ সালের ২৮ মে দেশের ২৫ তম পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যায়ের যাত্রা শুরু হয়। গত বছরের শেষের দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে টেলিফোন সংযোগ দিলেও ইন্টারনেটের সুবিধা না থাকায় প্রশাসনিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। একই সাথে ইন্টারনেটের সুবিধা না থাকায় দাপ্তরিক কাজও চলছে ধীর গতিতে।

সরেজমিন ঘুরে জানা যায়, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪টি বিভাগে ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগ নেই। এমনকি কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল (সিএসই) বিভাগের শিক্ষার্থীদেরও ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগ নেই। একই অবস্থা শিক্ষকদের। তার ওপর নেই বিভাগের নিজস্ব কোন কম্পিউটার ল্যাব। নেই শিক্ষকদের জন্য পর্যাপ্ত কম্পিউটারও।

সিএসই বিভাগের শিক্ষার্থী ফিরোজ রহমান বলেন, যে ল্যাবে আমাদের পরীক্ষা নেওয়া হয়,সেখানকার কম্পিউটারের অবস্থাও খারাপ । পরীক্ষা শুরুর আগে উইন্ডোজ ইনস্টল করে পরীক্ষা দেওয়ারও নজির আছে। ল্যাব অপ্রতুল হওয়ায় আমাদের ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।

সিএসই বিভাগের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোঃ আবদুল মালেক জানান, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের এই বিভাগের পাঁচটি ব্যাচে ১৭৭ জন শিক্ষার্থী রয়েছে। শিক্ষার্থীদের অন্য বিভাগের ল্যাবে কাজ করতে হয়। ইন্টারনেটের সুবিধা না থাকায় শিক্ষা কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। বিভাগের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য মাত্র একটি কম্পিউটার রয়েছে। এটিতেই মডেম যুক্ত করে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন শিক্ষকেরা।

যোগাযোগপ্রযুক্তির সুবিধা না থাকার ব্যাপারে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড.আলী আশরাফ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে তারহীন ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক স্থাপনের কাজ চলছে।  খুব দ্রুত বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসকে ইন্টারনেটের আওতায় তানা হবে।

অবিলম্বে পুরো বিশ্ববিদ্যালয়কে ইন্টারনেটের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। একই সাথে ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক চালুরও দাবি জানান তারা।

রাসেল