পাকিস্তানের জাতীয় বীরের জন্য সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মানের সুপারিশ

স্কুল বাঁচাতে নিহত পাকিস্তানের কিশোর
আত্মঘাতী বোমা হামলার হাত থেকে পাকিস্তানের উত্তর-পচিমাঞ্চলীয় শিয়া অধ্যুষিত হাঙ্গু অঞ্চলের একটি স্কুল বাঁচাতে নিহত আইতায

aitzazপাকিস্তানের উত্তর-পচিমাঞ্চলের পুলিশ দেশটির প্রধানমন্ত্রী নেওয়াজ শারীফের কাছে এক কিশোরের আত্মত্যাগের জন্য শীর্ষ বেসামরিক সম্মান সিতারা-ই-শুজ্জাত প্রদানের সুপারিশ জানিয়েছে। আত্মঘাতী বোমা হামলার হাত থেকে দেশটির উত্তর-পচিমাঞ্চলীয় শিয়া অধ্যুষিত হাঙ্গু অঞ্চলের একটি স্কুল বাঁচাতে এই কিশোর গত সোমবার নিহত হয়। আইজাজের আত্মত্যাগে এ সময় স্কুলের দুই হাজার ছাত্র-ছাত্রী নিশ্চিত হতাহত হওয়ার হাত থেকে রেহাই পায়। খবর বিবিসি ও এনডিটিভির।

আইজাজের এই সাহসিকতা ও আত্মত্যাগ তাকে দেশটির লাখ লাখ মানুষের কাছে জাতীয় বীরে পরিণত করেছে।

১৫ বছর বয়সী আইজাজ হাসান পেশোয়ারের খাইবার পাখতুনখা অঞ্চলের হাঙ্গু জেলার স্থানীয় এক স্কুলছাত্র। গত সোমবার এক আত্মঘাতী হামলাকারী আইজাজের স্কুলের সামনে বোমা হামলার চেষ্টা করলে তাকে প্রতিহত করতে গিয়ে আহত হয় আইজাজ। আহত অবস্থায় তাকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে মৃত্যুর কোলে টলে পড়ে সে।

এরপর গতকাল শুক্রবার পুলিশের এক বিবৃতিতে জানানো হয়, খাইবার পাখতুনখা প্রদেশের পুলিশ প্রধান নাসির খান দুররানি পেশোয়ারের প্রাদেশিক মন্ত্রীর মাধ্যমে দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরাবর আইজাজকে সর্বোচ্চ সম্মান সিতারা-ই-শুজ্জাত প্রদানের সুপারিশ করে। এই খেতাব রাষ্ট্রপতির অনুমোদনক্রমে কেবল একবারই দেওয়া হয়।

আইজাজের বাবা মুজাহিদ আলি বৃহস্পতিবার জানিয়েছেন, আমার ছেলের মৃত্যুতে আমার দুঃখবোধ নেই, বরং এ নিয়ে আমি গর্ববোধ করছি।

তিনি আরও বলেন, অনেকেই আমাকে দেখতে এসে সহানুভূতি জানিয়ে গেছেন। এ ব্যাপারে আমার বক্তব্য হচ্ছে, এমন এক সাহসী ছেলের বাবা হওয়ার কারণে আমাকে সহানুভূতি নয়, শুভেচ্ছা জানানো উচিৎ।