সংখ্যালঘুদের রক্তের ওপর দাঁড়ানো সরকার স্থায়ী হবে না

Peshajibi Photo2-1

Peshajibi Photo2-1সংখ্যালঘুদের রক্তের ওপর দাঁড়িয়ে সরকার গঠন করলে তা বেশিদিন স্থায়ী হবে না। সংখ্যালঘুদের উপর হামলার সুষ্ট তদন্তের জন্য আন্তর্জাতিক কমিটি গঠন করে এসব হামলার সাথে জড়িতদের অবিলম্বে আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবি পরিষদের নেতারা।

আজ শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ‘সংখ্যালঘুদের উপর হামলার প্রতিবাদে’ সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের আয়োজনে এক মানববন্ধনে পেশাজীবী পরিষদের নেতারা এসব কথা বলেন।

সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের আহ্বায়ক ও ফেডারেল সাংবাদিক ই্‌উনিয়নের একাংশের সভাপতি রুহল আমিন গাজী এ সময় সরকারের প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, এদেশে সংখ্যালঘুরা আমাদের ভাই। তাদের ওপর হামলা চালিয়ে রাজনৈতিক স্বার্থসিদ্ধি হাসিল করতে চায় ক্ষমতাসীন দল। আগুন নিয়ে খেলবেন না।  হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান সকল ধর্মের মানুষ আমাদের ভাই। আমরা সবাই বাঙ্গালি।

ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের মহাসচিব শওকত মাহমুদ বলেন, একটি স্বার্থানেষি মহল সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা চালিয়ে সাম্প্রদায়িকতার অভিযোগ তুলে সংবিধান লংঘন করা হয়েছে।

এ সময় শওকত মাহমুদ সরকারের প্রতি প্রশ্ন রেখে বলেন, যেখানে যৌথ বাহিনীর ভয়ে বিরোধী দলের নেতাকর্মীরা ঘরে থাকতে পারছে না। সেখানে তারা কিভাবে সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা চলাতে পারে?

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কবি আব্দুল হাই সিকদার বলেন, যশোর ও পাবনায় সংখ্যালঘুদের ওপর যেসব হামলা হয়েছে এসব হামলার তদন্ত হয় নি। কেননা সেইসব হামলার সঙ্গে সরকারি দলের কর্মীরা জড়িত ছিল।

তিনি বলেন, এসব হামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে সারাদেশে বিভিন্ন পেশার মানুষদের নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করতে হবে। এসব ঘটনায় সরকার তদন্ত কমিটি করবে না।

মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাখেন চলচ্চিত্র পরিচালক চাষী নজরুল ইসলাম, সাংবাদিক নেতা জাহাঙ্গীর আলম প্রধান, কৃষিবিদ একরামুল হক, আ.ফ.ম ইউছুফ হায়দার প্রমুখ।

এদিকে শনিবার সকালে একই দাবিতে মানববন্দন করেছে শিশু ও কিশোর সংগঠন খেলাঘর ঢাকা মহানগরী শাখা। এ মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত, খেলাঘরের কেন্দ্রীয় সাধারণ-সম্পাদক আব্দুল মতিন ভূইয়া, সম্পাদক শফিকুর রহমান, সিজার মল্লিক, এ্যাড. আবুল ফারাহ পলাশ প্রমুখ।

তাছাড়া, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্ম আয়োজিত পৃথক আরেকটি মানববন্ধনে সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ইব্রাহিমের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি আবেদুর রহমান, দপ্তর সম্পাদক হাজী মিজানুর রহমান, মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্মের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান নান্নু প্রমুখ।

এমআর/কেএফ